৭ জানুয়ারি ছাত্রলীগের পরীক্ষা: সাদ্দাম

‘শেখ হাসিনার নৌকা মার্কার পক্ষে ব্যালট বিপ্লব নিশ্চিত করতে ছাত্রলীগ সব সময় মাঠে থাকবে।’
নৌকার পক্ষে ব্যালট বিপ্লব নিশ্চিত করতে ছাত্রলীগ সব সময় মাঠে থাকবে
অনুষ্ঠানে সেলিম মাহমুদ ও সাদ্দাম হোসেনসহ অন্যান্যরা। ছবি: সংগৃহীত

আগামী ৭ জানুয়ারির ভোটের মাধ্যমে ছাত্রলীগের পরীক্ষা নেওয়া হবে উল্লেখ করে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন বলেছেন, সারাদেশে ছাত্রলীগের সবাইকে এই পরীক্ষায় অংশ নিয়ে গোল্ডেন এ প্লাস পেতে হবে।

আজ সোমবার বিকেলে চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার হযরত শাহ নেয়ামত শাহ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে উপজেলা ছাত্রলীগ আয়োজিত চাঁদপুর-১ আসনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত নৌকার প্রার্থী সেলিম মাহমুদের পক্ষে নির্বাচনী পথসভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

সাদ্দাম হোসেন বলেন, শেখ হাসিনার নৌকা মার্কার পক্ষে ব্যালট বিপ্লব নিশ্চিত করতে ছাত্রলীগ সব সময় মাঠে থাকবে। এজন্য আমাদের ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বিনয়ী হয়ে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট চাইতে হবে। ভোটারদের সুন্দরভাবে বুঝিয়ে ভোটকেন্দ্রে আনতে হবে। কারণ ভোট চাওয়া একটি আর্ট, ভোট চাওয়া একটি শিল্প।

'পরিবার-পরিজন, আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব ও সাধারণ মানুষের কাছে গিয়ে ভোট চাইতে হবে। ভোট প্রার্থনা করতে হবে। যেভাবে আমরা ছাত্রলীগ কর্মীরা অতীতে বিএনপির ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করেছি, ঠিক সেভাবে ৭ জানুয়ারিতে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা গণতন্ত্র ও নৌকার যুগপৎ বিজয় নিশ্চিত করবে। এই নির্বাচনকে ভোট উৎসবে পরিণত করতে হবে। তাহলে গণতন্ত্রের বিজয় হবে', যোগ করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর-১ (কচুয়া) আসনের নৌকার প্রার্থী সেলিম মাহমুদ। সেই সময় বিশেষ বক্তা হিসেবে বক্তব্য দেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান। কচুয়া উপজেলা ছাত্রলীগ আহ্বায়ক সালাউদ্দিন সরকারের সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি মাজহারুল কবির শয়ন, চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি জহির উদ্দিন মিজি ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন খান প্রমুখ।

Comments

The Daily Star  | English

Hefty power bill to weigh on consumers

The government has decided to increase electricity prices by Tk 0.34 and Tk 0.70 a unit from March, which according to experts will have a domino effect on the prices of essentials ahead of Ramadan.

2h ago