কেমন হলো বিশ্বকাপের থিম সং ‘লিভ ইট আপ’ এর ভিডিও

উইল স্মিথ, নিকি জ্যাম ও ইরা ইসিত্রফাইর গাওয়া বিশ্বকাপের থিম সং ‘লিভ ইট আপ’ এর ভিডিও প্রকাশ হয়েছে। গত ২৪ মে গানটির অডিও সংস্করণ ইউটিউবে প্রকাশ হওয়ার পর তেমন সাড়া পড়েনি। তবে ৭ জুন গানের সঙ্গে ভিডিও যুক্ত হওয়ার পর তা আগের চেয়ে দর্শকদের বেশি মন কাড়ছে।

উইল স্মিথ, নিকি জ্যাম ও ইরা ইসিত্রফাইর গাওয়া বিশ্বকাপের থিম সং ‘লিভ ইট আপ’ এর ভিডিও প্রকাশ হয়েছে। গত ২৪ মে গানটির অডিও সংস্করণ ইউটিউবে প্রকাশ হওয়ার পর তেমন সাড়া পড়েনি। তবে ৭ জুন গানের সঙ্গে ভিডিও যুক্ত হওয়ার পর তা আগের চেয়ে দর্শকদের বেশি মন কাড়ছে।

গানটির সঙ্গীত আয়োজন করেছেন বর্তমান বিশ্বের অন্যতম সেরা ডিজে এবং গীতিকার ডিপলো।

১৯৬২ সালে চিলি বিশ্বকাপ দিয়ে অফিশিয়াল থিম সংয়ের প্রচলন করে ফিফা। স্প্যানিশ ভাষায় গাওয়া ‘এল রক দি মুন্দিয়াল’ গানটি সে বছর ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়। তখন থেকেই প্রতি বিশ্বকাপে একটি থিম সং প্রকাশ করে সংস্থাটি। শুধু তাই নয় অনেকে আবার অনানুষ্ঠানিকভাবেও বের করেন থিম সং। বিশেষ করে বেভারেজ কোম্পানি কোকাকোলাও থিম সং প্রকাশ করে বিশ্বকাপ উপলক্ষে।

১৯৯৮ সালে কোকাকোলার তৈরি করা থিম সং ‘লা কোপা দি লা ভিদা’ তুমুল জনপ্রিয়তা পায়। গানটি গেয়েছেন পপশিল্পী রিকি মার্টিন। সে ধারায় শাকিরারা গত তিন আসর ধরে থিম সং গেয়ে বিশ্ব মাতিয়ে রেখেছেন। ২০১৪ সালে ব্রাজিল বিশ্বকাপের থিম সং ‘ওলে ওলে’ গেয়েছিলেন পিটবুল ও জেনিফার লোপেজ। ২০১০ বিশ্বকাপে ‘ওয়াকা ওয়াকা’ গেয়েছিলেন কলম্বিয়ান তারকা শাকিরা। তার করা গানটি ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়। সেবার ক্যানানের গাওয়া ‘গিম মি ফ্রিডম’ নামে আরেকটি গান তুমুল দর্শকপ্রিয়তা পায়।

 

Comments

The Daily Star  | English

Bangladesh, Qatar ink 10 cooperation documents

Bangladesh and Qatar today signed 10 cooperation documents -- five agreements and five MoUs -- to strengthen ties on multiple fronts and help the relations reach a new height

59m ago