ইসলামী ব্যাংকের লকার থেকে স্বর্ণের গয়না গায়েব: ৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ

‘এটি দুদকের এখতিয়ার, তাই ‍দুদকই অভিযোগটি তদন্ত করবে।’

চট্টগ্রামের চকবাজার শাখা ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ পিএলসির একটি লকার থেকে ১৪৯ ভরি সোনার গয়না নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় চারজনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছে ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহক।

আজ সোমবার দিবাগত রাতে গ্রাহক রোকেয়া বেগম চকবাজার থানায় লিখিত অভিযোগ করেন।

চকবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওয়ালি উদ্দিন আকবর দ্য ডেইলি স্টারকে তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

অভিযুক্ত চারজন হলেন—আইবিবিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ মনিরুল মওলা, কোম্পানি সচিব জেকিউএম হাবিবুল্লাহ, শাখা ব্যবস্থাপক এসএম শফিকুল মওলা ও লকার ইনচার্জ মো. ইউনুস।

আকবর ডেইলি স্টারকে বলেন, 'অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্টতার কারণে আমরা এটি জিডি হিসেবে নিবন্ধন করেছি এবং অভিযোগটি আরও তদন্তের জন্য দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) পাঠানো হবে। এটি দুদকের এখতিয়ার, তাই ‍দুদকই অভিযোগটি তদন্ত করবে।'

সূত্র মতে, নগরীর বেভারলি হিল এলাকার বাসিন্দা ও ইসলামী ব্যাংকের গ্রাহক রোকেয়া বারী ব্যাংকের একটি লকারে প্রায় ১৪৯ ভরি স্বর্ণের গয়না রেখেছিলেন। ২৯ মে লকার ইনচার্জের সঙ্গে লকার রুমে প্রবেশ করে তিনি দেখতে পান যে, তার লকারটি খোলা এবং সেখানে গয়না নেই।

রোকেয়ার ছেলে ডাক্তার রিয়াদ মোহাম্মদ মারজুক ডেইলি স্টারকে বলেছিলেন, 'মা ২০০৭ সাল থেকে এই শাখায় তার স্বর্ণের গয়না রাখার জন্য লকার ব্যবহার করে আসছেন। বুধবার দুপুর ১২টার দিকে ব্যাংকে গিয়ে লকার রুমের ইনচার্জকে তার লকার দেখার অনুরোধ করেন। মায়ের কাছে লকারের মূল চাবি আছে এবং আরেকটি ডুপ্লিকেট চাবি ইনচার্জের কাছে থাকে।'

তিনি বলেন, 'তারা দুজন লকার রুমে প্রবেশ করেন। তখন ইনচার্জ প্রথমে দেখেন যে মায়ের লকারটি খোলা। আমার মা লকারটি পরীক্ষা করে ব্যাংক কর্মকর্তাদের বিষয়টি জানান। আমরা সঙ্গে সঙ্গে পুলিশকে বিষয়টি জানাই এবং চকবাজার থানার ওসি লকার রুম দেখে গেছেন।'

Comments