প্রতিপক্ষ তাকে বড় খেলোয়াড় ভাবায় সুবিধা পান মুশফিক

একটি করে হাফসেঞ্চুরি ও সেঞ্চুরিতে তার ব্যাট থেকে এসেছে সিরিজের সর্বোচ্চ ২৩৭ রান।
Mushfiqur Rahim
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

বাংলাদেশের মিস্টার ডিপেন্ডেবল খেতাবটা এমনি এমনি-ই তো পাননি মুশফিকুর রহিম! শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আরও একবার সামর্থ্যের স্বাক্ষর রেখে তিনি হয়েছেন ওয়ানডে সিরিজের সেরা খেলোয়াড়। পুরস্কার নিতে এসে এই উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান বলেছেন, প্রতিপক্ষ তাকে বড় খেলোয়াড় হিসেবে চিন্তা করায় সুবিধা পান তিনি।

বাংলাদেশের ক্রিকেটের বড় নামগুলোর মধ্যে রয়েছেন মুশফিক। চলতি সিরিজেও প্রত্যাশার দাবি মিটিয়ে দারুণ খেলেছেন তিনি। একটি করে হাফসেঞ্চুরি ও সেঞ্চুরিতে তার ব্যাট থেকে এসেছে সিরিজের সর্বোচ্চ ২৩৭ রান।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২-১ ব্যবধানে জেতা সিরিজে বাংলাদেশের প্রথম দুই ম্যাচের নায়ক ছিলেন মুশফিক। চাপের মুখে দারুণ ব্যাটিং করেছিলেন তিনি। শুক্রবার তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতেও আবারও দলের বিপর্যয় সামলানোর দায়িত্ব ছিল তাদের কাঁধে। তবে এদিন ৫৪ বলে ২৮ রানে তাকে ফিরতে হয় সাজঘরে। বাংলাদেশও শেষ পর্যন্ত জিততে পারেনি।

ম্যাচের পর পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে মুশফিক বলেছেন, ‘আমার মতে, ছেলেরা ভালো করেছে। তারা এই সিরিজের জন্য কঠোর পরিশ্রম করেছে। গত কয়েক মাস আমরা নিজেদের সেরা ক্রিকেটটা খেলতে পারিনি। তবে সৌভাগ্যক্রমে প্রথম দুই ম্যাচে নিজেদের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পেরেছি। দুর্ভাগ্যবশত ভালোভাবে শেষ করতে পারলাম না আমরা।’

প্রতি ম্যাচেই দলের জন্য কিছু করার আকাঙ্ক্ষার কথা জানিয়েছেন দেড় দশকেরও বেশি সময় ধরে আন্তর্জাতিক মঞ্চে খেলতে থাকা মুশি, ‘১৫ বছর ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে আপনাকে নিজের দেশের জন্য অনেক অনেক অবদান রাখতে হবে। আমি প্রতি ম্যাচে তার-ই চেষ্টা করি। শ্রীলঙ্কা প্রতিপক্ষ হিসেবে সহজ দল নয়। তারা কখনও হাল ছেড়ে দেয় না এবং সবসময় দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায়।’

চাপের মুহূর্ত ও তার দিকে প্রতিপক্ষের বাড়তি নজর উপভোগ করেন বলে উল্লেখ করেছেন মুশফিক, ‘আমি চাপটা সবসময়ই উপভোগ করি। যখনই চাপ বা প্রত্যাশার বিষয় চলে আসে, আমি শান্ত থাকার চেষ্টা করি। আমি জানি, প্রতিপক্ষও আমাকে বড় খেলোয়াড় হিসেবে চিন্তা করে থাকে। এটা আমাকে বেশ সুবিধা দেয়।’

Comments