রাইড শেয়ারিং বন্ধ: রাজধানীতে মোটরসাইকেল চালকদের বিক্ষোভ

লকডাউনে রাইড শেয়ারিং সার্ভিস বন্ধ রাখার নির্দেশনার প্রতিবাদে সড়ক আটকে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করেছেন মোটরসাইকেল চালকরা।
মোটরসাইকেলচালকদের বিক্ষোভ। ছবি: পলাশ খান

লকডাউনে রাইড শেয়ারিং সার্ভিস বন্ধ রাখার নির্দেশনার প্রতিবাদে সড়ক আটকে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করেছেন মোটরসাইকেল চালকরা।

আজ বুধবার সকালে তারা এই বিক্ষোভ করেন।

সরেজমিনে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় গিয়েছেন দ্য ডেইলি স্টারের আলোকচিত্রী পলাশ খান। তিনি জানান, রাজধানীর মগবাজার, প্রেসক্লাব, শাহবাগসহ বিভিন্ন এলাকায় মোটরসাইকেলচালকরা ঘণ্টাখানেক সড়ক আটকে বিক্ষোভ করেন। তাদরে মূল দাবি দুইটি। সেগুলো হলো— স্বাস্থ্যবিধি মেনে রাইড শেয়ারিং সার্ভিস চালু করা, আর লকডাউনে বের হওয়ার কারণে পুলিশ যে মামলাগুলো দিচ্ছে, সেগুলো যাতে না দেওয়া হয়।

রাইড শেয়ারিংয়ের মাধ্যমে মোটরসাইকেল চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন মো. আবদুল্লাহ। তিনি ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘অনেকেই করোনার কারণে চাকরি হারিয়েছে। এরপর থেকে রাইড শেয়ারিং সার্ভিসের মাধ্যমে উপার্জন করছে। এখন এটাও বন্ধ। পরিবার নিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে। আমাদের সবার অবস্থা প্রায় একই। এর ওপর আবার বের হলে পুলিশ এক, দুই বা তিন হাজার টাকার মামলা দিচ্ছে। সেই টাকা কোত্থেকে দেবো আমরা?’

মোটরসাইকেলচালকদের বিক্ষোভ। ছবি: পলাশ খান

বিক্ষোভ করা আরেক মোটরসাইকেলচালক ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘যদি শহরের মধ্যে বাস চলাচল চালু করা হতে পারে, তাহলে মোটরসাইকেল কেন নয়?’

রমনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুল ইসলাম ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘সকালে মোটরসাইকেলচালকরা মগবাজার মোড়ে বিক্ষোভ করেছেন।’

প্রেসক্লাব এলাকা থেকে ট্রাফিক পরিদর্শক বাশার ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘আমরা বিক্ষোভকারীদের বোঝানোর চেষ্টা করেছি।’ বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশে বাশার বলেন, ‘সরকার এক সপ্তাহের জন্যে এই নির্দেশনা দিয়েছে। আপনারা অপেক্ষা করুন। সরকার অবশ্যই বিষয়টি বিবেচনা করবে।’

Comments

The Daily Star  | English
Depositors’ money in merged banks will remain completely safe: Bangladesh Bank

Depositors’ money in merged banks will remain completely safe: BB

Accountholders of merged banks will be able to maintain their respective accounts as before

2h ago