রাইডু-ওয়াটসনের ব্যাটে পাত্তাই পেল না সাকিবরা

বল হাতে সাকিব আল হাসানের খরুচে দিনে তার দলের বাকিদের পারফরম্যান্সও বিবর্ণ। বড় সংগ্রহ গড়েও তাই আম্বাতি রাইডুর সেঞ্চুরি আর শেন ওয়াটসনের ফিফটিতে চেন্নাই সুপার কিংসের কাছে পাত্তাই পায়নি সানরাইজার্স হায়দরাবাদ।
Shakib Al Hasan
রাইডু-ওয়াটসনের তাণ্ডবে হতাশা সাকিবের। ছবি: এএফপি

বল হাতে সাকিব আল হাসানের খরুচে দিনে তার দলের বাকিদের পারফরম্যান্সও বিবর্ণ। বড় সংগ্রহ গড়েও তাই আম্বাতি রাইডুর সেঞ্চুরি আর শেন ওয়াটসনের ফিফটিতে চেন্নাই সুপার কিংসের কাছে পাত্তাই পায়নি সানরাইজার্স হায়দরাবাদ।

আগের দেখায় ৪ রানে জেতা চেন্নাই ফিরতে ম্যাচে জিতল ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে। সানরাইজার্সের করা ১৭৯ রান তারা ৮ উইকেট আর পাক্কা এক ওভার হাতে রেখেই। দলের জয়ে সবচেয়ে বড় অবদান ওপেনার আম্বাতি রাইডুর। দারুণ ফর্মে থাকা এই ব্যাটসম্যান অপরাজিত থাকেন ঠিক ১০০ করে, ওয়াটসনের ব্যাট থেকে আসে ৫৭ রান।

দলের হারের দিনে ব্যাট হাতে তেমন কিছু করার সুযোগ ছিল না সাকিবের। ৬ বলে ৮ রান করে অপরাজিত ছিলেন। তবে কাজটা করতে পারতেন বল হাতে। সেখানে এবার হয়েছেন ব্যর্থ। তার ৪ ওভার থেকে ৪১ রান নিয়েছে চেন্নাইর ব্যাটসম্যানরা। দলের সবচেয়ে খরুচে বোলারও তিনিই।

পুনেতে আগে ব্যাটিং পেয়ে সানরাইজার্সকে এদিনও টেনেছেন শিখর ধাওয়ান ও কেন উইলিয়ামসন। ধাওয়ানের ৭৯ আর উইলিয়ামসনের ৫১ রানে শক্ত ভিতই পেয়েছিল দল। গড়েছিল ১৭৯ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর।

তবে সাকিবদের দেওয়া চ্যালেঞ্জ শুরু থেকেই যেন তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিতে নামেন চেন্নাইর দুই ওপেনার। ১৩ ওভার ৩ বল স্থায়ী উদ্বোধনী জুটিতেই ১৩৪ রান তুলে ফেলেন রাইডু-ওয়াটসন। দুজনেই সমান তালে পিটিয়েছেন সানরাইজার্স বোলারদের। এক পর্যায়ে মনে হচ্ছিল দুই ওপেনারই শেষ করে দেবেন ম্যাচ। তাতে ছেদ পড়ে রান আউটে। ৩৫ বলে ৫ চার আর ৩ ছক্কায় ৫৭ করে ফেরেন ওয়াটসন। তিনে নেমে সুরেশ রায়না ফিরে যান দ্রুতই।

তবে আর কোন বিপদ বাড়তে দেননে রাইডু। তার ব্যাট হয়ে উঠে আরও আগ্রাসী। ৬২ বলে ৭টি করে চার-ছক্কা মেরে ঠিক ১০০ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। দলকে জিতিতে অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি ১৪ বলে ২০ রান করে হাসিমুখে মাঠ ছাড়েন।

হারলেও ১২ ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষেই থাকছে হায়দরাবাদ। সমান ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে চেন্নাই।

 

Comments

The Daily Star  | English
wage workers cost-of-living crisis

The cost-of-living crisis prolongs for wage workers

The cost-of-living crisis in Bangladesh appears to have caused more trouble for daily workers as their wage growth has been lower than the inflation rate for more than two years.

2h ago