ইসরায়েলি হামলায় হামাসের মাত্র ৫ শতাংশ সুড়ঙ্গের ক্ষতি

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় হামাসের ৫০০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের সুড়ঙ্গ পথ রয়েছে। সাম্প্রতিক ইসরায়েলি হামলায় এর মাত্র পাঁচ শতাংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
ইয়াহিয়া সিনওয়ার। ছবি: সংগৃহীত

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় হামাসের ৫০০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের সুড়ঙ্গ পথ রয়েছে। সাম্প্রতিক ইসরায়েলি হামলায় এর মাত্র পাঁচ শতাংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ফিলিস্তিনি মুক্তি সংগ্রামী সংগঠন হামাস নেতা ইয়াহিয়া সিনওয়ার গতকাল বুধবার এসব তথ্য জানিয়েছেন বলে এক প্রতিবেদনে প্রকাশ করেছে ইসরায়েলি পত্রিকা জেরুজালেম পোস্ট।

সিনওয়ার বলেন, এসব সুড়ঙ্গে তাদের ১০ হাজার যোদ্ধা রয়েছেন, যারা ইসরায়েলি আক্রমণ প্রতিরোধে প্রস্তুত।

সিনওয়ার আরও বলেছেন, হামাস প্রতি মিনিটে ১০০ থেকে ২০০ কিলোমিটার পাল্লার ১০০ বা তারচেয়েও বেশি রকেট ছোড়ার সামর্থ্য রাখে। তারা একসঙ্গে ৩০০টি রকেট ছোড়ার পরিকল্পনা করেছিলেন। যার বেশিরভাগেরই লক্ষ্যবস্তু ছিল ইসরায়েলের রাজধানী তেল আবিব। কিন্তু মিশর ও কাতারের মধ্যস্থতাকারীদের প্রতি সম্মান দেখিয়ে তারা এ সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসেন।

তিনি উল্লেখ করেন, ইসরায়েলের সঙ্গে যুদ্ধবিরতি কোনো শর্ত সাপেক্ষে হয়নি এবং উভয়পক্ষ এ ব্যাপারে কোনো চুক্তি সই করেনি।

বিভিন্ন প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, ইসরায়েলের আক্রমণে ‘দ্য মেট্রো’ নামে পরিচিত হামাসের সুড়ঙ্গ ব্যবস্থার বেশিরভাগ অংশ ধ্বংস হয়ে গেছে।

তবে সিনওয়ার দাবি করেছেন, তাদের মাত্র পাঁচ শতাংশ সুড়ঙ্গ পথ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং এর মেরামতের কাজ অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই শেষ হবে।

হামাসের এই দাবি সত্য হলে, গাজার সুড়ঙ্গ পথের দৈর্ঘ্য লন্ডনের ভূগর্ভস্থ সুড়ঙ্গ পথের চেয়েও ১০০ কিলোমিটার বেশি।

ইসরায়েল দাবি করেছে, এবারের হামলায় তারা ১০০ কিলোমিটারেরও বেশি এলাকা জুড়ে বিস্তৃত সুড়ঙ্গ পথ ধ্বংস করেছে। তবে হামান নেতা সিনওয়ার তা অস্বীকার করেছেন।

বেশ কিছু প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, ইসরায়েল সাফল্যের সঙ্গে ফিলিস্তিনি মুক্তি সংগ্রামী সংগঠনগুলোকে এটি বিশ্বাস করাতে পেরেছিল যে তারা স্থলপথে আক্রমণ করবে এবং এ কারণে তারা (হামাস) সুরঙ্গ পথে অবস্থান নিয়েছিলেন।

তবে সিনওয়ার এ দাবি অস্বীকার করেছেন এবং বলেছেন, ‘হামাসের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো শত্রুর চিন্তাধারার সঙ্গে পরিচিত এবং তারা জানতেন যে স্থলপথে আক্রমণ হবে না।’

তিনি সতর্কবাণী দিয়েছেন যে আল আকসা এবং জেরুজালেম হচ্ছে ‘রেডলাইন’।

সিনওয়ার বলেন, ‘জেরুজালেম এবং অন্যান্য পবিত্র ভূমিতে কেউ হামলা চালালে তা হবে বড় ধরণের বোকামি এবং এর মোকাবিলায় আমরা প্রস্তুত।’

‘আমরা দখলদার ইসরায়েল ও বিশ্ববাসীকে জানাতে চাই যে আমরা কোনো অহেতুক হুমকি দেই না। সবার জানা উচিৎ, আল আকসাকে রক্ষা করার জন্য আমরা প্রস্তুত’, যোগ করেন তিনি। 

Comments

The Daily Star  | English

Free rein for gold smugglers in Jhenaidah

Since he was recruited as a carrier about six months ago, Sohel (real name withheld) transported smuggled golds on his motorbike from Jashore to Jhenaidah’s Maheshpur border at least 27 times.

9h ago