দ্বার খোলার প্রতীক্ষায় বিশ্বভারতীর ‘বাংলাদেশ ভবন’

প্রতীক্ষা আর মাত্র কয়েক ঘণ্টার। এরপরই ভারত ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীদের হাত দিয়ে উদ্বোধন করা হবে বিশ্বভারতীতে বাংলাদেশের অর্থায়নে নির্মিত ‘বাংলাদেশ ভবন’। ইতোমধ্যেই ভবনের সব ধরণের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।
Bangladesh Bhaban
ভারতের বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে উদ্বোধনের অপেক্ষায় ‘বাংলাদেশ ভবন’। ছবি: স্টার

প্রতীক্ষা আর মাত্র কয়েক ঘণ্টার। এরপরই ভারত ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীদের হাত দিয়ে উদ্বোধন করা হবে বিশ্বভারতীতে বাংলাদেশের অর্থায়নে নির্মিত ‘বাংলাদেশ ভবন’। ইতোমধ্যেই ভবনের সব ধরণের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।

তবে ভবনের অন্যতম আকর্ষণ জাদুঘরের শেষ মুহূর্তের কিছু ছবি টাঙানোর কাজ করতে দেখা গিয়েছে আজ (২৪ মে) বিকালেও। আর ওই কাজের তদারকি করছেন বাংলাদেশের সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। তাঁর সঙ্গে ছিলেন কয়েকজন বিশেষজ্ঞ ইতিহাসবিদও।

দুই প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন শেষে তাঁরা গন্তব্যে ফিরে যাওয়ার পরই সাধারণের জন্যে খুলে দেওয়া হবে ভারতে বাংলাদেশের অন্যতম এই দ্রষ্টব্য।

এদিকে, আগামীকাল (২৫ মে) স্থানীয় সময় বেলা ১২টায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যৌথভাবে ‘বাংলাদেশ ভবন’-এর উদ্বোধন করার পর সেখানে তাঁদের সৌজন্যে সংক্ষিপ্ত এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন থাকবে।

আজ সকাল সাড়ে ১১টায় সংগীত ভবনে গিয়েও দেখা গেল শেষ মুহূর্তে সেই অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি। বাংলাদেশ ও ভারতের শিক্ষার্থীরা যৌথভাবে দুই দেশের জাতীয় সংগীত পরিবেশন করবেন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে।

ওদিকে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ভারতের ভিভিআইপিদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকারী সংস্থা স্পেশাল প্রটেকশন গ্রুপ বা এসপিজির সদস্যরা দফায় দফায় মহড়া দিচ্ছেন। ‘সমাবর্তন এলাকা’ ও ‘বাংলাদেশ ভবন’ কার্যত নিরাপত্তার মোড়কে বন্দি করে নিয়েছেন তারা।

এসপিজি ছাড়াও পশ্চিমবঙ্গ, বিহার ও ঝাড়খণ্ড রাজ্যের পুলিশও দুই প্রধানমন্ত্রীর সফরে নিরাপত্তায় নিয়োজিত রয়েছেন। এছাড়াও, বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব নিরাপত্তা রক্ষীরা তাঁদের সহায়তা করছেন।

‘বাংলাদেশ ভবন’-এর জাদুঘরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম ছাড়াও জাতীয় নেতাদের ছবি স্থান পেয়েছে।

এছাড়াও, শিলাইদহে যে নৌকায় ভ্রমণ করে অসংখ্য রচনা করেছিলেন বিশ্বকবি সেই নৌকার একটি রেপ্লিকাও রাখা হয়েছে জাদুঘরে।

জাদুঘরটিতে কমবেশি ছবির সংখ্যা হাজার ছাড়িয়ে গেলেও ‘বাংলাদেশ ভবন’-এর লাইব্রেরিতে এখন পর্যন্ত সাড়ে তিন হাজার বই স্থান পেয়েছে। তবে এই লাইব্রেরিতে কমপক্ষে ১০ হাজার বই রাখার ব্যবস্থা করা হবে বলে জানালেন মন্ত্রী আসাদ্দুজ্জামান নূর।

