আসামে বাঙালি খেদাও, প্রতিবাদে রেল অবরোধ পশ্চিমবঙ্গে

ভারতের আসামে নাগরিকত্ব সংশোধনের ফলে বাঙালি আবেদনকারীদের অনেকের নাম বাদ পড়ার ঘটনায় প্রতিবেশী পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যজুড়ে রেল অবরোধের কর্মসূচি পালন করল দেশভাগের সময় পূর্ববঙ্গ তথা আজকের বাংলাদেশ থেকে আসা হাজার হাজার মানুষ।
Rail blockade in West Bengal
১ আগস্ট ২০১৮, ভারতের আসামে নাগরিকত্ব সংশোধনের ফলে বাঙালি আবেদনকারীদের অনেকের নাম বাদ পড়ার ঘটনায় প্রতিবেশী পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যজুড়ে রেল অবরোধের কর্মসূচি পালন করল মতুয়া মহাসংঘ। ছবি: স্টার

ভারতের আসামে নাগরিকত্ব সংশোধনের ফলে বাঙালি আবেদনকারীদের অনেকের নাম বাদ পড়ার ঘটনায় প্রতিবেশী পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যজুড়ে রেল অবরোধের কর্মসূচি পালন করল দেশভাগের সময় পূর্ববঙ্গ তথা আজকের বাংলাদেশ থেকে আসা হাজার হাজার মানুষ।

মতুয়া মহাসংঘ নামের এই সংগঠনের সঙ্গে রয়েছেন প্রায় ১০ লাখ মানুষ। কলকাতার পার্শ্ববর্তী উত্তর চব্বিশ পরগনা, দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা এবং নদীয়া জেলায় এই সংগঠনের মানুষের বসবাস বেশি।

একদিকে আজ (১ আগস্ট) মাসের প্রথম দিন, অফিস টাইমে কলকাতা লাগোয়া উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলা, নদীয়া জেলা এবং দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার জেলার বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী রেল অবরোধ শুরু করেন। কোন পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই সারা ভারত মতুয়া মহাসংঘের ব্যানারে এমন আন্দোলনে নাকাল হন লাখ লাখ মানুষ।

আন্দোলনকারীদের হাতে ভারতের কেন্দ্রের শাসক দল বিজেপিবিরোধী নানা স্লোগান সম্বলিত পোস্টার, ব্যানার দেখা যায়। একই সঙ্গে আসামের বাঙালিদের অবিলম্বে নাগরিকত্ব নিশ্চিত করারও দাবি ছিল ওই ব্যানার-ফেস্টুনে।

তবে অধিকাংশ জায়গাতেই আন্দোলনে পশ্চিমবঙ্গের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের স্থানীয় নেতাদের নেতৃত্ব দিতে দেখা গিয়েছে। এর মধ্যে উত্তর চব্বিশ পরগনার বারাসাত, নিউ ব্যারাকপুরের অবরোধের পুরো নেতৃত্ব দিয়েছেন স্থানীয় শীর্ষ তৃণমূল নেতারাই।

যদিও তৃণমূলে দলগতভাবে সব ধরনের অবরোধবিরোধী, তবুও কৌশলগতভাবে তারা মতুয়া মহাসংঘের ব্যানারে এই অবরোধ করেছেন বলে অনেকেই মনে করছে। যদিও এই অভিযোগ মানছেন না তৃণমূল নেতৃত্ব।

সকাল ৯ টা থেকে ১০ টা পর্যন্ত এক ঘণ্টা এই অবরোধ হওয়ার কথা থাকলেও কোথাও কোথাও দুপুর ১২টার পর পর্যন্তও অবরোধ চলতে দেখা গিয়েছে। আর এতে চরম দুর্ভোগে পড়েন অফিস যাওয়া নিত্যযাত্রীরা।

Comments