মিরপুরই তো দেখেনি কখনো এমন টেস্ট!

পরিসংখ্যানের আলোকে যে এবারের মিরপুর হার মানানোর প্রতিযোগিতায় রয়েছে আগের সব মিরপুরকে।
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

মিরপুরের উইকেটে রান করতে ব্যাটারদের নাভিশ্বাস উঠে যাচ্ছে, এটা নতুন কোনো চিত্র নয়। তবুও বাংলাদেশ ও নিউজিল্যান্ডের দ্বিতীয় টেস্টে যে মিরপুর দেখা গেল, তা দেখা যায়নি এর আগে! পরিসংখ্যানের আলোকে যে এবারের মিরপুর হার মানানোর প্রতিযোগিতায় রয়েছে আগের সব মিরপুরকে।

বৃষ্টির কারণে টেস্টটা চতুর্থ দিনে গড়িয়েছে। কিন্তু আদতে খেলা শেষ হয়ে গেছে দুই দিনেই। সব মিলিয়ে খেলা তো হয়েছে দুই দিনের বরাদ্দ ১৮০ ওভারের চেয়েও কম। শনিবার বাংলাদেশ ও নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টের নিষ্পত্তি ঘটে গেছে ১৭৮.১ ওভারেই। তিন দিনে মিরপুরে এর আগেও দেখা গেছে ফল বেরিয়ে আসতে। কিন্তু তাই বলে দুই দিনেই!

এর আগে মিরপুরে হওয়া টেস্টে ড্রয়ের বাইরে ফল এসেছে যেসব ম্যাচে, তাতে একটিতেও হার-জিতের ফয়সালা হয়নি দুইশ ওভারের কমে। সবচেয়ে কম ওভারে ফল আসার আগের রেকর্ড ছিল শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২০১৮ সালে। সেখানে খেলা হয়েছিল মোট ২১৪.৩ ওভার। এছাড়া, পাকিস্তানের বিপক্ষে ২০২১ সালে অনুষ্ঠিত টেস্টেও ফল পেতে খেলা হয়েছিল ২১৫.১ ওভার।

বাংলাদেশের মাঠে ওভারের হিসাবে সবচেয়ে দ্রুত ফল পাওয়া ম্যাচ খুঁজতে গেলে, মিরপুরের কথাই তো যে কেউ বলবেন। চতুর্থ ও পঞ্চম স্থানে চট্টগ্রামের দুটি টেস্ট জায়গা পেলেও প্রথম তিনটি স্থানই আছে মিরপুরের দখলে।

ব্যাটাররা রান করবেন কীভাবে! বল খুঁজতে গিয়ে চোখে অন্ধকারই যেন দেখেন মিরপুরে। এই টেস্টে দুই দলের ব্যাটারদের গড় ছিল মাত্র ১৬.৬১। বাংলাদেশের মাটিতে সবচেয়ে কম গড়ে ব্যাটাররা রান করেছেন যেসব টেস্টে, সেই তালিকায় এটি দ্বিতীয়। প্রথম অবস্থান থেকে যদিও বেশি দূর পিছিয়ে নয়। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের ২০১৮ সালের মিরপুরের ওই টেস্টে ব্যাটারদের গড় ছিল ১৬.৫২।

এবার আরেকটি মিরপুর টেস্টে ব্যাটাররা কাটান দুর্বিষহ সময়। ব্যাটারদের জীবন কঠিন করে তোলার জন্য যা যা প্রয়োজন ছিল, সবই ছিল এই পিচে। বোলিংয়ে অধারাবাহিক বড় টার্নের সঙ্গে বাউন্সের অসমতা মিলিয়ে মিরপুর হয়ে উঠেছিল ব্যাটিংয়ের জন্য যন্ত্রণাময়।

পুরো টেস্টে মাত্র দুই ব্যাটারের কাছ থেকে তাই দেখা গেছে পঞ্চাশোর্ধ্ব রানের ইনিংস। গ্লেন ফিলিপস ৮৭ রানের ইনিংস খেলেছিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রথম ইনিংসে। এরপর বাংলাদেশের দ্বিতীয় ইনিংসে জাকির হাসানের ব্যাট থেকে এসেছিল ৫৯ রান। কোনো টেস্টে দুটির কম পঞ্চাশোর্ধ্ব রানের ইনিংস বাংলাদেশের মাটিতে দেখা যায়নি এখন পর্যন্ত একবারও। লঙ্কানদের বিপক্ষে ২০১৮ সালের ওই ম্যাচের সঙ্গে যৌথভাবে সবচেয়ে কম পঞ্চাশোর্ধ্ব রানের ইনিংস দেখা গেল এবার।

এক ফিলিপস বাদে ম্যাচের দুই ইনিংসেই বিশের বেশি রান করতে পারেননি কেউই! ম্যাচসেরা এই অলরাউন্ডার দ্বিতীয় ইনিংসে অপরাজিত থাকেন ৪০ রানে। এক ইনিংসে হাত ঘুরিয়ে তিনি নেন ৩ উইকেটও।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের এই টেস্টের পিচে ব্যাটিংয়ের কষ্টটা বোঝাতে বলা যায় এভাবে— এতটাই কঠিন ছিল যে অতীতের সব যন্ত্রণাদায়ক পরিস্থিতি ছাড়িয়ে গেছে এবার। জেতার পরও তাই নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক ও অভিজ্ঞ পেসার টিম সাউদি সংবাদ সম্মেলনে বলে যান, তার গোটা ক্যারিয়ারে খেলা সবচেয়ে বাজে উইকেট ছিল এই মিরপুর।

Comments