রোনালদোকে পেয়ে পর্তুগাল ধন্য: পেপে

দেশটির ফুটবল ইতিহাসের সবচেয়ে বড় তারকা তিনি। ইউসেবিও, ফিগোদের মতো কিংবদন্তিদের দেশে জন্মে নিজেকে নিয়ে গেছেন পূর্বসূরীদের চেয়েও উচ্চতর অবস্থানে। দেশটির ইতিহাসে প্রথমবারের মতো কোন মেজর টুর্নামেন্টের শিরোপা এসেছে তাঁর হাত ধরেই। পর্তুগালের ইতিহাসের সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতাও তিনি। পর্তুগাল ডিফেন্ডার পেপে তাই বলছেন, ‘রোনালদোকে পেয়ে ধন্য পর্তুগাল।’
ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো-পেপে

দেশটির ফুটবল ইতিহাসের সবচেয়ে বড় তারকা তিনি। ইউসেবিও, ফিগোদের মতো কিংবদন্তিদের দেশে জন্মে নিজেকে নিয়ে গেছেন পূর্বসূরীদের চেয়েও উচ্চতর অবস্থানে। দেশটির ইতিহাসে প্রথমবারের মতো কোন মেজর টুর্নামেন্টের শিরোপা এসেছে তাঁর হাত ধরেই। পর্তুগালের ইতিহাসের সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতাও তিনি। পর্তুগাল ডিফেন্ডার পেপে তাই বলছেন, ‘রোনালদোকে পেয়ে ধন্য পর্তুগাল।’

রিয়াল মাদ্রিদে দীর্ঘদিন একসাথে খেলেছেন দুজন। পর্তুগাল জাতীয় দলেও দীর্ঘদিনের সতীর্থ তাঁরা। রোনালদোকে নিয়ে এমন মন্তব্য করার জন্য পেপে তাই আদর্শ ব্যক্তিত্বই। স্পেনের বিপক্ষে ৮৮ মিনিটে দুর্দান্ত ফ্রি কিকে পর্তুগালকে এক পয়েন্ট এনে দেয়া রোনালদোর এমন পারফরম্যান্সে একটুও বিস্মিত নন বর্তমানে বেসিকতাসে খেলা পেপে, বরং এটিকে রোনালদোর জন্য স্বাভাবিক বলেই মনে করছেন তিনি, ‘আমার জন্য এটা নতুন কিছু নয়। আমাদের জন্য দারুণ একটা ম্যাচ ছিল। অমন দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের পরও ক্রিশ্চিয়ানো মাঠে খুবই নম্র ছিল, আমাদের সবাইকে খুব সাহায্যও করেছে।’

‘রোনালদো ও দলের বাকিদের পারফরম্যান্সে আমরা সবাই খুব খুশি। আমরা সবাই একটা লক্ষ্য সামনে রেখেই খেলি- আমাদের দেশ ও জার্সিকে সম্মানিত করা।’

স্পেনের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক দিয়ে দারুণ এক রেকর্ডের মালিকও হয়েছিলেন রোনালদো। ৮৪ গোল নিয়ে ইউরোপীয় ফুটবলারদের মধ্যে ফেরেঙ্ক পুসকাসের সাথে যৌথভাবে সবচেয়ে বেশি আন্তর্জাতিক গোলের মালিক এখন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। এমন একজন কিংবদন্তির সাথে একই দলে খেলতে পারাটাকে সম্মানজনক বলেই মানছেন পেপে, ‘আমাদের জন্য, গোটা পর্তুগালের জন্য দারুণ এক ব্যাপার যে রোনালদো আমাদের সাথে খেলে। ওকে পেয়ে আমরা ধন্য।’

 

Comments