লাইভ আপডেট

শ্রীলঙ্কার কাছে ৫ উইকেটে হেরে এশিয়া কাপ শুরু বাংলাদেশের

বাংলাদেশকে হারিয়ে রেকর্ড গড়া জয় পেল শ্রীলঙ্কা।
ছবি: এএফপি

মামুলি পুঁজি নিয়ে বাংলাদেশের বোলাররা লড়াই করলেন। তবে তা যথেষ্ট হলো না ব্যাটারদের ব্যর্থতা সামাল দিতে। সাদিরা সামারাবিক্রমা ও চারিথ আসালাঙ্কার দারুণ ফিফটিতে লক্ষ্য ছুঁয়ে ফেলল শ্রীলঙ্কা। ১১ ওভার বাকি থাকতে ৫ উইকেটের হারে এশিয়া কাপ শুরু করল সাকিব আল হাসানের দল।

বাংলাদেশকে হারিয়ে লঙ্কানরা পেল রেকর্ড গড়া জয়। এই নিয়ে টানা ১১টি ওয়ানডে জিতল তারা, যা তাদের ইতিহাসের সেরা। ৪৩ রানে ৩ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর সামারাবিক্রমা ও আসালাঙ্কার ১১৯ বলে ৭৮ রানের জুটিই জয়ের ভিত গড়ে দেয় স্বাগতিকদের। সেই সঙ্গে ম্যাচ থেকে ছিটকে দেয় বাংলাদেশকে। এরপর ষষ্ঠ উইকেটে আসালাঙ্কা ও অধিনায়ক দাসুন শানাকার ৪৮ বলে অবিচ্ছিন্ন ৩৭ রানের জুটিতে জয় নিশ্চিত হয় শ্রীলঙ্কার।

এই হারে এশিয়া কাপের সুপার ফোরে যাওয়ার পথটা দুরূহ হয়ে গেল বাংলাদেশের। আগামী ৩ সেপ্টেম্বর লাহোরে গ্রুপ পর্বে নিজেদের দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচে আফগানিস্তানকে হারানোর বিকল্প নেই তাদের।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

শ্রীলঙ্কা: ৩৯ ওভারে ১৬৫/৫ (নিসাঙ্কা ১৪, করুনারত্নে ১, মেন্ডিস ৫, সামারাবিক্রমা ৫৪, আসালাঙ্কা ৬২*, ধনঞ্জয়া ২, শানাকা ১৪*; তাসকিন ১/৩৪, শরিফুল ১/২৩, সাকিব ২/২৯, মোস্তাফিজ ০/১২, মিরাজ ০/২৬, শেখ মেহেদী ১/৩৫)।

দায়িত্বশীল ইনিংসে আসালাঙ্কার হাফসেঞ্চুরি

ইনিংসে দ্বিতীয় হাফসেঞ্চুরি পেল শ্রীলঙ্কা। সাদিরা সামারাবিক্রমার পর দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে ফিফটি স্পর্শ করলেন চারিথ আসালাঙ্কা। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে এটি তার নবম পঞ্চাশ রান। ৩৭তম ওভারে মুখোমুখি হওয়া ৮৫ বলে ৪ চারের সাহায্যে ব্যক্তিগত মাইলফলকে পৌঁছালেন তিনি। সামারাবিক্রমা আউট হলেও লঙ্কানদের জয়ের দিকে এগিয়ে নিচ্ছেন আসালাঙ্কা। ওভার শেষে তাদের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ১৫০ রান। জয়ের জন্য চাই ১৩ ওভারে মোটে ১৫ রান।

