অর্থনীতি

বাজেট: সরকারের আগামী দিনগুলো কঠিন হতে পারে

করোনা মহামারির দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে দেশের অর্থনীতির কঠিন এই সময়ে আজ বৃহস্পতিবার ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষণা হতে যাচ্ছে।
স্টার অনলাইন গ্রাফিক্স

করোনা মহামারির দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে দেশের অর্থনীতির কঠিন এই সময়ে আজ বৃহস্পতিবার ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষণা হতে যাচ্ছে।

অর্থনীতিবিদদের মতে, এই সময়ে বেশি প্রয়োজন বৃহত্তর সামাজিক সুরক্ষা বেষ্টনি, অনেক শিল্পকারখানার জন্য নীতিগত সহায়তা এবং প্রণোদনা, স্বাস্থ্য ও শিক্ষাখাতের উন্নতি।

ক্ষুদ্র ব্যবসা ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির মানুষজন এই মুহূর্তে চাপের মধ্যে রয়েছে। অনেকের আর্থিক স্বচ্ছলতার দিকটি নিম্নমুখী হওয়ায় অর্থনীতিতে বড় ধরনের বৈষম্য সৃষ্টি হয়েছে।

চলতি অর্থবছরে মহামারির কারণে সরকারকে নতুন করে অনেক ব্যয় করতে হয়েছে।

ট্যাক্স ছাড় ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) ইতোমধ্যে লক্ষ্য অর্জনে পিছিয়ে রয়েছে, রাজস্ব আদায় ও লক্ষ্যে পৌঁছানোই হবে আগামী বছরগুলোর জন্য বড় চ্যালেঞ্জ।

অন্যান্য চ্যালেঞ্জগুলো হলো— নতুন চাকরি সৃষ্টি করা, বিনিয়োগ, বাজেট ঘাটতি ব্যবস্থাপনা ও বিদেশি সহায়তার যথাযথ ব্যবহার। কৃষি ও রেমিট্যান্স অর্থনীতিকে ভালো অবস্থানে রেখেছে। তবে, এই দুটি ক্ষেত্রের অবদান কীভাবে শক্তিশালী রাখা হবে, তা স্পষ্ট করে বলা উচিত।

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ডেভলোপমেন্ট স্টাডিজের (বিআইডিএস) গবেষণা পরিচালক কাজী ইকবাল বলেন, ‘মহামারিতে সরকারের ব্যয় বেড়ে যাওয়াটা স্বাভাবিক বিষয়। কিন্তু, যদি সম্ভাব্য সব উৎস থেকে সহায়তা না পাওয়া যায়, তবে ভারসাম্যহীনতা তৈরি হতে পারে।’

অর্থ মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, ২০১০-২০১১ অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে মোট রাজস্বের ১৩ দশমিক চার শতাংশ প্রবৃদ্ধি রেকর্ড করেছে, যেখানে বার্ষিক লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪৩ দশমিক সাত শতাংশ।

ইকবাল বলেন, ‘আগামী অর্থবছরে দেশে বিদেশি বিনিয়োগ আনা একটি বড় চ্যালেঞ্জ হবে।’

প্রাপ্ত তথ্যমতে, অর্থবছরের জুলাই-এপ্রিল সময়কালে বৈদেশিক অনুদানের ৬৯ দশমিক সাত শতাংশ নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি অর্জন হয়েছে।

‘আগামী অর্থবছরে মহামারি কত দিন থাকবে, তার ওপর অর্থনীতি পুরোপুরি নির্ভর করবে’, তিনি বলেন।

বড় প্রকল্পগুলো ধীর গতিতে কাজ করে উল্লেখ করে তিনি জানান, স্বাস্থ্য খাতে সরকারের পক্ষ থেকে একটি বড় বাজেটের বরাদ্দ থাকবে, যেখানে অন্যান্য খাতে অর্থ প্রদানের ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি হতে পারে।

ইংরেজি থেকে অনুবাদ করেছেন সুমন আলী

সংক্ষেপিত: ইংরেজিতে পুরো প্রতিবেদনটি পড়তে ক্লিক করুন Govt has an uphill battle ahead

Comments

The Daily Star  | English

93pc jobs on merit, 7pc from quotas

Govt issues circular; some quota reform organisers reject it

2h ago