নারায়ণগঞ্জে পুলিশের ৪ হাজার গুলি, আহত ২৪ গুলিবিদ্ধ ৪

গতকাল রোববার দেশব্যাপী সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলাকালে নারায়ণগঞ্জের হেফাজত ইসলামের নেতাকর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষে পুলিশ সদস্যসহ ২৪ জন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে চার বিক্ষোভকারী গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।
Narayanganj clash
ছবি: স্টার ফাইল ফটো

গতকাল রোববার দেশব্যাপী সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলাকালে নারায়ণগঞ্জের হেফাজত ইসলামের নেতাকর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষে পুলিশ সদস্যসহ ২৪ জন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে চার বিক্ষোভকারী গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী চার হাজার রাউন্ডের বেশি গুলি ছুড়েছে। তবে এখনো পর্যন্ত কাউকে আটক করা হয়নি।

আজ সোমবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় ওই ছয়টি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। এর মধ্যে একটি মামলা দায়ের করবে র‌্যাব-১১।

এসব তথ্য জানিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘হেফাজত ইসলামের নেতাকর্মীরা হরতাল সমর্থনে যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছে এজন্য পুলিশের পক্ষ থেকে চার বা পাঁচটি ও র‌্যাবের পক্ষ থেকে একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। আজ রাতের মধ্যে এসব মামলা দায়ের হয়ে যাবে।’

মামলায় অভিযোগ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা, সরকারি কাজে বাধা, গাড়ি ভাঙচুর করে অগ্নিসংযোগ, সাধারণ মানুষের জানমালের ক্ষতি, সরকারি সম্পদের ক্ষতি ইত্যাদি বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। মামলা দায়েরের পর বিস্তারিত জানানো হবে।’

সংঘর্ষে ক্ষয়ক্ষতি সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘১৫ থেকে ২০টি যানবাহন ভাঙচুর করা হয়েছে। এর মধ্যে বড় ট্রাক নয়টি, কাভার্ড ভ্যান পাঁচটি, একটি বিআরটিসি বাস ও টেলিভিশন চ্যানেলের একটি প্রাইভেট কার রয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে চার হাজার রাউন্ডের বেশি গুলি ছোড়া হয়েছে। এর মধ্যে চায়না গান, শট গান, গ্যাস গানসহ রাবার বুলেট আছে। নির্দিষ্ট সংখ্যা মামলার পরই বলা যাবে।’

আহতদের সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘পুলিশের নয়জন চিকিৎসা নিয়েছেন। এছাড়াও আরও অনেক পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। কিন্তু, তাদের হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে হয়নি। সব মিলিয়ে ১৮ থেকে ২০জন সদস্য আহত হয়েছেন। বিক্ষোভকারীদের চারজন আহত হয়েছে। তারা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তবে এ ঘটনায় নিহতের কোন সংবাদ পাওয়া যায়নি।’

‘এখনো পর্যন্ত কাউকে আটক করা হয়নি’ উল্লেখ করে তিনি বলেছেন, ‘মামলা দায়েরের পর গ্রেপ্তারে অভিযান শুরু হবে।’

প্রত্যক্ষদর্শীরা ডেইলি স্টারকে জানিয়েছেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সাইনবোর্ড থেকে শিমরাইল পর্যন্ত আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া গাড়িগুলো আজ সোমবার ভোরে সরিয়ে নিয়েছে পুলিশ। সকাল থেকে দুপুর আড়াইটায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক ছিল।

আরও পড়ুন:

নারায়ণগঞ্জে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহসড়ক অবরোধ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, গুলিবিদ্ধ ১

মুসলিম প্রমাণে সাংবাদিককে কালেমা পাঠ করানোর অভিযোগ হেফাজত কর্মীদের বিরুদ্ধে

Comments

The Daily Star  | English

New School Curriculum: Implementation limps along

One and a half years after it was launched, implementation of the new curriculum at schools is still in a shambles as the authorities are yet to finalise a method of evaluating the students.

6h ago