সাকিবের দ্বিতীয় শিকার ধনঞ্জয়া

৩১তম ওভারের শেষ বলে সাকিব আল হাসান পেলেন নিজের দ্বিতীয় উইকেট। সাদিরা সামারাবিক্রমার মতো ধনঞ্জয়া ডি সিলভাও ডাউন দ্য উইকেটে এসে কুপোকাত হলেন। ফুল লেংথের বলে বোল্ড হলেন ধনঞ্জয়া। ৭ বল খেলে তার রান ২। ১২৮ রানে পঞ্চম উইকেট হারাল শ্রীলঙ্কা। জয়ের জন্য ১৯ ওভারে তাদের দরকার আর ৩৭ রান। চারিথ আসালাঙ্কার সঙ্গে ক্রিজে যোগ দিলেন লঙ্কান অধিনায়ক দাসুন শানাকা। পরপর দুই ওভারে ২ উইকেট তুলে নিয়ে কিছুটা হলেও আশা জাগাল বাংলাদেশ।

সামারাবিক্রমাকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙলেন শেখ মেহেদী

অনেক অপেক্ষার পর উইকেট তুলে নিতে পারল বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কার ১১৯ বলে ৭৮ রানের চতুর্থ উইকেট জুটি ভেঙে দলকে ব্রেক থ্রু দিলেন শেখ মেহেদী হাসান। সামান্য টার্ন করা ডেলিভারিটি ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে খেলার চেষ্টায় ব্যর্থ হলেন সাদিরা সামারাবিক্রমা। ব্যাট ফাঁকি দিয়ে বল চলে যায় পেছনে। উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিম কয়েকবারের চেষ্টায় তা গ্লাভসে জমিয়ে করলেন স্টাম্পিং। ৩০তম ওভারে ১২১ রানে ৪ উইকেট পড়ল লঙ্কানদের। সামারাবিক্রমা ৭৭ বলে ৬ চারে করলেন ৫৪ রান। ক্রিজে চারিথ আসালাঙ্কার সঙ্গে আছেন ধনঞ্জয়া ডি সিলভা।

দারুণ ব্যাটিংয়ে সামারাবিক্রমার ফিফটি

দ্রুত ৩ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর পাল্টা আক্রমণে সাদিরা সামারাবিক্রমা করছেন দারুণ ব্যাটিং। চারিথ আসালাঙ্কাকে নিয়ে শ্রীলঙ্কাকে জয়ের দিকে এগিয়ে নিচ্ছেন তিনি। ৬ চারের সাহায্যে ৫৯ বলে পেলেন ক্যারিয়ারের চতুর্থ ওয়ানডে ফিফটির স্বাদ। ২৪ ওভার শেষে লঙ্কানদের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ১১৪ রান। বাকি থাকা ২৬ ওভারে তাদের চাই আর মাত্র ৫১ রান। আরেক প্রান্তে আসালাঙ্কাকে খেলছেন ৪৮ বলে ৩১ রানে।

সামারাবিক্রমা-আসালাঙ্কার জুটিতে ঘুরে দাঁড়াল শ্রীলঙ্কা

প্রথম পাওয়ার প্লেতে চালকের আসনে থাকা বাংলাদেশকে পাল্টা আক্রমণ করেছে শ্রীলঙ্কা। চতুর্থ উইকেটে জুটি বেঁধে শ্রীলঙ্কাকে এগিয়ে নিচ্ছেন সাদিরা সামারাবিক্রমা ও চারিথ আসালাঙ্কা। সামনে থাকা লক্ষ্য ছোট হওয়ায় ঠাণ্ডা মাথায় খেলছেন তারা। ২১তম ওভারে তাদের জুটি স্পর্শ করেছে ফিফটি, ৭০ বলে। তাদেরকে বিচ্ছিন্ন করার উপায় খুঁজে পাচ্ছে না বাংলাদেশ। উইকেটের খোঁজে একাদশে থাকা ছয় বিশেষজ্ঞ বোলারের সবাইকে ব্যবহার করেছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। ওভার শেষে লঙ্কানদের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ৯৩ রান। সামারাবিক্রমা ৫০ বলে ৪১ ও আসালাঙ্কা ৩৯ বলে ২১ রানে ক্রিজে আছেন।

