নিষেধাজ্ঞা অমান্য, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে যাত্রীবাহী বাস পারাপার

করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সাত দিনের লকডাউন ঘোষণা করা হলেও নিষেধাজ্ঞা আমান্য করে আজ সকালে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে ফেরিতে যাত্রীবাহী বাস পারাপার করা হয়েছে। মোট দশটি ট্রিপে এসব বাস পারাপার করা হয়।
মঙ্গলবার সকালে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে ফেরিতে যাত্রীবাহী বাস পারাপার করা হয়। ছবি প্রথম আলোর সৌজন্যে।

করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সাত দিনের লকডাউন ঘোষণা করা হলেও নিষেধাজ্ঞা আমান্য করে আজ সকালে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে ফেরিতে যাত্রীবাহী বাস পারাপার করা হয়েছে। মোট দশটি ট্রিপে এসব বাস পারাপার করা হয়।

এ প্রসঙ্গে সকালে বিআইডব্লিউটিসির আরিচা আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপমহাব্যবস্থাপক জিল্লুর রহমান দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘রাতে লকডাউন ঘোষণার আগে এবং পরপরই ঘাট এলাকায় যাত্রীবাহী যেসব গাড়ি আটকে পড়ে সেগুলো রাতেই পারাপারের চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু, আগে থেকেই অনলাইনে টিকিট করা ছিল যেসব গাড়ি সকাল ছয়টা পর্যন্ত আটকে পড়েছিল শুধুমাত্র সেগুলো পারাপার করা হয়েছে। কারণ তাদের ফিরে যাওয়ার সুযোগ নেই। পুলিশের সঙ্গে আলোচনা করে মানবিক কারণে এই গাড়িগুলো পারাপার করা হয়েছে।’

তিনি আরও জানান, বর্তমানে এই রুটে বাসের চাপ নেই। তবে, কিছু ট্রাক আটকে আছে। যেগুলো নিয়ম মেনে পার করা হবে।

এদিকে, লকডাউন ঘোষণার কারণে আজ সকাল ৬টা থেকে মানিকগঞ্জ জেলা শহরসহ বিভিন্ন এলাকার দোকানপাট বন্ধ আছে। ঢাকা-আরিচা মহাসড়কসহ স্থানীয় সড়কগুলোতে জরুরি পণ্যবাহী গাড়ি ছাড়া সবধরণের গনপরিবহন চলাচল বন্ধ আছে।

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ও আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে জরুরি গাড়ি পারাপারে সীমিতভাবে ফেরি চলাচল করছে। মহাসড়কসহ বিভিন্ন এলাকায় লকডাউন পালনে মাঠে আছেন ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ সদস্যরা।

উল্লেখ্য, করোনার সংক্রমণের বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় আজ সকাল ৬টা থেকে ৩০ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত মানিকগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, গাজীপুর, মাদারীপুর, রাজবাড়ী এবং গোপালগঞ্জ জেলায় সার্বিক কার্যাবলী/চলাচল (জনসাধারণের চলাচলসহ) বন্ধ রাখার ঘোষণা দেয় সরকার।

Comments

The Daily Star  | English

Train movement in Dhaka halted as students block Mohakhali level crossing

Protesting students today blocked the railway line in Dhaka’s Mohakhali level crossing protesting the attacks on students of various universities while they were demonstrating for quota reform

24m ago