সুবর্ণচরে মা-মেয়েকে ধর্ষণ: অভিযুক্ত আ. লীগ নেতা ৪ দিনের রিমান্ডে, আরেক আসামি গ্রেপ্তার

অপর আসামি বুধবার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।
নোয়াখালী
স্টার অনলাইন গ্রাফিক্স

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে মা-মেয়েকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি চরওয়াপদা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক ইউপি সদস্য আবুল খায়ের ওরফে মুন্সী মেম্বারকে ৪ দিনের রিমান্ডে দিয়েছেন আদালত।

এছাড়া, এ মামলার আরেক এক আসামি মো. হারুনকে (৪২) ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এ নিয়ে মামলার ৩ আসামির সবাইকে গ্রেপ্তার করা হলো।

অপর আসামি মেহরাজ উদ্দিন (৪৮) বুধবার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

গত সোমবার দিবাগত রাতে চরওয়াপদা ইউনিয়নে সিঁদ কেটে ঘরে ঢুকে ওই ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। 

বৃহস্পতিবার জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান জানান, অভিযুক্ত হারুন ঘটনার পর থেকে বিভিন্ন স্থানে পালিয়ে বেড়ায়। তিনি যশোর সীমান্ত দিয়ে একবার ভারতে পালিয়ে যাওয়ারও চেষ্টা করেন। তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, আওয়ামী লীগে নেতা আবুল খায়েরের ঘনিষ্ঠ একই এলাকার বাসিন্দা গরু ব্যাপারী হারুন ওই নারীর ঘরে টাকা আছে লোভ দেখিয়ে মেহেরাজকে চুরি করতে পাঠান। পরিকল্পনা অনুযায়ী মেহেরাজ সোমবার রাতে ওই নারীর ঘরে সিঁধ কেটে ঢুকে দরজা খুলে দেন। পরে আবুল খায়ের ও হারুন ঘরে ঢুকে মা-মেয়েকে ধর্ষণ করেন। পরে মেহেরাজ মেয়েটিকে ধর্ষণ করেন।

 

Comments