একটি রিভিউ হারাল বাংলাদেশ

পঞ্চদশ ওভারে চারিথ আসালাঙ্কার বিপক্ষে ক্যাচের আবেদন তুলল বাংলাদেশ। আম্পায়ার সাড়া না দেওয়ায় বোলিংয়ে থাকা অধিনায়ক সাকিব আল হাসান নিলেন রিভিউ। তবে আলট্রা এজে দেখা গেল, ভেতরে ঢোকা বলটি ব্যাট না ছুঁয়েই জমা পড়েছিল উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিমের হাতে। ফলে একটি রিভিউ হারাল টাইগাররা।

পাওয়ার প্লেতে বাংলাদেশের দাপট

শ্রীলঙ্কার ইনিংসের প্রথম ১০ ওভারে দাপট দেখাল বাংলাদেশ। স্বল্প পুঁজি নিয়ে তাদের বোলিংয়ের শুরুটা হলো দারুণ। তাসকিন আহমেদ, শরিফুল ইসলাম ও সাকিব আল হাসানের কল্যাণে টাইগাররা তুলে নিল ৩ উইকেট। স্কোরবোর্ডে লঙ্কানরা যোগ করতে পারল ৪৪ রান। ক্রিজে সাদিরা সামারাবিক্রমা ২০ বলে ১৯ ও চারিথ আসালাঙ্কা ৩ বলে ১ রানে খেলছেন।

সাকিবের আর্ম বলে বিদায় মেন্ডিসের

ক্রিজে যাওয়ার পর থেকে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করছিলেন না কুসল মেন্ডিস। তিনি রানের খাতা খোলেন ১৫তম বলে গিয়ে। তার দুর্দশার অবসান ঘটালেন সাকিব আল হাসান। বাংলাদেশের অধিনায়কের আর্ম বল বুঝতে পারলেন না মেন্ডিস। ব্যাট-প্যাডের ফাঁক গলে বল উপড়ে নিল স্টাম্প। ২১ বলে ১ চারে মেন্ডিসের রান ৫। দশম ওভারে ৪৩ রানে তৃতীয় উইকেটের পতন হলো শ্রীলঙ্কার, থামল জুটি গড়ার প্রচেষ্টা। চাপে পড়া দলটির হয়ে ক্রিজে সাদিরা সামারাবিক্রমার সঙ্গী চারিথ আসালাঙ্কা।

উইকেট শিকারে যোগ দিলেন শরিফুল

তাসকিন আহমেদের মতো ব্যক্তিগত দ্বিতীয় ওভারে উইকেটের দেখা পেলেন শরিফুল ইসলাম। এই বাঁহাতি পেসারের অফ স্টাম্পের অনেক বাইরের ডেলিভারিটি ছিল নির্বিষ। জায়গায় দাঁড়িয়ে কাট করার চেষ্টা করেন পাথুম নিসাঙ্কা। তবে সংযোগ হয়নি ঠিকঠাক। ব্যাটের কানায় লেগে বল চলে যায় ঝাঁপিয়ে পড়া উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিমের গ্লাভসে। ফলে চতুর্থ ওভারে ১৫ রানের মধ্যে দুই ওপেনারকে হারিয়ে চাপে পড়ল শ্রীলঙ্কা। ১ চারে ১৩ বলে ১৪ রান করলেন নিসাঙ্কা। ক্রিজে থাকা ব্যাটাররা হলেন কুসল মেন্ডিস ও সাদিরা সামারাবিক্রমা।

ছবি: বিসিবি

শুরুতেই বাংলাদেশকে সাফল্য এনে দিলেন তাসকিন

স্বল্প পুঁজি নিয়ে বোলিংয়ে নেমে দ্রুত উইকেট নেওয়ার চাহিদা ছিল বাংলাদেশের। সেই লক্ষ্যে দলকে প্রথম সাফল্য এনে দিলেন তাসকিন আহমেদ। এই ডানহাতি পেসার দারুণ কায়দায় বোল্ড করলেন শ্রীলঙ্কার ওপেনার দিমুথ করুনারত্নেকে। মিডল স্টাম্পের লাইনে করা ডেলিভারিটি করুনারত্নের প্যাড ছুঁয়ে আঘাত করল স্টাম্পে। তৃতীয় ওভারের প্রথম বলে প্রথম উইকেট হারাল লঙ্কানরা। তাদের সংগ্রহ তখন ১ উইকেটে ১২ রান। করুনারত্নের সংগ্রহ ৩ বলে ১ রান। ক্রিজে আরেক ওপেনার পাথুম নিসাঙ্কার সঙ্গী কুসল মেন্ডিস।

