প্রবাসে

সৌদিতে বাংলাদেশের অংশীদারিত্বে সার কারখানা স্থাপনের উদ্যোগ

এ লক্ষ্যে সম্ভাব্যতা জরিপের জন্য ২ দেশের মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে।
রিয়াদে বাংলাদেশ দূতাবাসে সমঝোতা স্মারক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী ও সৌদি কোম্পানির কর্মকর্তারা। ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশের সঙ্গে যৌথ মালিকানায় ডাই-অ্যামোনিয়াম ফসফেট (ড্যাপ) সার কারখানা স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে সৌদি আরব। এ লক্ষ্যে সম্ভাব্যতা জরিপের জন্য ২ দেশের মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে।

বলা হচ্ছে, বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে এই প্রথম শিল্প কারখানা স্থাপনের উদ্যোগ বাস্তবায়িত হবে।

বুধবার বাংলাদেশের শিল্প মন্ত্রণালয় এবং রিয়াদে বাংলাদেশ দূতাবাসের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে এ সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।

বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশন (বিসিআইসি) এবং সৌদি হানওয়াহ কন্ট্রাক্টিং কোম্পানি লিমিটেডের কর্মকর্তারা ২ দেশের পক্ষে সমঝোতা স্মারকে সই করেন।

চুক্তি অনুযায়ী, হানওয়াহ কন্ট্রাক্টিং কোম্পানি সৌদি আরবে ডাই-অ্যামোনিয়াম ফসফেট (ড্যাপ) সার কারখানা স্থাপনে সম্ভাব্যতা জরিপ করবে।

সম্ভাব্যতা জরিপ বাংলাদেশের কাছে গ্রহণযোগ্য হলে সৌদি আরবের রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান মাদেনের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরের মাধ্যমে সার কারখানা স্থাপনের বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

ঢাকা প্রান্তে শিল্প মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত সমঝোতা স্মারক সই অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, 'ডাই-অ্যামোনিয়াম ফসফেট (ড্যাপ) কারখানা প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে দেশে ফসফেট সারের যোগান অনেকটাই নিশ্চিত হবে, যা খাদ্য নিরাপত্তার জন্য সহায়ক হবে।'

সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী আশা প্রকাশ করেন, অচিরেই এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে যা বাংলাদেশে কৃষি ক্ষেত্রে ব্যাপক অবদান রাখবে।

রিয়াদ প্রান্ত থেকে ভার্চুয়াল বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত  বলেন, 'সৌদি আরবের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক আজ নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে। ২ দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক বৃদ্ধি পেয়েছে।'

শিল্প সচিব জাকিয়া সুলতানার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে  শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, বিসিআইসির চেয়ারম্যান মো. সাইদুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

লেখক: সৌদিপ্রবাসী সাংবাদিক

Comments