বেনজেমা-কান্তে-পগবারা থাকলে কি 'হতে পারত' ভাববেন না ফ্রান্স কোচ

দল ঘোষণার আগেই ছিটকে যান মিডফিল্ডের দুই স্তম্ভ এনগোলে কান্তে ও পল পগবা। আর মাঠে নামার প্রস্তুতি নিতে গিয়ে ছিটকে যান ক্রিস্টোফার এনকুঙ্কু ও করিম বেনজেমাও। চোট সমস্যায় তাই সববেশি ভুগছে ফ্রান্সই। তারকা খেলোয়াড়দের হারিয়ে তারপরও চিন্তিত নন কোচ দিদিয়ার দেশম। সম্ভাব্য যে সেরা দলটা খেলাবেন তিনি, তারাই পুরোদমে ঝাঁপিয়ে পড়বে বলে হুঙ্কার দেন এ ফরাসি।

দল ঘোষণার আগেই ছিটকে যান মিডফিল্ডের দুই স্তম্ভ এনগোলো কান্তে ও পল পগবা। আর মাঠে নামার প্রস্তুতি নিতে গিয়ে ছিটকে যান ক্রিস্টোফার এনকুঙ্কু ও করিম বেনজেমাও। চোট সমস্যায় তাই সববেশি ভুগছে ফ্রান্সই। তারকা খেলোয়াড়দের হারিয়ে তারপরও চিন্তিত নন কোচ দিদিয়ার দেশম। সম্ভাব্য যে সেরা দলটা খেলাবেন তিনি, তারাই পুরোদমে ঝাঁপিয়ে পড়বে বলে হুঙ্কার দেন এ ফরাসি।

বুধবার অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে নিজেদের বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে ফ্রান্স। মাঠে নামার আগে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হন দেশম। সেখানে সামনে বেশ প্রত্যয়ী মনে হলো তাকে। তারকা খেলোয়াড়দের অনুপস্থিতিতে আদৌ নিজস্ব পরিকল্পনায় থাকতে পারবেন কি-না জানতে চাইলে বলেন, 'আমাদের কাছে যে দলটা আছে তারা সর্বোচ্চ দিয়েই কাজটা করবে। সব কিছু করে শেষ পর্যন্ত যেতে বাসনা ও ইচ্ছা ছোট করা? আমি তেমনটা মনে করি না। কিন্তু মিডিয়া যদি আমাদের আরেকটু বোঝে, আপনারা যদি আমাদের একটু ছাড় দেন, সেটা দারুণ হবে।'

বেনজেমা-পগবা-কান্তেরা থাকলে কি ঘটতো সেটা নিয়ে দল ভাবছেন না বলেও জানান ফরাসি কোচ, 'এটা পরিসংখ্যান, সম্ভাবনা ও তত্ত্বের ভিত্তিতে, কিন্তু আমি মনে করি সব দলই আজ যেখানে আছে সেখানে পৌঁছতে যার যার যাত্রা সম্পন্ন করেছে। এটা আমাদের ওপর এমন একটা দল যারা প্রথম ম্যাচে তাদের উদ্দেশ্য নিয়ে সচেতন থাকবে। আমরা ভাবব না কি হতে পারত।'

ফ্রান্সের সব মনোযোগ এখন প্রথম ম্যাচের দিকে জানিয়ে তিনি বলেন, 'যেটা গুরুত্বপূর্ণ সেটা হলো অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে মনোযোগ দেওয়া, এর আগে সব কিছুই মাঠের বাইরে। নানা বিশ্লেষণ করা সম্ভব, সেগুলোর সঙ্গে যেটা করবেন করতে পারেন, কিন্তু আমরা আগামীকালের জন্য প্রস্তুত।'

Comments

The Daily Star  | English

Bangladeshi students terrified over attack on foreigners in Kyrgyzstan

Mobs attacked medical students, including Bangladeshis and Indians, in Kyrgyzstani capital Bishkek on Friday and now they are staying indoors fearing further attacks

1h ago