চার হাজার ১০০ বর্গ মিটারের এই ‘বাংলাদেশ ভবন’-এ রয়েছে দুটি সেমিনার হল, একটি লাইব্রেরি, একটি জাদুঘর, একটি স্টাডি সেন্টার, একটি ক্যাফেটারিয়া এবং ৪৫৩ আসন বিশিষ্ট একটি অত্যাধুনিক অডিটোরিয়াম।

বাংলাদেশ ভবনের পুরো দায়িত্ব বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষকে দেওয়া হলেও শেষ পর্যন্ত জাদুঘর এবং লাইব্রেরি নিজেদের তত্ত্বাবধানে রাখার কথা জানালেন আসাদুজ্জামান নূর।

Bangladesh Bhaban
বাংলাদেশ ভবনের লাইব্রেরি। ছবি: স্টার

গত তিনদিন ধরে নিজে থেকে শেষ মুহূর্তের সব কাজের তদারকি করছেন ওই মন্ত্রী। তিনি বললেন, “দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর হাত দিয়ে ‘বাংলাদেশ ভবন’-এর দ্বারোদঘাটন হবে এটা আমাদের সকালের কাছেই আনন্দ ও গর্বের। তাছাড়া এমন একটি প্রতিষ্ঠানে এই ধরণের একটি ভবন তৈরি করা হচ্ছে যাঁর সৃষ্ট গান দুই দেশের জাতীয় সংগীত।” এই ভবনের মধ্য দিয়ে দুই দেশের সম্পর্ক আরও মধুর হবে বলে মনে করেন ওই মন্ত্রী।

সরকারি সূচিতে জানা গেছে, ২৫ মে সকাল সাড়ে আটটা থেকে নয়টার মধ্যেই বিশ্বভারতীর সমাবর্তন অনুষ্ঠান শুরু হবে। অনুষ্ঠানে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও বক্তব্য দেবেন ভিসি সবুজকলি সেন।

এরপর, সাড়ে এগারোর মধ্যেই ওই অনুষ্ঠান শেষ করে দুই প্রধানমন্ত্রী চলে যাবেন বিশ্বভারতীর পুরনো বাজি পোড়ানোর মাঠে নির্মিত ‘বাংলাদেশ ভবন’-এ। ভবনের সামনে ফিতা কেটে দুই প্রধানমন্ত্রী ভবনের দ্বারোদঘাটন করার পর প্রথমে নিচের জাদুঘরে প্রবেশ করবেন দুই-ভিভিআইপি। এরপর সেখান থেকে একটু এগিয়ে সিঁড়ি বেয়েই উঠবেন দোতলায় ডান দিকে লাইব্রেরিতে।

জাদুঘর ও লাইব্রেরি পরিদর্শন করে ভবনের অডিটোরিয়ামে প্রবেশ করবেন দুই প্রধানমন্ত্রী। সেখানেই তাঁরা সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখবেন। এছাড়াও, বক্তব্য রাখবেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যার্নাজি।

সমাবর্তন অনুষ্ঠানের অংশ হিসেবেই বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শান্তিনিকেতনও ঘুরে দেখবেন, যাবেন রবীন্দ্রভবনে। সেখানে একান্তে কিছু সময় কাটাবেন বঙ্গবন্ধু-কন্যা।

শান্তিনিকেতন পরিদর্শনের সময়ই হাসিনাকে বিশ্বভারতীর পক্ষ থেকে রবীন্দ্র রচনাবলী উপহার দেওয়া হবে বলে জানা গিয়েছে। কিন্তু, উপহার সবসময় গোপন রাখায় বিশ্বাস করেন উপাচার্য সবুজকলি সেন।

তিনি বলেন, “আমরা গুরুদেবের বই দেবো এটাতো ঠিকই কিন্তু আরও যে উপহার দেবো সেটা বলা যাচ্ছে না। কারণ উপহার গোপনই রাখা হয়। শেখ হাসিনার মতোই একই উপহার দেওয়া হবে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকেও।”

Comments

The Daily Star  | English
Road crash deaths during Eid rush 21.1% lower than last year

Road Safety: Maladies every step of the way

The entire road transport sector has long been riddled with multifaceted problems, which are worsening every day amid apathy from the authorities responsible for ensuring road safety.

40m ago