সরকারি চাকরি পরীক্ষার ফি ৩ গুণ পর্যন্ত বাড়লো

সরকারি চাকরির পরীক্ষা ফি পুনর্নির্ধারণ করেছে সরকার। নতুন এই তালিকা অনুযায়ী পরীক্ষার ফি বেড়েছে ৩ গুণ পর্যন্ত।

সরকারি চাকরির পরীক্ষা ফি পুনর্নির্ধারণ করেছে সরকার। নতুন এই তালিকা অনুযায়ী পরীক্ষার ফি বেড়েছে ৩ গুণ পর্যন্ত।

গত ২২ সেপ্টেম্বর তারিখে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের উপ সচিব মোছা. নারগিস মুরশিদার সই করা এক প্রজ্ঞাপন থেকে এ তথ্য জানা যায়।

প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, ৯ম বা তদূর্ধ্ব গ্রেডের (নন-ক্যাডার) জন্য পরীক্ষার ফি ধার্য করা হয়েছে ৬০০ টাকা। এ ছাড়া, ১০ম গ্রেডে ৫০০, ১১ থেকে ১২তম গ্রেডে ৩০০, ১৩ থেকে ১৬তম গ্রেডে ২০০ ও ১৭ থেকে ২০তম গ্রেডে পরীক্ষার ফি ১০০ টাকা ধার্য করা হয়েছে।

৯ম বা তদূর্ধ্ব গ্রেডের (নন-ক্যাডার) জন্য পরীক্ষার ফি ছিল ৫০০ টাকা। এই গ্রেডে ফি বেড়েছে ১০০ টাকা। তবে, ১০ম গ্রেডের ফি ৫০০ টাকাই রয়েছে।

১১ ও ১২তম গ্রেডের জন্য পরীক্ষার ফি আলাদা করে ধার্য করা হয়েছে। আগে ১১ থেকে ১৬তম গ্রেডের জন্য ফি ছিল ১০০ টাকা। নতুন প্রজ্ঞাপনে ১১ ও ১২তম গ্রেডের ফি ধরা হয়েছে ৩০০ টাকা। সে হিসাবে এই ২ গ্রেডে পরীক্ষার ফি বেড়েছে ৩ গুণ।

এ ছাড়া, ১৩ থেকে ১৬তম গ্রেডে ফি ছিল ১০০ টাকা এবং ১৭ থেকে ২০তম গ্রেডে পরীক্ষার ফি ছিল ৫০ টাকা। উভয়ক্ষেত্রেই ফি দ্বিগুণ করে যথাক্রমে ২০০ ও ১০০ টাকা করা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, নতুন এই ফি সব মন্ত্রণালয়, বিভাগ, অধিদপ্তর, পরিদপ্তর ও স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার জন্য প্রযোজ্য।

স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানগুলো নিজেদের মতো করে পরীক্ষার ফি নির্ধারণ করতে পারত। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তা সরকারি ফি থেকে বেশি ছিল। নতুন এই প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী তাদেরকেও নির্ধারিত এই ফি গ্রহণ করতে হবে।

অনলাইন আবেদনের জন্য রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটকের মাধ্যমে এই ফি আদায় করা যাবে এবং এই পরিষেবার জন্য টেলিটককে সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ কমিশন দেওয়া যাবে।

অনলাইনে আবেদন না চাওয়া হলে ব্যাংক চালানের মাধ্যমে এই ফি গ্রহণ করতে হবে। স্বায়ত্তশাসিত সংস্থাগুলো ব্যাংক ড্রাফট বা পে অর্ডারের মাধ্যমে ফি গ্রহণ করতে পারবে।

Comments