অপরাধ ও বিচার

কক্সবাজারে ইয়াবাসহ ‘এপিবিএনের উপপরিদর্শক ও তার স্ত্রী’ আটক

'আটক এপিবিএন পুলিশের সদস্য কি না তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে।  বিষয়টি এপিবিএন পুলিশকে জানানো হয়েছে। আটকদের বিরুদ্ধে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।'
স্টার অনলাইন গ্রাফিক্স

কক্সবাজার জেলা শহরে ২০ হাজার ইয়াবাসহ আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) এক কর্মকর্তা ও তার স্ত্রীকে আটক করেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। 

শুক্রবার রাত সোয়া ১০টায় কক্সবাজার জেলা শহরের কলাতলী চৌরাস্তা এলাকায় একটি বাসের কাউন্টারে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

আটকরা হলেন রেজাউল করিম (৪৭) ও তার স্ত্রী মলিনা পাশা (৪৩)। 

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর টেকনাফ আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপ পরিদর্শক (এসআই) তুন্তু মনি চাকমা এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। আটক এপিবিএন পুলিশের সদস্য কি না তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে এপিবিএনের পক্ষ থেকে কোনো আনুষ্ঠানিক বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রেজাউল করিম সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকুচি উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের সমেশপুর মণ্ডলবাড়ী এলাকার বাসিন্দা। তিনি টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের আলিখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত এপিবিএন ক্যাম্পে উপ পরিদর্শক (এসআই) পদে কর্মরত। 

এসআই তুন্তু মনি বলেন, 'শুক্রবার রাতে টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নিরাপত্তায় নিয়োজিত ১৬ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) এক সদস্য মাদকের একটি চালান নিয়ে বাসে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দিয়েছে এমন খবর পায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। পরে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের একটি বিশেষ দল সন্দেহজনক এক এপিবিএন পুলিশ সদস্যের গতিবিধির ওপর নজরদারি অব্যাহত রাখে। এক পর্যায়ে রাত সোয়া ১০টায় কক্সবাজার শহরের কলাতলী মোড় এলাকার গ্রিন লাইন পরিবহন সার্ভিসের কাউন্টারে অভিযান চালিয়ে এসআই রেজাউল ও তার স্ত্রীকে আটক করা হয়।

'এসময় তাদের সঙ্গে থাকা তালাবদ্ধ একটি ব্যাগ খুলে ২০ হাজার ইয়াবা ও একটি ওয়াকিটকি পাওয়া যায়। আটক এপিবিএন পুলিশের সদস্য কি না তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে।  বিষয়টি এপিবিএন পুলিশকে জানানো হয়েছে। আটকদের বিরুদ্ধে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে,' বলেন তিনি।

এ বিষয়ে জানতে ১৬ এপিবিএনের অধিনায়ক অতিরিক্ত উপ মহাপরিদর্শক (অ্যাডিশনাল ডিআইজি)  হাসান বারী নুরের মোবাইলে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

তবে টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের আলিখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নিরাপত্তায় নিয়োজিত এপিবিএন পুলিশ ক্যাম্পের উপ পরিদর্শক পদবীর এক কর্মকর্তা পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে ইয়াবাসহ আটক ব্যক্তি এপিবিএন পুলিশের সদস্য বলে দ্য ডেইলি স্টারকে নিশ্চিত করেছেন।

Comments