শ্রীলঙ্কায় বোলারদের কঠিন চ্যালেঞ্জ দেখছেন প্রধান নির্বাচক

প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু মনে করছেন, উইকেটে বেশ ভালো বাউন্স আর প্রচণ্ড গরম থাকায় বোলারদের জন্য কাজটা হবে কঠিন।
Minhajul Abedin Nannu

সারাদিন বল করে উইকেট এসেছে কেবল একটি, ৮০ ওভারেই রান হয়েছে ৩১৪। নিজেদের মধ্যে খেলা প্রস্তুতি ম্যাচেই শ্রীলঙ্কায় বছরের এই সময়টার উইকেট সম্পর্কে ধারণা পেয়ে গেছে বাংলাদেশ। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু মনে করছেন, উইকেটে বেশ ভালো বাউন্স আর প্রচণ্ড গরম থাকায় বোলারদের জন্য কাজটা হবে কঠিন।

শনিবার কাতুনায়েকেতে বাংলাদেশ লাল দলের হয়ে চার ব্যাটসম্যান ফিফটি করে স্বেচ্ছায় মাঠ ছাড়েন, আরেকজন ফিফটির কাছে গিয়ে অবসরে যান। পুরো দিনে আউট হয়েছেন কেবল টেল এন্ডার ব্যাটসম্যান তাইজুল ইসলাম। লঙ্কায় এই সময়টায় প্রচণ্ড গরম আর ভালো বাউন্স থাকায় উইকেট থেকে খুব একটা ফায়দা আদায় করা সম্ভব হয়নি বোলারদের। 

আরও পড়ুন - প্রস্তুতি ম্যাচে প্রথম দিনে চার ফিফটি

কাছ থেকে খেলা দেখে প্রধান নির্বাচকদের উপলব্ধি  পালেকেল্লেতে টেস্টেও থাকতে পারে এমন কন্ডিশন, ‘এখানে প্রস্তুতি ম্যাচে বোলারদের জন্য খুব কঠিন একটা সেশন গিয়েছে। যে উইকেট ও কন্ডিশন...বাউন্স যথেষ্ট ভালো, যেহেতু এটা অনেকটা ফ্ল্যাট ট্র্যাকের মত। হয়তো টেস্টেও এরকম কন্ডিশন হতে পারে, এই গরমের মধ্যে ভালো জায়গায় বল করা, মনোযোগ থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমার মনে হয় আগামী দিন আরও একটা দিন বাকি আছে  অভ্যস্ত হওয়ার জন্য। আমার বিশ্বাস যে আমাদের বোলাররা খুব তাড়াতাড়ি অভ্যস্ত হতে পারবে, টেস্ট ক্রিকেটের আগে প্রস্তুতির জন্য যথেষ্ট কাজে লাগবে।’

বোলাররা তেমন সাফল্য না পেলেও প্রথম দিনে ফিফটি করেছেন তামিম ইকবাল, সাইফ হাসান, নাজমুল হাসান শান্ত,  মুশফিকুর রহিম। সব মিলিয়ে প্রস্তুতিতে তাই বেশ সন্তুষ্ট মিনহাজুল,  ‘আমাদের টপ অর্ডাররা ভালো ব্যাট করেছে, বোলাররা যথেষ্ট চেষ্টা করেছে লাইন লেংথ ও ভালো জায়গায় বল করার। সবমিলিয়ে আমি বলবো এটা খুব ভালো প্রস্তুতিতে সহায়তা করছে, আগামীকাল আরও একদিনের খেলা আছে। আমি মনে করি এরপর আমরা টেস্ট ক্রিকেটের জন্য পুরোপুরি প্রস্তুতি নিতে পারবো।’

২১ এপ্রিল থেকে পালেকেল্লেতে শুরু হবে দুই দলের প্রথম টেস্ট। ২৯ এপ্রিল একই ভেন্যুতে দ্বিতীয় টেস্ট। 

Comments

The Daily Star  | English

Mirpur-10 intersection: Who will control unruly bus drivers?

A visit there is enough to know why people suffer daily from the gridlock: a mindless completion of busses to get more passengers

10m ago