আমি নতুন ইতিহাস লিখতে চাই: নেইমার

সৌদি প্রো লিগে নতুন চ্যালেঞ্জ নিতে যোগ দিয়েছেন এই ব্রাজিলিয়ান।

সব গুঞ্জনের অবসান ঘটিয়ে শেষ পর্যন্ত সৌদি প্রো লিগেই যোগ দিলেন নেইমার। ইউরোপ মিশন শেষ হলো আপাতত। তবে ইউরোপিয়ান ফুটবলে সম্ভাব্য সব কিছুই অর্জন করেছেন এই ব্রাজিলিয়ান। এবার আল-হিলালে নতুন চ্যালেঞ্জ নিতে চান এই তারকা। একই সঙ্গে লিখতে চান নতুন ইতিহাস।

নতুন জায়গায় নতুন করে পরীক্ষা দেওয়ার প্রত্যয় জানিয়ে টুইটারে এই ব্রাজিলিয়ান জানান, 'আমি ইউরোপে অনেক কিছু অর্জন করেছি এবং বিশেষ মুহূর্ত উপভোগ করেছি। কিন্তু আমি সবসময় একজন বৈশ্বিক খেলোয়াড় হতে চেয়েছি। নতুন জায়গায় নতুন সুযোগ ও নতুন চ্যালেঞ্জ নিয়ে নিজেকে পরীক্ষা করতে চেয়েছি।'

'আমি ক্রীড়াঙ্গনে নতুন ইতিহাস লিখতে চাই। সৌদি প্রো লীগে এখন দারুণ শক্তিশালী এবং মানসম্পন্ন খেলোয়াড় রয়েছে। আমি অনেক শুনেছি এবং শিখেছি যে আমি ব্রাজিলিয়ান খেলোয়াড়দের একটি দীর্ঘ তালিকা অনুসরণ করছি যারা অনেক বছর ধরে সৌদি আরবে খেলেছেন। তাই আমি বিশ্বাস করি এটি পছন্দসই জায়গা,' যোগ করেন নেইমার।

ইউরোপ থেকে বাঘা বাঘা সব খেলোয়াড়দের টেনে এবার বেশ চমক দেখাচ্ছে সৌদি প্রো লিগ। তবে এ তালিকার বেশির ভাগ খেলোয়াড়দেরই সময়টা শেষ দিকে। সেখানে কিছুটা হলেও ভিন্ন নেইমার। ৩১ বছরেই ছাড়ছেন ইউরোপ। অথচ সময়ের অন্যতম প্রতিভাবান এই খেলোয়াড় হিসেবেই মানা হয় তাকে।

ড্রিবলিংয়ে তো কখনো কখনো লিওনেল মেসিকেও হার মানিয়ে দেন। বলের নিয়ন্ত্রণ এবং স্কোরিং দক্ষতায় কম নয়। অতিরিক্ত ইনজুরি প্রবণতার সঙ্গে খামখেয়ালীপনা না হলে মেসি-রোনালদোদের সঙ্গে সমান তালেই লড়াই করতে পারতেন। তবে আপাতত তাদের মতো ইউরোপ ছাড়লেন তিনি।

আর চ্যালেঞ্জ নেওয়াটা অবশ্য নতুন কিছু নয় নেইমারের জন্য। রিয়াল মাদ্রিদের রাডারে থাকলেও যোগ দিয়েছিলেন বার্সেলোনায়। এরপর ২২২ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে যোগ দেন পিএসজির মতো মাঝারী সারির দলে। ফরাসি ক্লাবে অবশ্য ততোটা সফল হতে পারেননি। একবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে ওঠাই ছিল সর্বোচ্চ। তার অর্জন থেমেছে ঘরোয়া প্রতিযোগিতাতেই।

তবে নিজের সিদ্ধান্ত সঠিক বলেই মনে করেন নেইমার, 'দুর্দান্ত ভক্তদের নিয়ে আল হিলাল বিশাল একটি ক্লাব এবং এশিয়ার সেরা। এটি আমাকে অনুভূতি দেয় যে সঠিক ক্লাবে সঠিক সময়ে আসা আমার জন্য সঠিক সিদ্ধান্ত। আমি জিততে এবং গোল করতে পছন্দ করি এবং আমি সৌদি আরবে এবং আল হিলালে চালিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করছি।'

Comments

The Daily Star  | English

The taste of Royal Tehari House: A Nilkhet heritage

Nestled among the busy bookshops of Nilkhet, Royal Tehari House is a shop that offers students a delectable treat without burning a hole in their pockets.

2h ago