গণমাধ্যমে ধর্ষণের ভিকটিমের ছবি-পরিচয় প্রকাশ বন্ধে হাইকোর্টের আদেশ

আইনের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের ভিকটিমদের ছবি এবং পরিচয় মিডিয়ায় প্রকাশ বন্ধ করতে সরকারকে শিগগির প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।
supreme-court-1.jpg
সুপ্রিম কোর্ট ভবন। স্টার ফাইল ছবি

আইনের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের ভিকটিমদের ছবি এবং পরিচয় মিডিয়ায় প্রকাশ বন্ধ করতে সরকারকে শিগগির প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

একটি রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আজ সোমবার হাইকোর্ট এ আদেশ দেন। আদেশ বাস্তবায়নের অগ্রগতি জানিয়ে সরকারের সংশ্লিষ্ট চার কর্মকর্তাকে আগামী ৩০ দিনের মধ্যে পৃথক প্রতিবেদন দিতে বলেছেন আদালত।

চার কর্মকর্তা হলেন—তথ্য ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব এবং বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল ও বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ ও নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান।

এছাড়া, মিডিয়ায় ধর্ষণের শিকার ব্যক্তি বা তার পরিবারের সদস্যের চরিত্র বা বদনাম প্রকাশ রোধে সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিষ্ক্রিয়তা ও ব্যর্থতাকে কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, চার সপ্তাহের মধ্যে তার ব্যাখ্যা চেয়ে হাইকোর্ট রুলও জারি করেছেন।

রুলে ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের শিকারদের পরিচয় যে সব প্রিন্ট, অনলাইন সংবাদপত্র ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া প্রকাশ করেছে তাদের বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়নি, তারও কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে।

তথ্য, আইন ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব এবং বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের সভাপতি ও বিটিআরসির পরিচালক, চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা বিভাগের মহাপরিচালক, প্রেস তথ্য বিভাগের প্রধান তথ্য কর্মকর্তা, বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের সচিব, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার চেয়ারম্যান ও পুলিশের মহাপরিদর্শককে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

রিট আবেদনকারীদের আইনজীবী মাহফুজুর রহমান মিলন দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, হাইকোর্ট এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানির জন্য ৩ মে তারিখ নির্ধারণ করেছেন।

ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের শিকার ব্যক্তিদের পরিচয় প্রকাশ ও সম্প্রচার থেকে গণমাধ্যমকে বিরত রাখার নির্দেশনা চেয়ে একটি রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি ফারাহ মাহবুব ও বিচারপতি এসএম মনিরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এসব আদেশ ও রুল জারি করেন।

জাস্টিস ওয়াচ ফাউন্ডেশন হাইকোর্টে গত ১৯ জানুয়ারি জনস্বার্থে এ রিট আবেদন করেন। আবেদনে সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ এর ১৪ ধারা কঠোরভাবে প্রয়োগের আদেশ দিতে অনুরোধ করা হয় যেখানে ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের ঘটনায় ভুক্তভোগীর নাম ও ছবি প্রকাশ ও প্রচারে নিষেধাজ্ঞা আছে।

Comments

The Daily Star  | English

C&F staff halt work at 4 container depots

Staffers of clearing and forwarding (C&F) agents stopped working at four leading inland container depots (ICDs) in the port city since the early hours today following a dispute with customs officials, which eventually led to a clash between C&F staff and staff of an ICD

11m ago