মাত্র ১৬৪ রানেই শেষ বাংলাদেশের ইনিংস

শেষ দুই উইকেট তুলে নিতে সময় নিলেন না মাথিশা পাথিরানা। তাসকিন আহমেদের পর দ্রুতই ফেরালেন মোস্তাফিজুর রহমানকে। তরুণ গতিময় এই পেসার ৩২ রান দিয়ে পেলেন ক্যারিয়ার সেরা ৪ উইকেট। বাংলাদেশ গুটিয়ে গেল স্রেফ ১৬৪ রানে। এবার এশিয়া কাপের আগে প্রথম পছন্দের চার বোলার লাহিরু কুমারা, দুশমন্থা চামিরা, দিলশান মাদুশাঙ্কা ও ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গাকে চোটের কারণে হারায় শ্রীলঙ্কা। কিন্তু সেই অভাব বুঝতে দিলেন না বাকিরা। বাংলাদেশকে অল্প রানে গুটিয়ে জয়ের আশা এখন চওড়া তাদের।

Najmul Hossain Shanto

সংক্ষিপ্ত স্কোর 

বাংলাদেশ: ৪২. ৪ ওভারে ১৬৪ (নাঈম ১৬, তানজিদ ০, শান্ত ৮৯, সাকিব ৫, হৃদয় ২০, মুশফিক ১৩, মিরাজ ৫, তাসকিন ০, শরিফুল ২*, মোস্তাফিজ ০; রাজিথা ০/২৯, থিকশানা ২/১৯, ধনঞ্জয়া ১/৩৫, পাথিরানা ৪/৩২, ওয়েলালাগে ১/৩০, শানাকা ১/১৬)।

পাথিরানার শিকার তাসকিন

গতি আর গতি বৈচিত্র্যে বাংলাদেশের ব্যাটারদের পরীক্ষা নেওয়া মাথিশা পাথিরানা পেলেন তৃতীয় উইকেট। তাসকিন আহমেদকে স্লোয়ারে কাবু করেছেন তিনি। কোনো রান করতে পারেননি তাসকিন। ১৬৪ রানে বাংলাদেশ হারিয়েছে নবম উইকেট।

থিকসেনার বলে ফিরলেন শান্তও 

এক প্রান্তে উইকেট পতনের স্রোতে দলকে ভরসা দিচ্ছিলেন নাজমুল হোসেন শান্ত, জাগিয়েছিলেন ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরির আশা। তবে তা আর পূরণ হয়নি। দারুণ বল করতে থাকা মাহিশ থিকশানাই তার ঘাতক। থিকশানার ভেতরে ঢোকা ক্যারম বলে ড্রাইভ করতে গিয়ে ব্যাটে পাননি বাঁহাতি ব্যাটার। পরিষ্কার বোল্ড আউট হয়ে যান তিনি। ১২২ বলে ৭ চারে শান্ত থামেন ৮৯ রান করে। ৪২তম ওভারে ১৬২ রানে অষ্টম উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ।

শান্তকে রেখে ফিরে গেলেন শেখ মেহেদীও

এক প্রান্তে একা লড়ছেন নাজমুল হোসেন শান্ত, কিন্তু কেউই তাকে সঙ্গ দিতে পারছেন না। আটে নামা শেখ মেহেদী হাসানও বিদায় নিয়েছেন। দুনিত ওয়েলেগেলের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে বিদায়  নিয়েছেন এই অফ স্পিনিং অলরাউন্ডার। ১৬ বলে ৬ রান করেছেন তিনি। ১৬২ রানে সপ্তম উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। 

