অপরাধ ও বিচার

গুলশান থানার সাবেক ওসি ফিরোজের ৬ বছরের কারাদণ্ড, পৌনে ২ কোটি টাকা জরিমানা

তার স্ত্রী সাবরিনা আহমেদ ইভাকেও ৪ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।
যুবলীগ নেতা জামাল উদ্দিন হত্যা

অবৈধভাবে ৮৭ লাখ টাকার সম্পদ অর্জনের অভিযোগে করা মামলায় গুলশান থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ কবিরকে ৬ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে স্বামীকে অবৈধ সম্পদ অর্জনে সহায়তা করার দায়ে তার স্ত্রী সাবরিনা আহমেদ ইভাকেও ৪ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

আজ বুধবার ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৯ এর বিচারক শেখ হাফিজুর রহমান এ রায় ঘোষণা করেন।

সেই সময় এই দম্পতি আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

রায় ঘোষণার আগে তারা জামিনে থাকলেও এরপরে তাদের জামিন বাতিল করে কেরানীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

রায়ে বিচারক বলেন, প্রসিকিউশন প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে যে এই দম্পতির বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে এবং তাদের এই ধরনের অপরাধের জন্য শাস্তি দেওয়া হয়েছে।

একইসঙ্গে ফিরোজ কবিরকে ১ কোটি ৭৪ লাখ ৩৪ হাজার ৬৩৮ টাকা জরিমানা এবং ৬০ দিনের মধ্যে তা রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দেওয়ার নির্দেশ দেন বিচারক। অন্যথায় সরকার দেশের বিদ্যমান আইন অনুযায়ী জরিমানার অর্থ বাজেয়াপ্ত করতে পারবে।

পাশাপাশি ফিরোজ কবিরের অবৈধভাবে অর্জিত ৮৭ লাখ ১৭ হাজার ১৯৪ টাকা বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেন বিচারক।

এর আগে রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে আদালত মামলার বাদীসহ ১২ জনের জবানবন্দি পুনর্বিবেচনা করেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়, ফিরোজ কবির ২০১২ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৬ সালের মে পর্যন্ত দুর্নীতি ও ঘুষের মাধ্যমে ৮৭ লাখ ১৭ হাজার ১৯৪ টাকা উপার্জন করে এবি, ডাচ-বাংলা, এনআরবি, ইসলামী ও ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেডের অ্যাকাউন্টে জমা দেন।

এ ছাড়া গুলশানের ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড শাখায় স্ত্রীর অ্যাকাউন্টে ৩০ লাখ ৯৭ হাজার টাকা জমা দেন তিনি।

এ ঘটনায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সহকারী পরিচালক সৈয়দ আতাউল কবির বাদী হয়ে ২০১৭ সালের ৩ অক্টোবর গুলশান থানায় মামলা করেন।

Comments