কনকাশন বদলি হিসেবে সাইফুদ্দিনের জায়গায় তাসকিন

৪৭তম ওভারে দুশমন্ত চামিরার বাউন্সারে হেলমেটে আঘাত পান মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। আঘাতের জেরে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়েছেন তিনি
Mohammad Saifuddin
হেলমেটে আঘাত পেয়ে লুটিয়ে পড়েন সাইফুদ্দিন। ছবি: ফিরোজ আহমেদ

৪৭তম ওভারে দুশমন্ত চামিরার বাউন্সারে হেলমেটে আঘাত পান মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। আঘাতের জেরে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়েছেন তিনি। কনকাশন বদলি হিসেবে সাইফুদ্দিনের বদলে তাসকিন আহমেদকে একদশে নিয়েছে বাংলাদেশ।

চামিরার করা ৪৭তম ওভারের চতুর্থ বলটা ছিল শরীরমুখী বাউন্সার। তাতে হুক করতে গিয়ে ব্যাটে নিতে পারেননি সাইফুদ্দিন। বল তার হেলমেটে আঘাত লেগে যায় পয়েন্টে দাঁড়ানো ফিল্ডারের কাছে। প্রান্ত বদল করতে গিয়ে ওই বলে তিনি রান আউট হয়ে যান ৩০ বলে ১১ রান করে। ম্যাচে বল করা ঝুঁকিমূলক হওয়ায় পরে তাকে দেওয়া হয়েছে বিশ্রাম। বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট জানিয়েছে, হাসপাতালে নিয়ে স্ক্যান করা হয়েছে সাইফুদ্দিনের মাথা। তার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। 

বাংলাদেশের ইতিহাসে এই নিয়ে তৃতীয় কনকাশন বদলি হলেন তাসকিন। তবে ওয়ানডে সংস্করণে অবশ্য তিনিই প্রথম। এর আগে ২০১৯ সালে কলকাতায় গোলাপি বলের টেস্টে দুজন কনকাশন বদলি নিতে হয় বাংলাদেশকে। মাথায় আঘাত পেয়ে লিটন দাস ছিটকে গেলে তার জায়গায় নেমেছিলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। পরে অফ স্পিনার নাঈম হাসানও একইরকম আঘাত পেলে তার জায়গায় নামেন তাইজুল ইসলাম। 

ক্রিকেটে নতুন নিয়ম অনুযায়ী, কেবল মাথায় আঘাত পেলেই ম্যাচের মধ্যে খেলোয়াড় বদল করার সুবিধা পায় দলগুলো। তবে সেক্ষেত্রে ব্যাটসম্যানের বদলে ব্যাটসম্যান, পেসারের বদলে নামাতে হয় পেসারকে। 

মঙ্গলবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টস জিতে আগে ব্যাট করে ২৪৬ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ। এর অর্ধেকের বেশি রানই আসে মুশফিকুর রহিমের ব্যাটে। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের অষ্টম সেঞ্চুরি তুলে শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে ১২৫ রান করে আউট হন তিনি। ধীর গতির উইকেটে সফরকারীদের জন্যও কাজটা সহজ নয়। 

প্রথম ম্যাচে ২৫৭ রান করে ৩৩ রানে জিতেছিল বাংলাদেশ। এই ম্যাচ জিতলে তাই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথমবারের মতো সিরিজ জিতবে তামিম ইকবালের দল। 

 

 

Comments