পাঁচ উইকেট নেওয়ার পর ব্যাট হাতেও সৌম্যের ঝলক

দারুণ বল করে দলকে লিড পাইয়ে দেওয়ার কাছে নিয়ে গিয়েছিলেন। পরে ব্যাট হাতে দায়িত্বশীল ফিফটি করে দলকে রাখলেন লড়াইয়ে। সন্ধ্যায় সৌম্য সরকার শুনেছেন বিসিবি একাদশকে নেতৃত্ব দেওয়ার খবর। সৌম্যের অলরাউন্ড নৈপুণ্যে রংপুরের বিপক্ষে শক্ত অবস্থা খুলনা।
Soumya Sarker

দারুণ বল করে দলকে লিড পাইয়ে দেওয়ার কাছে নিয়ে গিয়েছিলেন। পরে ব্যাট হাতে দায়িত্বশীল ফিফটি করে দলকে রাখলেন লড়াইয়ে। সন্ধ্যায় সৌম্য সরকার শুনেছেন বিসিবি একাদশকে নেতৃত্ব দেওয়ার খবর। সৌম্যের অলরাউন্ড নৈপুণ্যে রংপুরের বিপক্ষে শক্ত অবস্থা খুলনা।

খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে আগের দিনের ২০০ রান নিয়ে খেলতে নামা রংপুরের ইনিংসে আঘাত হানেন সৌম্য। এক পর্যায়ে ২৩৮ রানে ৭ উইকেট খুইয়ে ফেলেছিল রংপুর। লিড পাওয়া তখন তাদের জন্য অনেক দূরের পথ।

সেখান থেকে অলরাউন্ডার তানবীর হায়দার ৬৭ রানের ইনিংস খেলে এনে দেন লিড। খুলনার ৩০৪ রানের জবাবে রংপুরের ইনিংস থামে ৩১৫ রানে। সৌম্য ৬১ রানে নেন ৫ উইকেট।

দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুতেই উইকেট হারায় খুলনা। দুই ওপেনার রবিউল ইসলাম ২০ ও এনামুল হক বিজয় ৭ রান করে ফিরে যান। ৪৮ রানে তিন উইকেট হারানোর পর হাল ধরেন সৌম্য ও তুষার ইমরান। তাদের ১০৬ রানের জুটিতে ম্যাচে ফেরে স্বাগতিকরা। ৭১ রান করে সৌম্যের আউটের পর আবার বিপর্যয়। মিডল অর্ডারে রান পাননি নুরুল হাসান সোহান ও আফিফ হোসেন। তবু খুলনাকে ভরসা দিচ্ছে ৬৩ রানে অপরাজিত থাকা তুষারের ব্যাট।

তৃতীয় দিন শেষে হাতে ৫ উইকেট নিয়ে ১৭০ রানে এগিয়ে আছে খুলনা বিভাগ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

খুলনা ১ম ইনিংস: ৩০৪

রংপুর ১ম ইনিংস: (দ্বিতীয় দিন শেষে ২০০/৪) ১১৪ ওভারে ৩১৫ (জাভেদ ৬৪, মারুফ ৩০, মাহমুদুল ১৫, শুভ ৪৮, নাঈম ৩০, তানবীর ৬৭*, ধীমান ৬, রবিউল ১২, সাজেদুল ২৯, সাদ্দাম ১, সঞ্জিত ০; আল আমিন ৪/৬৭, জিয়া ০/২৪, সৌম্য ৫/৬১, রাজ্জাক ০/৫০, মেহেদি ০/২৯, বিশ্বনাথ ১/৫১, আফিফ ০/২২)

খুলনা ২য় ইনিংস:  ৪৮.৪ ওভারে ১৮১/৫ (রবি ২০, এনামুল ৭, সৌম্য ৭১, তুষার ৬৩*, আফিফ ৩, সোহান ৩; সাজেদুল ১/২২, রবিউল ১/২৯, সাদ্দাম ০/১১, সঞ্জিত ১/৫১, শুভ ০/৩৭, মাহমুদুল ২/১৮)

Comments