চুরি যাওয়া লেখার জন্য আক্ষেপ করলেন শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়

​দুই বাংলার জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় বলেছেন, তার বহু লেখা চুরি হয়ে গিয়েছে। কর্মজীবনের শুরু থেকে বহুবার আবাস পরিবর্তনের সময় ’লেখা চোর’ তার বহু মূল্যবান লেখা চুরি করেছে।
শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়
শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়। ছবি: স্টার

দুই বাংলার জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় বলেছেন, তার বহু লেখা চুরি হয়ে গিয়েছে। কর্মজীবনের শুরু থেকে বহুবার আবাস পরিবর্তনের সময় “লেখা চোর” তার বহু মূল্যবান লেখা চুরি করেছে।

শীর্ষেন্দুর ভাষায়, জীবনে নিজে একটু অগোছালো; সেই সুযোগেই এমন সর্বনাশ হয়েছে আমার।

তবে ঠিক কত গুলো লেখা চুরি বা খোয়া গিয়েছে সে ব্যাপারে কোনো ধারণা দিতে পারেননি এই লেখক। 

সম্প্রতি দ্য ডেইলি স্টারের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে জীবনের এই চরম ঘটনার কথা প্রকাশ করেন বাংলা ভাষার জীবন্ত এই কিংবদন্তি সাহিত্যিক।

এক প্রশ্নের উত্তরে শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় বলেন, সম্প্রতি আমার হারিয়ে যাওয়া বা চুরি হওয়া লেখা নিয়ে প্রকাশনা সংস্থা পত্রভারতী দুই খণ্ডের একটি বই প্রকাশ করেছে। এই সংকলনের নাম দেওয়া হয়েছে “হারিয়ে যাওয়া লেখা”।

হারিয়ে যাওয়া লেখা বইতে “যাও পাখি”র রচয়িতার ছয়টি উপন্যাস, ১৯টি খেলা বিষয়ক প্রবন্ধ, ১০টি সাহিত্য বিষয়ক প্রবন্ধ ছাড়াও স্মৃতিচারণ, সিনেমা বিষয়ক, তির্যক সমালোচনামূলক, রম্য এবং আধ্যাত্মিক বিষয়ক প্রায় ৫০টির বেশি লেখা রয়েছে।

এক হাজার ২০০ পৃষ্ঠার এই বই এখন কলকাতার কলেজ স্ট্রিটের দোকান গুলোতে “হট কেক”-এর মতোই বিক্রি হচ্ছে বলে জানালেন পত্রভারতী প্রকাশনী সংস্থার কর্ণধার ত্রিদিব চট্টোপাধ্যায়। তিনি আরও বললেন, চুরি যাওয়া সব বিরল লেখা রয়েছে “হারিয়ে যাওয়া লেখা”-ওই বইতে।

এই বিষয়ে শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় দ্য স্টারকে জানান, এখনো বহু লেখা হারিয়ে যাওয়ার তালিকায় আছে। সেগুলোর হয়তো জীবদ্দশায় দেখে যেতে পারবেন না।

ওই লেখাগুলোর মধ্যে এমন লেখাও হয়তো আছে, যা তিনি বাংলাদেশের কোনো গণমাধ্যমের জন্য লিখেছিলেন। তবে বাংলাদেশের জন্য আর বিশেষ কিছু লিখেননি শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়- বললেন দ্য ডেইলি স্টারকে।

Comments

The Daily Star  | English

Old, unfit vehicles taking lives

The bus involved in yesterday’s crash that left 14 dead in Faridpur would not have been on the road had the government not given into transport associations’ demand for keeping buses over 20 years old on the road.

31m ago