কথার মাঝখানে ‘অ্যাঁ’ ‘মানে’র মতো শব্দ এড়াবেন যেভাবে

এ ধরনের শব্দ ব্যবহার করলে বক্তব্যের মাধুর্য নষ্ট হয়। তাই এই শব্দগুলো কথা বলার সময় যত কম ব্যবহার করা যায়, ততই ভালো।
ছবি: সংগৃহীত

কোনো বক্তব্য দেওয়ার সময় কিংবা কারো সঙ্গে কথা বলার সময় আমরা প্রায়ই অপ্রয়োজনীয় শব্দ ব্যবহার করি, ইংরেজীতে যার নাম ফিলার ওয়ার্ড। আমরা যখন কথা বলার সময় একটু চিন্তা করি, কিংবা কী বলব ভেবে পাই না- এই সময়টায় যে শব্দগুলো ব্যবহার করি, সেগুলোকেই ফিলার শব্দ বলে।

ইংরেজি ভাষায় সবচেয়ে প্রচলিত কিছু ফিলার শব্দ হচ্ছে ওয়েল, ইউ নো, ইউ সি, টু বি অনেস্ট, আহ, ওকে, ওয়াও, লাইক, উম ইত্যাদি। বাংলায়ও আমরা অ্যাঁ, মানে, হুম, ঠিক আছে, ইয়ে ইত্যাদি ফিলার শব্দ ব্যবহার করে থাকি। এ ধরনের শব্দ ব্যবহার করলে বক্তব্যের মাধুর্য নষ্ট হয়। তাই এই শব্দগুলো কথা বলার সময় যত কম ব্যবহার করা যায়, ততই ভালো।

যুক্তরাষ্ট্রের লোকজন ফিলার শব্দ সবচেয়ে বেশি ব্যবহারের জন্য পরিচিত। এক জরিপে দেখা গেছে, প্রতি ১০০ শব্দ উচ্চারণে আমেরিকানরা ২-৩টি ফিলার শব্দ ব্যবহার করেন। ফিলার শব্দ ব্যবহার করা সহজ। কিন্তু এগুলো বক্তাকে শ্রোতাদের কাছে অপেশাদার ও অপরিণত হিসেবে উপস্থাপন করে। তাই এই অভ্যাসটি বর্জন করাটাই ভালো।

যেভাবে কথা বলার সময় ফিলার শব্দ ব্যবহার এড়িয়ে চলা সম্ভব-

 

 

হাততালি পদ্ধতি

প্রথমে বুঝতে হবে আপনি কথা বলার সময় কত ঘন ঘন এই শব্দগুলো ব্যবহার করছেন। কাছের কারো সহযোগিতায় এটি পরখ করে দেখতে পারেন। তাকে বলুন, আপনি কথা বলার সময় যখনই শব্দগুলো ব্যবহার করছেন, তখনই যাতে তিনি হাততালি দেন। এটা হয়তো প্রথমে অদ্ভুত লাগবে, কিন্তু খুব দ্রুত বুঝতে পারবেন আপনি দৈনন্দিন জীবনে কথা বলার সময় কত ঘন ঘন ফিলার শব্দ ব্যবহার করছেন।

রেকর্ডিং পদ্ধতি

কাউকে হাততালির কথা বলতে যদি সংকোচ বোধ হয়, তাহলে কারো সঙ্গে কথোপকথন রেকর্ড করুন। পরে সেই রেকর্ড শুনুন আর বোঝার চেষ্টা করুন আপনি কত ঘন ঘন শব্দগুলো ব্যবহার করেছেন।

যেভাবে শব্দগুলোর ব্যবহার এড়ানো সম্ভব

বেশিরভাগ সময়ই মানুষ পরবর্তী কথাটা বলার আগে আরও কিছুটা সময় ভাবার জন্য এই শব্দগুলো ব্যবহার করে। কথা বলার মাঝখানে কোনো কিছু ভাবার সময় ফিলার শব্দ ব্যবহার না করে কিছুক্ষণ চুপ থাকতে পারেন। এক্ষেত্রে আদর্শ উদাহরণ সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। বক্তব্যের মাঝখানে দীর্ঘ বিরতির জন্য তিনি সুপরিচিত।

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক স্পিকিং কোচ পলা স্ট্যাটম্যান বলেন, 'কথা বলার মাঝখানে দীর্ঘ বিরতি নেওয়ার জন্য নিজেকে প্রশিক্ষণ দিতে হবে এবং একইসঙ্গে নিজেকে বোঝাতে হবে যে এতে শ্রোতারা বিরক্ত হবেন না বা মনোযোগ হারিয়ে ফেলবেন না।'

কথা বলার সময় দুশ্চিন্তা বা উৎকণ্ঠাকে নিয়ন্ত্রণে রাখাটাও অনেক গুরুত্বপূর্ণ। অনেকেই বড় সংখ্যক শ্রোতার সামনে কথা বলার সময় উদ্বেগ বা দুশ্চিন্তা থেকে নিজের অজান্তেই শব্দগুলো ব্যবহার করেন। আপনি যখন অনেক মানুষের সামনে কথা বলবেন বা কোনো বিষয় উপস্থাপন করবেন, তখন মনে রাখতে হবে আপনার উচ্চারিত শব্দগুলো উপস্থিত মানুষের জন্য বিষয়টি বুঝতে কতটা সহায়ক হচ্ছে।

পাবলিক স্পিকিং একটি বড় দক্ষতা। প্রশিক্ষণ ও অভ্যাসের মাধ্যমে এটা অর্জন করতে হয়। প্রশিক্ষণ মানুষকে নিখুঁত করে তোলে। তাই ফিলার শব্দের ব্যবহার এড়িয়ে কথা বলার জন্য বারবার অনুশীলন করুন। কথা বলার সময় আপনি যত আত্মবিশ্বাসী থাকবেন, তত কম ফিলার শব্দ ব্যবহার করবেন।

তথ্যসূত্র: বিজনেস ইনসাইডার

Comments