প্রধানমন্ত্রী চেয়েছেন তামিম বিশ্বকাপে খেলুক, বললেন মাশরাফি

অভিমান করে অবসর নিয়ে তামিম যখন সবার আড়ালে চলে যান, তখন প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তার সঙ্গে যোগাযোগ করার কাজটি করেন মাশরাফি।

হুট করেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে না বলে দিয়েছিলেন তামিম ইকবাল। তার এমন অবসরে হতবাক হয়ে পড়ে সবাই। ৩৪ বছর বয়সে এমন বিদায়ে সাড়া পড়ে যায় দেশজুড়ে। তামিমের সিদ্ধান্ত মেনে পারেননি খোদ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও। তামিমকে ফের মাঠে ও বিশ্বকাপে দেখতে চেয়েছেন তিনি। তার নির্দেশেই ফেরার ঘোষণা দিয়েছেন বাঁহাতি তারকা ব্যাটার।

নানা নাটকীয়তার মাঝে তামিমের অবসরের সিদ্ধান্ত বদলানোয় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। ঘোষণা দেওয়ার পর থেকে অভিমান করে ধরাছোঁয়ার বাইরেই ছিলেন তামিম। মুঠোফোনে বিসিবি প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন হতে শুরু করে অন্যান্য কোনো কর্মকর্তা যখন তাকে খুঁজে পাচ্ছিলেন না, তখন তামিমের সঙ্গে যোগাযোগ করেন মাশরাফি।

শুক্রবার দুপুরের পরপরই প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে গণভবনে আসেন তামিম। সঙ্গে ছিলেন স্ত্রী আয়েশা ইকবাল ও সাবেক সতীর্থ ও সংসদ সদস্য মাশরাফি। প্রাথমিক আলোচনার পর বিসিবি প্রেসিডেন্ট পাপনকেও ডেকে পাঠান প্রধানমন্ত্রী। সেখানে প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী আলোচনার পর মান ভাঙে তামিমের। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ গণমাধ্যমে অবসরের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন তিনি। সেসময় কথা বলেন বিসিবি প্রেসিডেন্টও।

দ্য ডেইলি স্টারকে মাশরাফি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই তামিমকে গণভবনে নিয়ে গিয়েছিলেন, 'দেখুন, ওইখানে কী হয়েছে, তা তামিম ও পাপন ভাই দুইজনই তাদের স্টেটমেন্টে বলেছে। এখানে আমার আলাদা করে বলার কিছু নাই। বলা ঠিকও হবে না। আমার দায়িত্ব ছিল তামিমের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর যোগাযোগ করিয়ে দেওয়া। প্রধানমন্ত্রী আমাকে এই দায়িত্ব দিয়েছিলেন। আমি আমার দায়িত্ব পালন করেছি।'

ক্রিকেটে ফিরলেও আগামী দেড় মাস বিশ্রামে থাকবেন তামিম। ফলে আফগানিস্তানের বিপক্ষে চলমান সিরিজে আর খেলা হচ্ছে না তার। এরপর সূচি অনুযায়ী বাংলাদেশের পরবর্তী মিশন এশিয়া কাপ। সেই টুর্নামেন্ট দিয়েই ফিরতে পারেন তামিম। প্রশ্ন হচ্ছে, তামিম কি অধিনায়ক হিসেবেই ফিরছেন? জবাবে পাপন দিয়েছেন স্পষ্ট ইঙ্গিত, তারা তামিমকে অধিনায়ক হিসেবে চান।

এই প্রসঙ্গে প্রশ্ন রাখা হলে তা বিসিবি প্রেসিডেন্ট ও তামিমের ব্যপার বলে এড়িয়ে গেছেন মাশরাফি, 'এই ব্যাপারটা আমি ঠিক জানি না। এটা উনাদের (পাপন ও তামিম) ব্যাপার, উনারাই আলোচনা করেছেন। মূল ব্যাপার হলো, প্রধানমন্ত্রী চেয়েছেন যে তামিম খেলুক, বিশ্বকাপে খেলুক। এটাই ফাইনাল। এটাই হয়েছে।'

আফগানিস্তানের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচের হারের পরদিন বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলন ডেকে অবসরের ঘোষণা দেন তামিম। গুঞ্জন রয়েছে, তার আচমকা অবসরের পেছনে দীর্ঘদিনের ক্ষোভের সঙ্গে রয়েছে একটি সংবাদমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিসিবি প্রেসিডেন্টের মন্তব্য। যেখানে তামিমের নিবেদন ও পেশাদারিত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন পাপন।

তবে সাম্প্রতিক সময়টা ভালোও যাচ্ছে না তামিমের। মাঝে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে একটি ফিফটি বাদ দিলে অনেক দিন থেকেই ব্যাটে রান নেই তার। তার সঙ্গে চোট এখন নিত্যসঙ্গী। ঘরের মাঠে গত ডিসেম্বরে ভারতের বিপক্ষে পুরো সিরিজেই খেলতে পারেননি। আফগানদের বিপক্ষেও খেলেননি টেস্ট ম্যাচ। সেখানে এমন একটি ঘটনার পর চাপে থাকাই স্বাভাবিক তামিমের জন্য।

অবসর থেকে ফিরে আসার পর তামিম চাপে থাকবেন কি-না জানতে চাইলে মাশরাফি জানান, তার বিশ্বাস সব চাপ উতরে তামিম আগের মতোই জ্বলে উঠবেন, 'দেখুন, এটা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট। আপনি এখানে যখন খেলতে এসেছেন, তখন এ ধরনের সব চাপ উতরানোর ক্ষমতা রেখেই খেলতে হবে। আমার বিশ্বাস, তামিমের এটা রয়েছে। ও ভালো খেলবে। বাংলাদেশ ভালো খেলবে। এটাই প্রত্যাশা।'

Comments

The Daily Star  | English