খেলা

'সুপার ওভারে কুমিল্লার আপত্তিতেই ম্যাচ রিজার্ভ ডেতে'

প্লেয়িং কন্ডিশনে না থাকার পরও রিজার্ভ ডেতে ম্যাচ নিয়ে যাওয়া নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে ব্যাখ্যা দিয়েছে বিসিবি।

বিপিএলের ফাইনাল শেষে শিরোপা নিয়ে ঘরে ফিরে গেছে রংপুর রাইডার্স। তবু আলোচনা থামছে না দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারের নাটকীয়তা নিয়ে। প্লেয়িং কন্ডিশনে না থাকার পরও রিজার্ভ ডেতে ম্যাচ নিয়ে যাওয়া নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে ব্যাখ্যা দিয়েছে বিসিবি।

এবার বিপিএলের প্লেয়িং কন্ডিশনে এলিমিনেটর ও কোয়ালিফায়ার ম্যাচে  কোন রিজার্ভ ডে ছিল না। ১০ ডিসেম্বর কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও রংপুর রাইডার্স ম্যাচের ৭ ওভারে নামে বৃষ্টি। ওই বৃষ্টি শেষে মাঠ প্রস্তুত হতে হতেই পেরিয়ে যায় কাটঅফ টাইম। প্লেয়িং কন্ডিশন অনুযায়ী তখন দুদলকে সুপার ওভারের জন্য প্রস্তুত হতে বলেছিলেন ম্যাচ রেফারি। কিন্তু কুমিল্লা নাকি সুপার ওভার খেলতে আপত্তি জানায়। এতেই বিপত্তি। অনেক দেন-দরবারের পর দুদলের সম্মতিতে ম্যাচ গড়ায় পরের দিন।

বিসিবি পরিচালক মাহবুব আনাম বলেন, ‘ম্যাচের সময় ছিল ছয়টা থেকে ৯টা ২০। ম্যাচ সময়মত শুরু হয়। ৬টা ৩৫ মিনিটে নামে বৃষ্টি। এখানে অতিরিক্ত সময় ছিল আরও ৩০ মিনিট। লেটেস্ট কাটঅফ টাইম ছিল ৯টা ৫০।  ৯টা ৫ মিনিটে বৃষ্টি থেমে যায়। দুদল ৫ ওভার করে খেলতে পারলে তখন এটাকে ম্যাচ বলা যেত। তা না হলে এটা ‘নো রেজাল্ট’ বলে গণ্য হবে। আর নো রেজাল্ট হলে কন্ডিশন এলাউ করলে হবে সুপার ওভার। সুপার ওভার সর্বশেষ সময় ছিল রাত ১০টা। ম্যাচ অফিসিয়ালরা সব প্রস্তুতি নিয়ে দুদলকে ৯টা ৪০ মিনিটে জানিয়েছে। কিন্তু একটা দল (কুমিল্লা) তা খেলতে অসম্মতি জানায়। পরে দুদলের সম্মতিতে ম্যাচ পরের দিনে গড়ায়।’

নিয়মের মধ্যে থাকার পর কেউ খেলতে অসম্মতি জানালে প্রতিপক্ষই বিজয়ী হয়। এক্ষেত্রে  তা না করে কেন বাইলজ বদলানো হলো? বিপিএলে গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক বলেন, ‘এটা করা হয়েছে টুর্নামেন্টের স্বার্থে। খেলা না হওয়ার চেয়ে খেলা হওয়া তো ভালো।’

মাহবুবের আনামের ব্যাখ্যা, ‘ক্রিকেটে নর্মস আছে কোন ব্যাটসম্যান আউট হয়ে গেলে, প্রতিপক্ষ অধিনায়ক চাইলে তাকে ফিরিয়ে আনতে পারে। সেদিক থেকেই দুই অধিনায়ক রাজি থাকলে এমন বদল হতে পারে।’

Comments