মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৩০ হাজার বাড়ি

দেশের অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং শহীদ ও প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারের আর্থ-সামাজিক অবস্থান উন্নয়নের লক্ষ্যে তাদের জন্য ৩০ হাজার বাড়ি নির্মাণের পরিকল্পনা করেছে সরকার।

দেশের অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং শহীদ ও প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারের আর্থ-সামাজিক অবস্থান উন্নয়নের লক্ষ্যে তাদের জন্য ৩০ হাজার বাড়ি নির্মাণের পরিকল্পনা করেছে সরকার।

‘বীর নিবাস’ নামে এই প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে চার হাজার ১২২ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। প্রকল্পের আওতায় দেশের ৬৪টি জেলায় ৩০ হাজার বাড়ি তৈরি করা হবে।

প্রকল্পের প্রস্তাব অনুযায়ী, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও দেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে তাদেরকে এই বাড়িগুলো দেওয়া হবে।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় ২০২৩ সালের জুনের মধ্যে আবাসন প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে। মন্ত্রণালয় আগামী সপ্তাহে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদনের জন্য প্রকল্পটির প্রস্তাব রাখবে।

প্রকল্পের প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে, ‘বাস্তবায়িত হলে প্রকল্পটি শহীদ ও প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বিধবা স্ত্রী ও সন্তানদের সামাজিক মর্যাদা ও অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নয়নে সহায়তা করবে।’

সরকার এর আগে ১৪ হাজার বীর মুক্তিযোদ্ধার জন্য বহুতল ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা করেছিল। তবে প্রকল্পের আওতায় ৩০ হাজার অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বাড়ি নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ন্যূনতম মাসিক ভাতা বাড়ানোর ঘোষণা দেওয়ার এক মাসেরও কম সময়ের মধ্যে একনেকে আবাসন প্রকল্পটির প্রস্তাব করা হয়েছে।

গত ১৫ ফেব্রুয়ারি এক অনুষ্ঠানে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ন্যূনতম মাসিক ভাতা বিদ্যমান ১২ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ২০ হাজার টাকা করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বর্তমানে প্রায় দুই লাখ পাঁচ হাজার ২০৬ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা এই ভাতা পাচ্ছেন। তাদের মধ্যে শহীদ পরিবারগুলো প্রতি মাসে ৩০ হাজার এবং যুদ্ধাহতরা ২৫ হাজার টাকা ভাতা পাচ্ছেন।

মহান মুক্তিযুদ্ধে সর্বোচ্চ বীরত্বের জন্য সাত বীরশ্রেষ্ঠের পরিবার মাসে ৩৫ হাজার টাকা ও বীর উত্তম খেতাবপ্রাপ্তদের পরিবার প্রতি মাসে ২৫ হাজার টাকা করে পাচ্ছে।

বীর বিক্রম ও বীর প্রতীক খেতাবপ্রাপ্তরা যথাক্রমে ২০ হাজার ও ১৫ হাজার টাকা এবং বাকি মুক্তিযোদ্ধারা প্রতি মাসে পাচ্ছেন ১২ হাজার টাকা।

এছাড়াও যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধারা বিনামূল্যে চিকিত্সা সেবা পাচ্ছেন, গৃহহীনরা পাচ্ছেন আবাসন। তারা সরকারের কাছ থেকে পাঁচটি উত্সব ভাতাও পান। এর আগে, সরকার পুনর্বাসনের জন্য ভূমিহীন বীর মুক্তিযোদ্ধাদের দুই হাজার ৯০০টিরও বেশি বাড়ি তৈরি করে দিয়েছিল।

Comments

The Daily Star  | English

2 MRT lines may miss deadline

The metro rail authorities are likely to miss the 2030 deadline for completing two of the six planned metro lines in Dhaka as they have not yet started carrying out feasibility studies for the two lines.

9h ago