বিদ্যুৎ ও জ্বালানি

কমিশন রেট কার্যকরের আশ্বাসে জ্বালানি তেল ব্যবসায়ীদের ধর্মঘট প্রত্যাহার

জ্বালানি তেল বিক্রির কমিশন বৃদ্ধির আশ্বাস পেয়ে ধর্মঘট তুলে নিয়েছেন ব্যবসায়ী ও শ্রমিকরা।
খুলনার ৩ ডিপো থেকে জ্বালানি তেল উত্তোলন-পরিবহন বন্ধ
ছবি: সংগৃহীত

জ্বালানি তেল বিক্রির কমিশন বৃদ্ধির আশ্বাস পেয়ে ধর্মঘট তুলে নিয়েছেন ব্যবসায়ী ও শ্রমিকরা।

আজ রোববার সন্ধ্যা ৭টার দিকে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন (বিপিসি) থেকে তারা কমিশন বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত কার্যকর হওয়ার আশ্বাস পেয়েছেন বলে জানা গেছে। 

এর আগে, সকাল ৮টা থেকে খুলনার রাষ্ট্রয়াত্ত তিন ডিপো থেকে উত্তোলন ও ১৫ জেলায় পরিবহন বন্ধ রাখেন জ্বালানি তেল ব্যবসায়ী ও শ্রমিকরা।

খুলনা বিভাগীয় জ্বালানি তেল পরিবেশক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শেখ মুরাদ হোসেন দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, 'সন্ধ্যায় বিপিসি থেকে আমাদের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে জানানো হয়েছে যে, অতি শিগগির আমরা দাবি অনুযায়ী কমিশন পাব। তাই অনির্দিষ্টকালের জন্য ডাকা ধর্মঘট স্থগিত করা হয়েছে।' 

এর আগেও, গত ৩ সেপ্টেম্বর কমিশন বৃদ্ধির দাবিতে তেল উত্তোলন বন্ধ করে দিয়েছিলেন জ্বালানি তেল ব্যবসায়ীরা। এরপর সরকারের আশ্বাসে শেষপর্যন্ত ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেন তারা। পরবর্তীতে ২৬ সেপ্টেম্বর বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয় কমিশন বাড়িয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে। সে অনুযায়ী প্রতি ১০০ টাকার অকটেন বিক্রিতে পাম্প মালিকরা চার টাকা ২৮ পয়সা, পেট্রল বিক্রিতে চার টাকা ৩৪ পয়সা, কেরোসিনে দুই টাকা এবং ডিজেলে দুই টাকা ৮৫ পয়সা কমিশন পাবেন।

তবে মুরাদ হোসেন বলেন, 'গত ২৬ সেপ্টেম্বর সরকার নতুন রেট কার্যকর করার গেজেট প্রকাশ করেছে। কিন্তু আমরা তেল কিনতে গেলে সেই রেটে কোম্পানিগুলো দিচ্ছে না। কোম্পানিগুলো বলছে- সরকারের নির্দেশিত রেট তাদের কাছে এখনো পৌঁছেনি। তাই আমরা ধর্মঘট কর্মসূচি ডেকেছিলাম। তবে কর্মসূচি প্রত্যাহার হওয়ায় আগামীকাল সোমবার সকাল থেকে যথারীতি তেল পরিবহন শুরু হবে।'

 

Comments