রান আউটে মিরাজের বিদায়, বিপদে বাংলাদেশ

কাসুন রাজিতার বল স্কয়ার লেগে ঠেলে রানের জন্য শান্তকে ডেকেছিলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। শান্ত সেই ডাকে সাড়া দিয়ে দ্রুত দৌড় শুরু করলেও মিরাজ সিদ্ধান্ত বদলে ক্রিজে রয়ে যান। বল সহজেই নন স্ট্রাকিং প্রান্তের স্টাম্প ভাঙেন রাজিতা। দুই ব্যাটার একই পাশে থাকায় আম্পায়ার কিছুটা সময় নিয়ে দেন মিরাজের আউটের সিদ্ধান্ত। ১১ বলে ৫ রান করেন তিনি। ১৪১ রানে ৬ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। 

পাথিরানার বলে ধুঁকে ধুঁকে বিদায় মুশফিকের 

মাথিশা পাথিরানার গতির তোড়ে বারবার পরাস্ত হচ্ছিলেন মুশফিকুর রহিম। একবার ক্যাচ দিয়েও আম্পায়ারের ভুলে বেঁচে যান। তবে লাভ হয়নি। ১৩ রানে জীবন পেয়ে আর কোন রান বাড়াতে পারেননি। পাথিরানার পরের ওভারেই বিদায় তার। বাড়তি বাউন্সের বল আপার কাট করতে গিয়েছিলেন, থার্ড পার করতে পারেননি। অভিজ্ঞ ব্যাটার ফেরেন ২২ বলে ১৩ রান করে। ৩৩তম ওভারে ১২৭ রানে পঞ্চম উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। 

জীবন পেলেন মুশফিক

মাথিশা পাথিরানার বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়েও আম্পায়ারের ভুলে বেঁচে গেলেন মুশফিকুর রহিম। ১৩ রানে থাকা অভিজ্ঞ ব্যাটার পাথিরানার গতিতে পরাস্ত হয়ে কট বিহাইন্ড হন। লঙ্কানদের আবেদনে সাড়া দেননি আম্পায়ার। শ্রীলঙ্কার দুটি রিভিউ নষ্ট হয়ে যাওয়ায় তারা চ্যালেঞ্জ করার সুযোগ পায়নি। 

খোলসবন্দি হৃদয়ের বিদায়

শান্তর ফিফটির পর স্ট্রাইক পেয়েই বিপদ ডেকে আনলেন তাওহিদ হৃদয়। শান্তর সঙ্গে জুটিতে ৫৯ রান আনলেও বেশ মন্থর খেলছিলেন তিনি। এই খোলস থেকে আর বেরুতে পারলেন না। লঙ্কান অধিনায়ক দাসুন শানাকার বলে কিছুটা এগিয়ে এসে খেলতে গিয়ে লাইন মিস করেন। ভেতরে ঢোকা বল তার পায়ে আঘাত হানলে মাঠের আম্পায়ার এলবিডব্লিউর আবেদনে সাড়া দেননি। রিভিউ নিয়ে তাকে ফেরায় শ্রীলঙ্কা। ২৫তম ওভারে ৯৫ রানে চতুর্থ উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। 

শান্তর ফিফটি, এগুচ্ছে বাংলাদেশ 

শুরুতে কিছুটা নড়বড়ে ছিলেন নাজমুল হোসেন শান্ত। ২ রানে পেয়েছিলেন জীবনও। কিছুটা সময় নিয়ে থিতু হওয়ার পর ডানা মেলতে থাকেন তিনি। ৬৬ বলে পেরিয়ে যান ফিফটি। ওয়ানডেতে এটি তার চতুর্থ ফিফটি। 

প্রতিরোধ গড়লেন শান্ত-হৃদয়
৩৬ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়া দলকে উদ্ধারে নামলেন নাজমুল হোসেন শান্ত আর তাওহিদ হৃদয়। এই দুজনের জুটিতে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ২০ ওভার শেষে দলের রান ৩ উইকেটে ৭৫। জুটিতে এসেছে ৩৯ রান। শান্ত ৪০ আর হৃদয় খেলছেন ১২ রান নিয়ে। 

