সফর শেষ, গানের শুরু!

দীর্ঘ ১৮ মাস মাজারে ব্যক্তিগত সফরে ছিলেন জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী, সুরকার ও সংগীতপরিচালক আরফিন রুমি। ভক্ত-শ্রোতারা অপেক্ষায় রয়েছেন তার নতুন গানের। তাদের সেই অপেক্ষার সমাপ্তি ঘটলো অবশেষে। এখন নতুন নতুন গানে পাবেন তাদের প্রিয় কন্ঠশিল্পীকে।
Arfin Rumi
সংগীতশিল্পী আরফিন রুমি। ছবি: স্টার

দীর্ঘ ১৮ মাস মাজারে ব্যক্তিগত সফরে ছিলেন জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী, সুরকার ও সংগীতপরিচালক আরফিন রুমি। ভক্ত-শ্রোতারা অপেক্ষায় রয়েছেন তার নতুন গানের। তাদের সেই অপেক্ষার সমাপ্তি ঘটলো অবশেষে। এখন নতুন নতুন গানে পাবেন তাদের প্রিয় কন্ঠশিল্পীকে। নতুন সিনেমার গান, ১৮ মাসের সফর আর গানে ফেরার গল্প নিয়ে কথা হয় দ্য ডেইলি স্টার অনলাইনের সঙ্গে।

স্টার অনলাইন: নতুন গানে ফিরছেন কবে থেকে?

আরফিন রুমি: আমার মনে হয়, প্রত্যেকের নিজস্ব একটা আসন আছে বা জায়গা আছে। অথবা যে যার জায়গায় আসন করে নেন। পেশাগত কোনো কাজ হলে আমি তা করতে রাজি আছি। আমার সঙ্গে কারো লেনদেনা, দেন-দরবার বা ঝামেলা নেই। আমি আগে যে রকম কাজ করতাম এখনো করবো।

গত ১৯ আগস্ট থেকেই নতুন গানে ফিরেছি। খুব জলদি ‘নন্দিনী’ নামের নতুন একটা সিনেমার গানে পাবেন আমার প্রাণপ্রিয় শ্রোতা-দর্শকরা, যারা এতোদিন অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় ছিলেন আমার নতুন গানের জন্য।

স্টার অনলাইন: প্রায় ১৮ মাস গান থেকে থেকে দূরে ছিলেন। নাম-যশ-জনপ্রিয়তা সবকিছু থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলেন। কোন খারাপ লাগা ছিলো কী?

আরফিন রুমি: না, আমার খারাপ লাগেনি। তার কারণ: নাম-যশ-জনপ্রিয়তা, মিডিয়া, গান আমার মাথায় ছিলো না। তখন একটা সফরে ছিলাম। আত্মশুদ্ধি বলেন বা মানসিক উন্নয়ন বলেন- তা করার চেষ্টা করেছি। আমার মাথায় অনেক সুর এসেছে, কথা এসেছে। তবে এবাদতের যে টান, সে কারণে তা আবার পারতাম না। তখন মনে হতো এখন যেহেতু একটা সাধনায় নিয়োজিত আছি, তাই আগে সেই কাজটা করে নিই। যা হোক, মনের দিক থেকে আমি খুব শান্তিতে ছিলাম।

স্টার অনলাইন: এই সফরে কী কী শিখলেন-জানলেন?

আরফিন রুমি: নিজেই নিজের শাসক হওয়ার বিষয়টি জানলাম। আদব কী, বাস্তবতা কী- এমন অনেক কিছুই জেনেছি। সেই সময়গুলো আমার জীবনের সেরা সময় হয়েই থাকবে।

স্টার অনলাইন: এর ফলে আপনার জনপ্রিয়তা কি কিছুটা কমেছে বলে মনে করেন?

আরফিন রুমি: যদি কেউ কোথাও নিয়মিত না থাকেন তাহলে তো মানুষ তাকে একটু ভুলে যাবেই। কিন্তু, আমার গানকে ভুলে গেছেন এমন কাউকে পাইনি।

স্টার অনলাইন: ভক্তরা আপনার গান ভীষণ পছন্দ করেন। এতোদিন দূরে থেকেও তা কীভাবে উপভোগ করেছেন?

আরফিন রুমি: ছোটবেলায় জেমস ভাইয়ের গান শুনতাম, তখন অনুভূতি এক রকম ছিল। এখন তাঁর নতুন কোনো গান প্রকাশিত হচ্ছে না। পুরনো গানগুলো এখনো ভালো লাগে। সেই গানগুলো এখনো শুনি। আমার ধারণা, আমার গান যারা শুনেছেন তাদেরও এমন হয়েছে।

স্টার অনলাইন: মাঝে শোনা গিয়েছিল আপনি শুধু ইসলামী গানই করবেন। অন্য কোনো গান না। কথাটা কি সত্য?

আরফিন রুমি: এটা হওয়ার কারণ আমি নিজেই। কারণ, আমার কাছে তখন মনে হতো আমি শুধু এ ধরনের গানই করব। গত ১৮ মাসে আমার অনেক কিছুই মনে হত। ওই সফরের মাঝখানে আমি সিদ্বান্ত নিতে পারছিলাম না। এখন সেই সফর শেষ। সেখানে অনেক কিছু শিখলাম। এখন থেকে সব ধরনের গানে পাওয়া যাবে আমাকে।

Comments