মিয়ানমারে হত্যাযজ্ঞ বন্ধে নিরাপত্তা পরিষদের উদ্যোগ আহ্বান

মিয়ানমারে অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভ দমনে সেনাদের হত্যাযজ্ঞ বন্ধ করতে নিরাপত্তা পরিষদকে ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন মিয়ানমারে জাতিসংঘের বিশেষ দূত ক্রিস্টিন শ্র্যানার বার্গেনার।
Myanmar
মিয়ানমারের লাউংলন শহরে সেনাবিরোধী বিক্ষোভ। ছবি: রয়টার্স ফাইল ফটো

মিয়ানমারে অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভ দমনে সেনাদের হত্যাযজ্ঞ বন্ধ করতে নিরাপত্তা পরিষদকে ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন মিয়ানমারে জাতিসংঘের বিশেষ দূত ক্রিস্টিন শ্র্যানার বার্গেনার।

আজ বৃহস্পতিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, গতকাল ১৫ সদস্যের নিরাপত্তা পরিষদের রুদ্ধদ্বার বৈঠকে তিনি এ আহ্বান জানিয়েছেন।

জাতিসংঘের বিশেষ দূত পরিষদকে বলেন, গত ১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারে নির্বাচিত সরকারকে সরিয়ে সেনাবাহিনী ক্ষমতা গ্রহণ করলেও তারা দেশ পরিচালনা করতে সক্ষম নয়।

সেনাদের ক্ষমতাগ্রহণের ফলে মিয়ানমারের অবস্থা আরও খারাপের দিকে যাবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

‘মিয়ানমারে বিরাজমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে আপনারা সম্মিলিতভাবে তাই করুন যা করা সঠিক হবে ও দেশটির জনগণের যা প্রাপ্য। এশিয়ার কেন্দ্রস্থলে একটি বহুমাত্রিক বিপর্যয় প্রতিরোধ করুন,’ যোগ করেন বার্গেনার।

মিয়ানমারে ‘আসন্ন রক্তক্ষয় এড়াতে’ তিনি পরিষদকে ‘সম্ভাব্য উল্লেখযোগ্য ব্যবস্থা’ নেওয়ার আহ্বানও জানিয়েছেন।

সাম্প্রতিক সময়ে মিয়ানমারে প্রাণহানি বেড়ে যাওয়ায় যুক্তরাজ্য জাতিসংঘকে এই বৈঠকের অনুরোধ জানিয়েছে।

নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকের পর জাতিসংঘে যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদূত বারবারা উডওয়ার্ড ভার্চুয়াল প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, ‘(মিয়ানমারে) সেনাদের দমন-পীড়ন কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। এর বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কঠোর বার্তা দেওয়া প্রয়োজন।’

আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের অংশ হিসেবে নিরাপত্তা পরিষদকে ‘এর দায়িত্ব পালন করা উচিত’ বলেও মনে করেন তিনি।

গত শনিবার মিয়ানমারে একদিনে ১৪১ জন নিহত হন। মানবাধিকার সংগঠন অ্যাসিসটেন্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনারের মতে সেটি ছিল অভ্যুত্থানের পর সবচেয়ে রক্তক্ষয়ী দিন। এ নিয়ে দেশটিতে সেনাবিরোধী বিক্ষোভে অন্তত ৫২১ জন প্রাণ হারিয়েছেন বলেও জানিয়েছে সংগঠনটি।

সংবাদ প্রতিবেদন বলা হয়েছে, সারাদেশে সেনাবিরোধী বিক্ষোভের পাশাপাশি মিয়ানমারের সীমান্তবর্তী অঞ্চলগুলোতেও বিদ্রোহী জাতিগত সংখ্যালঘুদের সঙ্গে সেনাবাহিনীর সংঘর্ষ হচ্ছে। শরণার্থীরা নিরাপদ আশ্রয়ের জন্যে প্রতিবেশী দেশগুলোতে পালিয়ে যাচ্ছেন।

মিয়ানমারে বিক্ষোভকারীদের প্রাণহানিতে নিরাপত্তা পরিষদ নিন্দা জানালেও চীন, রাশিয়া, ভারত ও ভিয়েতনামের বিরোধিতায় অভ্যুত্থানের নিন্দা সংক্রান্ত শব্দগুলো পরিষদের বার্তা থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:

চীন-রাশিয়ার বিরোধিতায় আবারও মিয়ানমার নিয়ে বিবৃতি দিতে পারেনি নিরাপত্তা পরিষদ

মিয়ানমারের বিরুদ্ধে নিরাপত্তা পরিষদের বিবৃতি আটকে দিলো চীন

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান নিরাপত্তা পরিষদকে

সু চি ‘সুস্থ’ আছেন: আইনজীবী

বিক্ষোভ করলে মাথায় গুলি লাগতে পারে: মিয়ানমার সেনাদের হুমকি

মিয়ানমারে সেনাবিরোধী বিক্ষোভে নিহত ৩ শতাধিক

মিয়ানমারে সেনাবিরোধী বিক্ষোভে গুলিতে নিহত আরও ৯০

সু চির বিরুদ্ধে মিয়ানমার পুলিশের মামলা

মিয়ানমারে আমাদের বিনিয়োগে প্রভাব পড়বে না: জাপান

মিয়ানমারে চীনের বিনিয়োগে বিলম্ব ঝুঁকি

যুক্তরাষ্ট্রের অবরোধ ঝুঁকিতে মিয়ানমার

‘সু চি সরকারের বেশিরভাগ ক্ষমতা সামরিক বাহিনীর হাতেই ছিল’

রোহিঙ্গা প্রতিক্রিয়া: সু চি-সেনাবাহিনী একই

অভ্যুত্থান মেনে না নেওয়ার আহ্বান সু চির

যে কারণে সু চিকে সরিয়ে ক্ষমতা নিলো সেনাবাহিনী

মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানের নিন্দায় বিশ্ব সম্প্রদায়

‘নির্বাচনে কারচুপি’র অজুহাতে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অভ্যুত্থান

মিয়ানমারে শান্তি, স্থিতিশীলতা ও গণতন্ত্র চায় বাংলাদেশ

মিয়ানমার: ১৯৪৮ থেকে ২০২১

Comments

The Daily Star  | English
New School Curriculum: Implementation limps along

New School Curriculum: Implementation limps along

One and a half years after it was launched, implementation of the new curriculum at schools is still in a shambles as the authorities are yet to finalise a method of evaluating the students.

10h ago