ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন: সংসদীয় স্থায়ী কমিটির কাছে সংশোধনের প্রস্তাব দিবে এডিটরস কাউন্সিল

​ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ব্যাপারে ডাক টেলিযোগাযোগ তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক সংসদীয়ই স্থায়ী কমিটির সাথে এডিটরস কাউন্সিলের বৈঠকের ব্যবস্থার আশ্বাস দিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ওই বৈঠকে প্রস্তাবিত আইনটি নিয়ে দৈনিক পত্রিকার সম্পাদকরা তাদের উদ্বেগ ও প্রয়োজনীয় সংশোধনীর প্রস্তাব তুলে ধরতে পারবেন।
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন এডিটরস কাউন্সিল
দৈনিক পত্রিকার সম্পাদকদের সংগঠন এডিটরস কাউন্সিলের সঙ্গে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন আইনমন্ত্রী। ছবি: রাশেদুল হাসান

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ব্যাপারে ডাক টেলিযোগাযোগ তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক সংসদীয়ই স্থায়ী কমিটির সাথে এডিটরস কাউন্সিলের বৈঠকের ব্যবস্থার আশ্বাস দিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ওই বৈঠকে প্রস্তাবিত আইনটি নিয়ে দৈনিক পত্রিকার সম্পাদকরা তাদের উদ্বেগ ও প্রয়োজনীয় সংশোধনীর প্রস্তাব তুলে ধরতে পারবেন।

আইনমন্ত্রী আজ বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে দৈনিক পত্রিকার সম্পাদকদের সংগঠন, এডিটরস কাউন্সিল—এর সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে তিনি ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনের আপত্তিকর ধারাগুলোতে পরিবর্তন নিয়ে সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সঙ্গে আলোচনার ব্যবস্থা করার ব্যাপারে কাউন্সিলকে আশ্বাস দেন।

আগামী ২২ এপ্রিল বৈঠকে বসবে সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। আজকের বৈঠকে সিদ্ধান্ত, এডিটরস কাউন্সিলের সঙ্গে আলোচনার জন্য সেদিনই আইনমন্ত্রী স্থায়ী কমিটিকে অনুরোধ করবেন। পরে এডিটরস কাউন্সিল আইনটির ৮, ২১, ২৫, ২৯, ৩২ ও ৪৩ নম্বর ধারা নিয়ে তাদের আপত্তির কথা তুলে ধরবেন।

ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনটি এখন যাচাই বাছাই করে দেখছে ডাক টেলিযোগাযোগ তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক সংসদীয়ই স্থায়ী কমিটি। আইনমন্ত্রীর ভাষায়, প্রস্তাবিত আইনটি নিয়ে সম্পাদকরা যেসব উদ্বেগের কথা বলেছেন তা সম্পূর্ণ যৌক্তিক।

অইনমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক শেষে এডিটরস কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক ও দ্য ডেইলি স্টারের সম্পাদক মাহফুজ আনাম সাংবাদিকদের বলেন, “এডিটরস কাউন্সিল অবশ্যই চায় সাইবার অপরাধ বন্ধ হোক। কিন্তু সাইবার অপরাধবিরোধী আইন যেন বাক স্বাধীনতা ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা খর্ব না করে।”

সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সঙ্গে বৈঠকের সময় আইনটির আপত্তিকর অংশগুলো নিয়ে এডিটরস কাউন্সিল তাদের উদ্বেগের কথা তুলে ধরবে বলে যোগ করেন মাহফুজ আনাম।

Comments

The Daily Star  | English

Lifts at public hospitals: Where Horror Abounds

Shipon Mia (not his real name) fears for his life throughout the hours he works as a liftman at a building of Sir Salimullah Medical College, commonly known as Mitford hospital, in the capital.

8h ago