অপরাধ ও বিচার

রুমায় ‘কেএনএফ’র গুলিতে আহত ১

স্থানীয়দের দাবি, কেএনএফ সদস্যরা গ্রামে ঢুকে চাঁদা দাবি করেন। চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় উহ্লাচিং মারমাকে গুলি করা হয়।

বান্দরবানের রুমা উপজেলায় একটি মারমা গ্রামে ঢুকে গুলি চালানোর অভিযোগ উঠেছে 'কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট (কেএনএফ)' সদস্যদের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় একজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

রুমা উপজেলার থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহ জাহান দ্য ডেইলি স্টারকে জানান, আজ মঙ্গলবার ভোর ৫টার দিকে রুমা উপজেলার রিঝুক পাড়ায় এ ঘটনা ঘটেছে।

এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়েছেন মংনাক মারমার ছেলে উহ্লাচিং মারমা (৩৫)।

স্থানীয়দের দাবি, কেএনএফ সদস্যরা গ্রামে ঢুকে চাঁদা দাবি করেন। চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় উহ্লাচিং মারমাকে গুলি করা হয়।

গুলিতে গুরুতর আহত উহ্লাচিং মারমাকে রুমা উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

রুমা উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্তব্যরত চিকিৎসক মো. মোস্তফা রুবেল বলেন, 'আজ সকাল সাড়ে ৮টায় একজন গুলিবিদ্ধ রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন রিঝুক পাড়ার গ্রামবাসী। তার পিঠের নিচের অংশে গুলি লেগেছে। গুলিটি বের হয়নি। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বান্দরবান সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।'

বান্দরবান সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক এস এম আসাদুল্লাহ দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, 'দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তাকে ভর্তি করা হয়। গুলি ভেতরেই রয়েছে এবং এর ফলে ইন্টারনাল ব্লিডিং হচ্ছে। গুলি বের করতে যে অপারেশন করা দরকার তার জন্য প্রয়োজনীয় সবকিছু আমাদের হাসপাতালে নেই। তাই তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।'

গুলিবিদ্ধ রোগী ও গ্রামবাসীদের বরাত দিয়ে ওসি মো. শাহ জাহান বলেন, 'আজ ভোরে উহ্লাচিং মারমা বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর গ্রামের পাশে ঝোপে লুকিয়ে থাকা সশস্ত্র কুকি-চিন সদস্যদের দেখে ভয়ে পালানোর চেষ্টা করেন। পেছন থেকেই কুকি-চিন সদস্যরা গুলি চালায়। এতে উহ্লাচিং মারমা গুলিবিদ্ধ হন।'

তিনি জানান, এ ঘটনায় অভিযোগ ও তদন্ত সাপেক্ষে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Comments