রেকর্ড দামে কাইসেদোকে চায় লিভারপুল, হাল ছাড়ছে না চেলসিও

মিডফিল্ডার মোইজেস কাইসেদোকে রেকর্ড দামে কেনার জন্য ব্রাইটনের সঙ্গে সমঝোতাতেও পৌঁছায় রেডরা। কিন্তু তারপরও হতাশ হতে পারে দলটিকে।

ট্রান্সফার উইন্ডোর শুরু থেকেই ব্রাইটন মিডফিল্ডার মোইজেস কাইসেদোকে পেতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে চেলসি। তবে আগের দিন হঠাৎ করেই আলোচনায় আসে লিভারপুল। রেকর্ড দামে তাকে কেনার জন্য ব্রাইটনের সঙ্গে সমঝোতাতেও পৌঁছায় রেডরা। কিন্তু তারপরও হতাশ হতে পারে দলটিকে। কারণ হাল ছাড়ছে না চেলসিও। নতুন প্রস্তাব দিতে যাচ্ছে তারা।

বৃটিশ সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, ব্রিটিশ রেকর্ড ভেঙে ১১১ মিলিয়ন পাউন্ডে কাইসেদোকে দলে ভেড়ানোর ব্যাপারে ব্রাইটনের সঙ্গে ঐকমত্যে পৌঁছেছে লিভারপুল। আজ শুক্রবার খেলোয়াড়ের শারীরিক পরীক্ষা হওয়ার কথা। এরপর আসবে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা। কিন্তু নাটকীয়তার শেষ এখানেই হচ্ছে না।

কিন্তু ব্রাইটনের চাহিদা পূরণ করার পর চেলসি ফের আলোচনায় এসেছে মূলত কাইসেদোর কারণে। কারণ বেঁকে বসছেন ইকুয়েডরের এই মিডফিল্ডার। লিভারপুলের সঙ্গে কাইসেদোর ব্যক্তিগত দর কষাকষি চলছে বলে জানিয়েছে স্কাই স্পোর্টস। তার ইচ্ছা চেলসিতে যাওয়ার। তাই নতুন করে প্রস্তাবে সুযোগ পাচ্ছে ব্লুজরা। এর আগে তাদের সবশেষ প্রস্তাব ছিল ১০০ মিলিয়ন পাউন্ডের।

এদিকে দলবদলের বাজারের বিশ্বস্ত সাংবাদিক ফ্যাব্রিজিও রোমানোও জানিয়েছেন, কেবল চেলসিতে যাওয়ার কথাই ভাবছেন কাইসেদো। লিভারপুলকেও জানিয়ে দিয়েছেন তিনি যেতে চান স্টামফোর্ড ব্রিজে। এরমধ্যেই ইনস্টাগ্রামে চেলসিকে অনুসরণ করাও শুরু করেছেন এই মিডফিল্ডার।

তবে একটা ব্যাপার নিশ্চিত চেলসি বা লিভারপুল যে ক্লাবেই যান না কেন কাইসেদো তাতে ট্রান্সফার ফির নতুন বৃটিশ রেকর্ড হতে যাচ্ছে। চুক্তি আলোর মুখ দেখলে এঞ্জো ফার্নান্দেজকে ১০৭ মিলিয়ন পাউন্ডের রেকর্ডকে পেছনে ফেলবেন কাইসেদো।

২০২১ সালের শীতকালীন ট্রান্সফার উইন্ডোতে ব্রাইটনে যোগ দেন কাইসেদো। সবশেষ ২০২২-২৩ মৌসুমে ক্লাবটির হয়ে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে খেলেছেন ৪৩ ম্যাচ। দলটির প্রথমবারের মতো ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় জায়গা করে নেওয়ায় রাখেন বিশেষ ভূমিকা।

Comments

The Daily Star  | English

Create right conditions for Rohingya repatriation: G7

Foreign ministers from the Group of Seven (G7) countries have stressed the need to create conditions for the voluntary, safe, dignified, and sustainable return of all Rohingya refugees and displaced persons to Myanmar

3h ago