৩-৪ বছরের ব্যবধানে ফের এমন কিছুর প্রত্যাশা আর্জেন্টিনা কোচের

আর্জেন্টিনার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের জমকালো আয়োজনের মাঝে আলবিসেলেস্তেদের কোচ লিওনেল স্কালোনি কৃতজ্ঞতা জানালেন শিষ্যদের প্রতি। পরবর্তী বিশ্বকাপের পর একইভাবে উদযাপন করার প্রত্যাশাও রাখলেন তিনি।
ছবি: এএফপি

বিশ্বকাপজয়ী আর্জেন্টিনা দল ঘরের মাঠে প্রথমবার খেলতে নামায় তৈরি হলো উৎসবমুখর পরিস্থিতি। ৩৬ বছরের দীর্ঘ অপেক্ষার ইতি টানা ফুটবলারদের বরণ করে নেওয়া হলো মহাসমারোহে। দেশটির ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের জমকালো আয়োজনের মাঝে আলবিসেলেস্তেদের কোচ লিওনেল স্কালোনি কৃতজ্ঞতা জানালেন শিষ্যদের প্রতি। পরবর্তী বিশ্বকাপের পর একইভাবে উদযাপন করার প্রত্যাশাও রাখলেন তিনি।

গত বছরের ডিসেম্বরে কাতারের মাটিতে অনুষ্ঠিত ফুটবলের সর্বোচ্চ আসরে চ্যাম্পিয়ন হয় আর্জেন্টিনা। মরুর বুকে রোমাঞ্চকর ফাইনালে টাইব্রেকারে আগেরবারের শিরোপাজয়ী ফ্রান্সকে হারায় তারা। এতে ১৯৮৬ সালের পর প্রথম ও সব মিলিয়ে তৃতীয়বার বিশ্বকাপ জয়ের উল্লাস করে দক্ষিণ আমেরিকার দলটি। সেই অর্জনের তিন মাসের ব্যবধানে গতকাল শুক্রবার নিজেদের মাটিতে খেলতে নামে আর্জেন্টিনা। জাতীয় বীরদের প্রথমবার দেখতে বুয়েনস এইরেসের লা মনুমেন্তালে হাজির হয়েছিলেন ৮৩ হাজারের বেশি দর্শক।

অধিনায়ক লিওনেল মেসি ও থিয়াগো আলমাদার লক্ষ্যভেদে প্রীতি ম্যাচে পানামাকে ২-০ গোলে হারায় আর্জেন্টিনা। শেষ বাঁশি বাজার পর অশ্রুসজল চোখে স্কালোনি প্রশংসায় মাতেন তার প্রিয় শিষ্যদের, 'এই খেলোয়াড়দের প্রতি চির কৃতজ্ঞতা। ফুটবল তাদেরই এবং তারা না থাকলে আমরা বিশ্বকাপ জিততে পারতাম না।'

ছবি: এএফপি

৯৫ দিন আগে লুসাইল স্টেডিয়ামে শিরোপা উঁচিয়ে ধরে মাঠ প্রদক্ষিণ করেছিল আর্জেন্টিনা। সেই স্মৃতি টেনে লা মনুমেন্তালেও একইভাবে উদযাপনের আগে তাদের কোচ বলেন, 'যারা এই জার্সি পরে, তাদের প্রত্যেকেই নিজেদের সব কিছু নিংড়ে দেয় এবং তারপরও কখনও কখনও কাঙ্ক্ষিত ফল আসে না। কিন্তু এবার আমরা পেয়েছি এবং এটা অবিশ্বাস্য।'

আগামী ২০২৬ সালে বিশ্বকাপ ধরে রাখার অভিযানে যুক্তরাষ্ট্র, মেক্সিকো ও কানাডার মাটিতে নামবে আর্জেন্টিনা। ওই আসরের পরও এভাবে খেলোয়াড়দের নিয়ে উৎসব করার আশায় আছেন স্কালোনি। অর্থাৎ তিনি আরেকবার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন, 'নিজেদের মাঠে তাদেরকে উদযাপন করার সুযোগ দিতে পারা একটা অনন্য ব্যাপার। আমি জানি না এরকম কিছু আবার কবে ঘটবে। তবে আশা করি, আগামী ৩-৪ বছরেই হবে।'

Comments

The Daily Star  | English

Desire for mobile data trumps all else

As one strolls along Green Road or ventures into the depths of Karwan Bazar, he or she may come across a raucous circle formed by labourers, rickshaw-pullers, and street vendors.

15h ago