সাকিবকেও হারিয়ে ফেলল বাংলাদেশ

দশ ওভারের ভেতর দুই ওপেনারকে হারিয়ে চরম বিপদে থাকা বাংলাদেশকে ভরসা দিতে পারলেন না অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। ১১ বলে ৫ রান করা সাকিব ফিরলেন একাদশ ওভারে। মাথিশা পাথিরানার অফ স্টাম্পের বাইরের বলে কাট করতে গিয়ে পরাস্ত হন। উইকেটকিপার কুশল মেন্ডিস বা দিকে ঝাঁপিয়ে জমান দারুণ ক্যাচ। ৩৬ রানে বাংলাদেশ হারায় তৃতীয় উইকেট। বাংলাদেশের টপ অর্ডারে প্রথম চারজনই ছিলেন বাঁহাতি। তৃতীয় উইকেট পড়ার পর পাঁচে প্রথম দেখা মিলল ডানহাতি ব্যাটারের। ক্রিজে এলেন তাওহিদ হৃদয়।

বাজে শটে নাঈম শেখের বিদায় 
নড়বড়ে শুরুর পর থিতু হওয়ার চেষ্টায় ছিল বাংলাদেশ। তবে অস্থিরতায় ভুগে বিপদ ডেকে আনলেন নাঈম শেখ। ধনঞ্জয়া ডি সিলভার বল ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে উড়াতে গিয়েছিলেন। বলের নিচে যেতে পারেননি, ফুটওয়ার্কও ছিল দুর্বল। টপ এজড হয়ে পয়েন্টের দিকে যায় সহজ ক্যাচ। নিজের পঞ্চম ওয়ানডেতেও ব্যর্থ হলেন তিনি। এবার ২৩ বলে ফিরলেন ১৬ রান করে। ৮ম ওভারে ২৫ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারালো বাংলাদেশ। 

জীবন পেলেন শান্ত

পঞ্চম ওভারে কাসুন রাজিতার বলে লং অন দিয়ে খেলতে গিয়ে ক্যাচ দিয়েছিলেন নাজমুল হোসেন শান্ত। নিচু ক্যাচ লাফিয়ে হাত স্পর্শ করলেও ধরে রাখতে পারেননি দাসুন শানাকা। ২ রানে জীবন পান শান্ত। বাংলাদেশের স্কোর তখন ১ উইকেটে ১১। 

Tanzid Hasan Tamim
অভিষেকটা সুখকর হলো না তানজিদ হাসান তামিমের। ছবি: বিসিবি

শুরুতেই ফিরলেন অভিষিক্ত তানজিদ 

অভিষেকে দ্বিতীয় ওভারে এসে স্ট্রাইক পেলেন তানজিদ হাসান তামিম। তবে প্রথম ওয়ানডেটা সুখকর হলো না তার। অফ স্পিনার মাহেশ থিকসেনার একটি বল খেলার পরই পরাস্ত হলেন। ভেতরে ঢোকা বল পায়ে লাগিয়ে পরিস্কার এলবিডব্লিউর রায় মেনে চ্যালেঞ্জ না করে বেরিয়ে যান তিনি। ২ বলে কোন রান করতে পারেননি এই ওপেনার। ৪ রানে প্রথম উইকেট হারাল বাংলাদেশ। 

Tanzid Hasan Tamim
বাংলাদেশের ১৪৩তম ওয়ানডে ক্রিকেটার তানজিদ হাসান তামিম। ছবি: বিসিবি

টস জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ, তানজিদের অভিষেক 

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এশিয়া কাপের নিজেদের প্রথম ম্যাচে টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ। অধিনায়ক সাকিব আল হাসান বলছেন উইকেট দেখে তার মনে হয়েছে ব্যাট করার জন্য এটা বেশ ভালো, তাতে প্রতিপক্ষকে বড় রানের চ্যালেঞ্জ দিতে চান তারা। টস হারলেও মন খারাপ নয় লঙ্কান অধিনায়ক দাসুন শানাকার। কারণ আগে বোলিংই নিতে চেয়েছিলেন তিনি। এই ম্যাচে বাংলাদেশের হয়ে ওয়ানডে অভিষেক হচ্ছে ওপেনার তানজিদ হাসান তামিমের।

