অটো মোবাইল

টিকটক দেখার সুবিধা আসছে মার্সিডিজ গাড়িতে

এশিয়ার বাজারে টিকটকের জনপ্রিয়তা প্রসঙ্গে মার্সিডিজের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ওলা কালেনিয়াসন বলেন, ‘এটা (টিকটক) খুবই, খুবই প্রাসঙ্গিক। এটা ভুলে গেলে চলবে না যে চীনে এস-ক্লাসের গাড়িগুলোর মালিকদের গড় বয়স চল্লিশের কম।’
টিকটক দেখার সুবিধা আসছে মার্সিডিজ গাড়িতে
ছবি: সংগৃহীত

ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম টিকটকের জনপ্রিয়তা এখন সর্বত্র। জনপ্রিয় এই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটি এখন আধুনিক যানবাহনেও সংযুক্ত হচ্ছে, যার শুরুটা হবে মার্সিডিজ বেঞ্জ ই-ক্লাস দিয়ে। এই গাড়িটি ২০২৩ সালের শরৎকালে বাজারে আসবে। 

নতুন এই মডেলটির ড্যাশবোর্ডে আরও বড় এবং আরও আধুনিক ডিসপ্লে ব্যবহার করা হবে। এতে থাকবে মার্সিডিজ বেঞ্জ ইউজার এক্সপেরিয়েন্স (এমবিইউএক্স) এর আরও আধুনিক ভার্সন। মার্সিডিজ তাদের গাড়িগুলোর জন্য নিজস্ব ডিজাইনের অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে কাজ করছে যার নাম এমবি.ওস। আশা করা হচ্ছে ২০২৪ সালের গাড়িগুলোতে নতুন এই অপারেটিং সিস্টেমটি ব্যবহৃত হবে। 

মার্সিডিজ ই-ক্লাসে যে শুধু টিকটক অ্যাপই নতুনভাবে সংযুক্ত হতে যাচ্ছে, তা নয়। ভিডিও কলিং অ্যাপ জুম, ওয়েবএক্স এবং গেমিং অ্যাপ অ্যাংরি বার্ডও যুক্ত হতে যাচ্ছে আসন্ন এই মডেলটিতে। তবে টিকটকের অন্তর্ভুক্তিকে অনেকেই একটু অবাক চোখে দেখছেন, কারণ অনেক বিশেষজ্ঞ মনে করছেন মার্সিডিস এই সিদ্ধান্তটি নিয়েছে চীনের বাজার ধরার উদ্দেশ্য। তবে যুক্তরাষ্ট্রসহ অন্যান্য দেশেও নতুন মার্সিডিজ ই-ক্লাসে টিকটক ব্যবহার করা যাবে। 

এশিয়ার বাজারে টিকটকের জনপ্রিয়তা প্রসঙ্গে মার্সিডিজের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ওলা কালেনিয়াসন বলেন, 'এটা (টিকটক) খুবই, খুবই প্রাসঙ্গিক। এটা ভুলে গেলে চলবে না যে চীনে এস-ক্লাসের গাড়িগুলোর মালিকদের গড় বয়স চল্লিশের কম।'

'আমরা যখন আমাদের গাড়িগুলোতে কী কী অ্যাপ যুক্ত করা যায় সেগুলো নিয়ে ভাবি, তখন আমরা বাজার ধরে ধরে বিশ্লেষণ করি। আমরা দেখি কোনটি সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে- গান নাকি সিনেমা; এবং আমরা সেগুলো অন্তর্ভুক্ত করা চেষ্টা করি।'

মার্সিডিজ বেঞ্জ ই-ক্লাসের ড্যাশবোর্ডে থাকা বড় আকারের 'সুপারস্ক্রিনে' হালনাগাদ করা এমবিইউএক্স সিস্টেমের সাহায্যে গাড়ি পার্কিংয়ে থাকা অবস্থায় টিকটক এবং অন্যান্য ভিডিও দেখা যাবে। পেছনে বসা যাত্রীরাও এই ভিডিও দেখতে পাবে- কারণ পেছন থেকে যাত্রীরা ড্যাশবোর্ডের স্ক্রিনের একটা অংশ সরাসরি দেখার সুযোগ পাবেন। তবে চালক গাড় চালানোর সময় ভিডিও দেখছেন কি না, গাড়িটিতে থাকা মনিটরিং সিস্টেম সেটি পর্যবেক্ষণ করবে।  

মার্সিডিজ থার্ড পার্টি অ্যাপ বা সফটওয়্যার যাতে তাদের গাড়িতে কাজ করে, এমনভাবে নিজেদের সফটওয়্যার তৈরি করছে। এ ছাড়া মার্সিডিজের নিজস্ব অ্যাপ স্টোরও আছে যেটি 'মার্সিডিজ মি' অ্যাপের সাহায্যে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। 

নিজেদের গাড়ির বিনোদন ব্যবস্থা আরও উন্নত করার উদ্দেশ্যে টিকটক আর ভিডিও কনফারেন্সিং অ্যাপের পাশাপাশি মার্সিডিজ গুগলের সঙ্গে দীর্ঘ সহযোগিতা চুক্তির ঘোষণা দিয়েছে। যার ফলে মার্সিডিজের গাড়িগুলোতে ভবিষ্যতে গুগল ম্যাপস এবং ইউটিউবের মতো সেবাও ব্যবহার করা যাবে। 

 

গ্রন্থনা: আহমেদ হিমেল

 

Comments