শীর্ষ খবর

মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর তদন্ত ‘হোয়াইটওয়াশ’: অ্যামনেস্টি

রোহিঙ্গা নির্যাতনের অভিযোগ সম্পর্কে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী যে তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে তার বস্তুনিষ্ঠতা নিয়ে কঠোর সমালোচনা করেছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। ওই তদন্তকে “হোয়াইটওয়াশ” আখ্যা দিয়ে জাতিসংঘ ও নিরপেক্ষ তদন্ত করার সুযোগ দিতেও দেশটির প্রতি আহ্বান জানিয়েছে মানবাধিকার সংস্থাটি।
myanmar army on border
রোহিঙ্গা নির্যাতনের অভিযোগ সম্পর্কে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর তদন্ত প্রতিবেদনকে 'হোয়াইটওয়াশ' আখ্যা দিয়েছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। ছবি: রয়টার্স

রোহিঙ্গা নির্যাতনের অভিযোগ সম্পর্কে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী যে তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে তার বস্তুনিষ্ঠতা নিয়ে কঠোর সমালোচনা করেছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। ওই তদন্তকে “হোয়াইটওয়াশ” আখ্যা দিয়ে জাতিসংঘ ও নিরপেক্ষ তদন্ত করার সুযোগ দিতেও দেশটির প্রতি আহ্বান জানিয়েছে মানবাধিকার সংস্থাটি।

গত আগস্ট মাসে রাখাইনে নিরাপত্তা বাহিনীর ৩০টি চৌকিতে রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের হামলার পর নির্বিচার নিধনযজ্ঞ থেকে বাঁচতে এখন পর্যন্ত ছয় লাখের বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থী সীমান্ত পার হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। এই নিপীড়নকে ‘জাতিগত নিধনের প্রকৃষ্ট উদাহরণ’ বলেছে জাতিসংঘ।

বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গারা নির্মম হত্যাযজ্ঞ, ধর্ষণ ও গ্রাম জ্বালিয়ে দেওয়ার বিবরণ দিয়েছেন। নির্যাতন বন্ধে আন্তর্জাতিক মহল থেকে অং সাং সু চি সরকারের ওপর অব্যাহত চাপ থাকলেও দেশটির সেনাবাহিনী নিজেদের নির্দোষ দাবি করে আসছে।

রাখাইনে সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ উঠেছে তা নিয়ে নিজেরা তদন্ত করেছে সেনাবাহিনী। সোমবার সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইয়াং তার ফেসবুক পেজে তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেন। প্রতিবেদনে বলা হয়, রোহিঙ্গাদের গ্রামে গুলি চালিয়ে মানুষ হত্যা, ধর্ষণ বা বন্দীদের নির্যাতনের যেসব অভিযোগ করা হচ্ছে তার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। রোহিঙ্গাদের গ্রামে আগুন দেওয়া ও মাত্রাতিরিক্ত বল প্রয়োগেরও অভিযোগ অস্বীকার করা হয় তাতে।

রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফেরাতে দেশটির সাথে কূটনৈতিক আলাপ আলোচনা অব্যাহত রেখেছে বাংলাদেশ। তবে এখন পর্যন্ত এ ব্যাপারে দৃশ্যমান কোনো অগ্রগতি হয়নি।

Comments

The Daily Star  | English
Bank mergers in Bangladesh

Bank mergers: All dimensions must be considered

In general, five issues need to be borne in mind when it comes to bank mergers in Bangladesh.

10h ago