অসুস্থতায় লিটন দাস ছিটকে পড়ায় তানজিদের ওয়ানডে অভিষেক অনেকটা নিশ্চিতই ছিল, সেটাই হয়েছ। বাংলাদেশের ১৪৩তম ওয়ানডে ক্রিকেটার হিসেবে ক্যাপ পান ২২ পেরুনো বাঁহাতি তরুণ।

বাংলাদেশ একাদশে রেখেছে মোট ছয় বোলার, এরমধ্যে তিনজনই অবশ্য অলরাউন্ডার। আফিফ হোসেনের বদলে একাদশে এসেছেন শেখ মেহেদী হাসান। সাকিব ও মিরাজের পাশাপাশি তিনি তৃতীয় স্পিনার। পেস আক্রমণে নেতৃত্ব দেবেন তাসকিন আহমেদ, আছেন মোস্তাফিজুর রহমান। তবে হাসান মাহমুদের বদলে খেলানো হচ্ছে আরেক বাঁহাতি পেসার শরিফুল ইসলামকে। 

প্রথম পছন্দের চার বোলার না থাকায় শ্রীলঙ্কার বোলিং আক্রমণ বেশ অনভিজ্ঞ। তাতে নেতৃত্ব দেবেন পেসার কাসুন রাজিতা ও স্পিনার মাহেশ থিকসেনা। বোলিং অনভিজ্ঞ হলেও লঙ্কান সেরা ব্যাটারদের সবাই আছেন একাদশে। 

বাংলাদেশ একাদশ: তানজিদ হাসান তামিম, নাঈম শেখ, নাজমুল হোসেন শান্ত, তাওহিদ হৃদয়, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, শেখ মেহেদী, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাসকিন আহমেদ, শরিফুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান। 

শ্রীলঙ্কা একাদশ: পাথুম নিশানকা, দিমুথ করুনারত্নে, কুশল মেন্ডিস, সাদেরা সামারাবিক্রমা, চারিথা আসালাঙ্কা, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা, দাসুন শানাকা, দুনিত ওয়েলেগেলে, মাহেশ থিকসেনা, কাসুন রাজিতা, মাথিশা পাথিরানা। 

পিচ রিপোর্ট

সাবেক শ্রীলঙ্কান অধিনায়ক মারভান আত্তাপাতু পাল্লেকেলের পিচ দেখে বলেছেন এটা ব্যাটিং স্বর্গ। এই পিচে পরে বড় রান তাড়া করাও সম্ভব, সেজন্য পরে ব্যাট করাই হবে আদর্শ।

শ্রীলঙ্কা-বাংলাদেশ দুই দলই আছে একই সমস্যায়

প্রথম সারির চারজন বোলারকে ছাড়া এশিয়া কাপ শুরু করতে হচ্ছে শ্রীলঙ্কাকে। তবে তাদেরকে স্বস্তি দিতে পারে প্রতিপক্ষের অবস্থাও। বাংলাদেশও যে আছে একই সমস্যা। টুর্নামেন্টের আগে দলের অন্যতম পারফর্মার পেসার ইবাদত হোসেনের ছিটকে পড়েন। এরপর শ্রীলঙ্কা রওয়ানা হওয়ার দিন ভাইরাস জ্বরে আক্রান্ত হয়ে পড়েন লিটন দাস। সেরে উঠতে না পারায় তিনিও ছিটকে যান।

এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচে তাই কোন দলই পাচ্ছে না সেরা একাদশ।

Comments

The Daily Star  | English
Summer vacation shortened

Schools, colleges to open June 26

The educational institutes will open on June 26 instead of July 2 to recover learning losses

2h ago