ভুল বুঝতে পেরে দিবালার দুঃখ প্রকাশ

বল ধরতে গিয়ে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর হাঁটুর সঙ্গে আঘাত লাগে কিয়েভের গোলরক্ষক স্তেফানো সোরেন্তিনোর। সঙ্গে সঙ্গেই মাটিতে লুটিয়ে পড়েন তিনি। এক পর্যায়ে জ্ঞানও হারান। পরে মাঠ তো ছাড়তে হয়েছেই। সেখান থেকে এ্যাম্বুলেন্সে করে সরাসরি নেওয়া হয় হাসপাতালে। আর অন্য দিকে তখন গোল লাইন প্রযুক্তিতে গোল পেয়ে উল্লাস করছিলেন জুভেন্টাস তারকা পাওলো দিবালা ও অধিনায়ক জর্জিও কিয়েলিনি।

বল ধরতে গিয়ে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর হাঁটুর সঙ্গে আঘাত লাগে কিয়েভের গোলরক্ষক স্তেফানো সোরেন্তিনোর। সঙ্গে সঙ্গেই মাটিতে লুটিয়ে পড়েন তিনি। এক পর্যায়ে জ্ঞানও হারান। পরে মাঠ তো ছাড়তে হয়েছেই। সেখান থেকে এ্যাম্বুলেন্সে করে সরাসরি নেওয়া হয় হাসপাতালে। আর অন্য দিকে তখন গোল লাইন প্রযুক্তিতে গোল পেয়ে উল্লাস করছিলেন জুভেন্টাস তারকা পাওলো দিবালা ও অধিনায়ক জর্জিও কিয়েলিনি।

যদিও ভিএআর প্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে পরবর্তীতে ফাউলের কারণে সে গোল বাতিল করা হয়। কিন্তু দিবালার উল্লাসটা পছন্দ হয়নি কিয়েভের সমর্থকদের। এমনকি নিজ দলের সমর্থকরাও ভালভাবে মানতে পারেননি। ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে এ নিয়ে তোপের মুখেও পড়েন দিবালা। তবে নিজের ভুল বুঝতে পেরে ক্ষমা চেয়েছেন এ আর্জেন্টাইন, ‘আমি ভুল ছিলাম।’

বিতর্কিত সেই গোল টিকে না থাকলেও দিবালা ও কিয়েলিনির সমালোচনা থেমে থাকেনি। সামাজিক মাধ্যমে এক হাতই নিয়েছেন সমর্থকেরা। তবে অনুশোচনা প্রকাশ করে দিবালা আরও বলেছেন, ‘আপনারা ঠিক! আমি আসলে বুঝতে পারিনি ওই মুহূর্তে ওই ঘটনা ঘটেছে। আমি ভুল করেছি।’

সে ঘটনার পর মাঠেই কিছুক্ষণ পর ভুল বুঝতে পেরেছিলেন বলে জানান দিবালা। দুঃখ প্রকাশ করার জন্য আর গোলরক্ষককে পাননি। কারণ ততক্ষণে তাকে নেওয়া হয়েছে হাসপাতালে।

ঘটনাটি ঘটে ম্যাচের ৮৫ মিনিটে। আলেক্স সান্দ্রোর শট ফেরাতে গিয়ে আহত হন গোলরক্ষক সোরেন্তিনো। ওইদিকে ফিরতি বল দারুণ এক হেডে লক্ষ্যভেদ করেন মারিও মানজুকিচ। তবে তা জালে প্রবেশের আগেই ফিরিয়ে দেন কিয়েভ ডিফেন্ডার। জুভেন্টাস খেলোয়াড়রা গোলের দাবি করে গোললাইন প্রযুক্তি দেখার আবেদন জানান। কিন্তু ওই দিকে আহত গোলরক্ষককে নিয়ে ব্যস্ত কিয়েভ। পরে গোললাইন প্রযুক্তিতে দেখা যায় বল লাইন পার করেছিল। আর তখনই উল্লাস শুরু করেন দেন দিবালা ও কিয়েলিনি।

Comments