ফুটবল

'শারীরিক ও মানসিকভাবে বিধ্বস্ত মায়ামি'

লিওনেল মেসি চোটে পড়ার পর থেকেই যেন বদলে গেছে সব।

লিওনেল মেসি যোগ দেওয়ার আগে মেজর সকার লিগে পয়েন্ট তালিকার তলানিতে ছিল ইন্টার মায়ামি। তবে তাকে পেয়ে রীতিমতো যেন উড়ছিল দলটি। একের পর এক জয়ে লিগস কাপ জিতে ইতিহাস সৃষ্টি করে দলটি। কিন্তু হুট করেই চোটে পড়েন মেসি। তাতেই আবার বদলে গেছে সব। বর্তমানে দলটি শারীরিক ও মানসিকভাবে বিধ্বস্ত বলে জানালেন প্রধান কোচ জেরার্দো তাতা মার্তিনো।

সবশেষ পাঁচ ম্যাচের মধ্যে মাত্র একটি ম্যাচে জিতেছে মায়ামি। সেই ম্যাচটিতে আবার খেলেছেন মেসি। যদিও পুরো সময় নয়। চোটে পড়ার আগ পর্যন্ত ৩৭ মিনিট মাঠে ছিলেন তিনি। বাকি চার ম্যাচের মধ্যে দুটি হার ও দুটি ড্র। এই ম্যাচগুলোতে খেলতে পারেননি মেসি। এরমধ্যে রয়েছে ইউএস ওপেনের ফাইনাল ম্যাচও।

জয়ের ধারাবাহিকতায় থাকা মায়ামির হঠাৎ এমন সংগ্রামের মূল কারণ ইনজুরি। শুধু লিওনেল মেসিই নয়, জর্দি আলবা সহ আরও বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় রয়েছেন মাঠের বাইরে। চোট সমস্যা রয়েছে সের্জিও বুসকেতসেরও। আর তাতেই মানসিক শক্তি হারিয়ে ফেলেছে মেজর সকার লিগের দলটি।

'বেশিরভাগই ম্যাচই বেশ ক্রিটিকাল হচ্ছে, যা শারীরিক ও মানসিকভাবে বিধ্বস্ত করে দিচ্ছে। আমাদের দল (নিউইয়র্ক সিটির বিপক্ষে) যা করেছে তা সাহসী ছিল। আমরা মূল খেলোয়াড়দের পাইনি কিন্তু আমরা লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিলাম, ম্যাচটিকে বাঁচানোর চেষ্টা চালিয়ে গিয়েছি,' দলের বর্তমান অবস্থার কথা জানিয়ে এমনটাই বলেন মায়ামি কোচ।

মেজর সকার লিগে নিজেদের সবশেষ ম্যাচে নিউইয়র্ক সিটির বিপক্ষে ম্যাচের শেষ মুহূর্তে দেওয়া টমাস আভিলেসের গোলে কোনোমতে ১-১ গোলে ড্র করে ইন্টার মায়ামি। তাতে প্লে অফের স্বপ্ন এখনও টিকে আছে তাদের। কিন্তু শিকাগো ফায়ারের বিপক্ষে পরবর্তী ম্যাচে মেসিকে পাওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। তাতে সেই ম্যাচেও জয় পাওয়া কঠিন হয়ে যাবে বলেই মনে করেন মার্তিনো, 'আমরা যখন দায়িত্ব নেই, দলটি শেষ স্থানে ছিল। এই তরুণরা আমাদের প্লে অফে সুযোগ দেওয়ার মতো অবস্থানে রেখেছে। শিকাগো ম্যাচ হবে অত্যন্ত কঠিন।'

উল্লেখ্য, হ্যামস্ট্রিংয়ে চোটের কারণে অনেক দিন থেকেই মাঠের বাইরে মেসি। বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের ম্যাচে ইকুয়েডরের বিপক্ষে জাতীয় দলের খেলতে গিয়ে এই চোটে পড়েন তিনি। এরপর অবশ্য টরন্টোর বিপক্ষে ফিরেছিলেন। কিন্তু একই জায়গায় আবারও চোট পাওয়ায় মাঠের বাইরে রয়েছেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক।

Comments