নির্বাচন

ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে না যাওয়া মানে গণতন্ত্রের অপমৃত্যু: সিইসি

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, 'ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে না গেলে বুঝতে হবে গণতন্ত্রে অসুস্থতা আছে বা গণতন্ত্রের অপমৃত্যু হচ্ছে।'
সিইসি
সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল। ফাইল ছবি

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, 'ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে না গেলে বুঝতে হবে গণতন্ত্রে অসুস্থতা আছে বা গণতন্ত্রের অপমৃত্যু হচ্ছে।'

রোববার ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে সংলাপের পর তিনি এ কথা বলেন।

ভোটারদের আস্থা ফিরিয়ে আনার বিষয়ে প্রতিনিধি দলের প্রস্তাবনার পরিপ্রেক্ষিতে সিইসি বলেন, 'হ্যাঁ এটা ঠিক। অনেক ক্ষেত্রে আমরাও দেখেছি ভোটার একটু নিরুৎসাহিত হয়ে পড়েছে। এজন্য আস্থা ফেরানো খুবই প্রয়োজন। গণতন্ত্রকে বাঁচাতে হলে, গণতান্ত্রিক চেতনার চর্চা করতে ভোটারদের অবশ্যই ভোটকেন্দ্রে আসতে হবে।'

'আর ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে না এলে বুঝতে হবে গণতন্ত্রে অসুস্থতা আছে বা গণতন্ত্রের অপমৃত্যু হচ্ছে,' বলেন তিনি।

সিইসি আরও বলেন, 'আমাদের ক্ষমতার সীমাবদ্ধতা থাকতে পারে। কিন্তু আমাদের চেষ্টার কোনো ত্রুটি থাকবে না। এটা আশ্বস্ত করছি। যতটা তৎপর আমাদের হওয়া দরকার, সেটা হবো বলে প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি।'

কমিশন অবাধ নিরপেক্ষ, উৎসবমুখর ও অংশগ্রহণমুলক নির্বাচন করার চেষ্টা চালিয়ে যাবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, 'এ লক্ষ্যে শুধু আমাদের যে দায়িত্ব তার ওপর এককভাবে নির্ভর করলে তা ভ্রান্ত হবে। আপনাদেরও দায়িত্ব আছে। সব রাজনৈতিক দলকে সমবেতভাবে এটা অর্জন করার চেষ্টা করতে হবে। তাহলে আমরা শক্তি পাব। সবাই মিলে চেষ্টা করি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনটিকে সত্যিকার গণতান্ত্রিক চেতনায় গ্রহণযোগ্য, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক শুদ্ধতার সঙ্গে যেন বাস্তবায়ন করতে পারি।'

সিইসি হাবিবুল আউয়াল বলেন, 'জনগণের প্রতিনিধিত্বমূলক সরকার যেন গড়ে উঠে, এটাই আমাদের চাওয়া। আমরা ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের অধিকার পরিপূর্ণভাবে দিতে চাই।'

রোববার বিকেলে ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আবু নাছের তালুকদারের নেতৃত্বে ১২ সদস্যের প্রতিনিধি দল ইসির সঙ্গে সংলাপে অংশ নেয়।

Comments