বাংলাদেশের ২০ লাখ ৪৪ হাজার মানুষ খোলা জায়গায় মলত্যাগ করেন

টয়লেটের অনুপস্থিতি অপুষ্টির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কারণ হওয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশের ২০ লাখ ৪৪ হাজার মানুষ খোলা জায়গায় মলত্যাগ করেন। দেশের ৮ বিভাগের মধ্যে সবচেয়ে বেশি মানুষ খোলা জায়গায় মলত্যাগ করেন রংপুরে।

টয়লেটের অনুপস্থিতি অপুষ্টির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কারণ হওয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশের ২০ লাখ ৪৪ হাজার মানুষ খোলা জায়গায় মলত্যাগ করেন। দেশের ৮ বিভাগের মধ্যে সবচেয়ে বেশি মানুষ খোলা জায়গায় মলত্যাগ করেন রংপুরে।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) প্রথম ডিজিটাল 'জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২২' এর প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

অপর্যাপ্ত স্যানিটেশন ব্যবস্থা সম্পর্কে সচেতনতা ও বৈশ্বিক স্যানিটেশন সংকট মোকাবিলায় প্রতি বছরের ১৯ নভেম্বর বিশ্ব টয়লেট দিবস পালন করা হয়।

বিবিএসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, রংপুর বিভাগে ৭ লাখ ৩৫ হাজারের বেশি মানুষ খোলা জায়গায় মলত্যাগ করেন। এরপর রাজশাহী বিভাগে প্রায় ৩ লাখ ১৭ হাজার মানুষ, চট্টগ্রাম বিভাগে প্রায় ২ লাখ ৯৯ হাজার, সিলেট বিভাগে ২ লাখ ৯৩ হাজার মানুষ, ময়মনসিংহ বিভাগে ১ লাখ ৯০ হাজার মানুষ, খুলনা বিভাগে ৬০ হাজার মানুষ ও বরিশাল বিভাগে ২৭ হাজার মানুষ খোলা জায়গায় মলত্যাগ করেন। আর ঢাকা বিভাগে প্রায় ১ লাখ ২৩ হাজার মানুষ খোলা জায়গায় মল ত্যাগ করেন।

প্রতিবেদন বলছে, ফ্লাশ করে, পানি ঢেলে নিরাপদ নিষ্কাশন সম্বলিত টয়লেট সুবিধা ব্যবহার করে ৯ কোটি ২৫ লাখ ৫৫ হাজার মানুষ। আর কাঁচা, খোলা ও ঝুলন্ত টয়লেট ব্যবহার করে দেশের ৬৭ লাখ ২২ হাজার মানুষ।

বরিশাল বিভাগের প্রায় ৩৪ লাখ ৭১ হাজার মানুষ ফ্লাশ করে, পানি ঢেলে নিরাপদ নিষ্কাশন সম্বলিত টয়লেট সুবিধা ব্যবহার করে। আর কাঁচা, খোলা ও ঝুলন্ত টয়লেট ব্যবহার করে ১ লাখ ৬৫ হাজার মানুষ। চট্টগ্রাম বিভাগের প্রায় ১ কোটি ৯৬ লাখ মানুষ ফ্লাশ করে, পানি ঢেলে নিরাপদ নিষ্কাশন সম্বলিত টয়লেট সুবিধা ব্যবহার করে। আর কাঁচা, খোলা ও ঝুলন্ত টয়লেট ব্যবহার করে ৭ লাখ ৮০ হাজার মানুষ। ঢাকা বিভাগের প্রায় ৩ কোটি ৭ লাখ মানুষ ফ্লাশ করে, পানি ঢেলে নিরাপদ নিষ্কাশন সম্বলিত টয়লেট সুবিধা ব্যবহার করে। আর কাঁচা, খোলা ও ঝুলন্ত টয়লেট ব্যবহার করে ৬ লাখ ৩২ হাজার মানুষ।

এ ছাড়া, খুলনা বিভাগের প্রায় ৯৫ লাখ ৮০ হাজার মানুষ ফ্লাশ করে, পানি ঢেলে নিরাপদ নিষ্কাশন সম্বলিত টয়লেট সুবিধা ব্যবহার করে। আর কাঁচা, খোলা ও ঝুলন্ত টয়লেট ব্যবহার করে ৭ লাখ ৮৬ হাজার মানুষ। ময়মনসিংহ বিভাগের প্রায় ৪৭ লাখ ৩৩ হাজার মানুষ ফ্লাশ করে, পানি ঢেলে নিরাপদ নিষ্কাশন সম্বলিত টয়লেট সুবিধা ব্যবহার করে। আর কাঁচা, খোলা ও ঝুলন্ত টয়লেট ব্যবহার করে ৮ লাখ ৪০ হাজার মানুষ। রাজশাহী বিভাগের প্রায় ১ কোটি ১৩ লাখ মানুষ ফ্লাশ করে, পানি ঢেলে নিরাপদ নিষ্কাশন সম্বলিত টয়লেট সুবিধা ব্যবহার করে। আর কাঁচা, খোলা ও ঝুলন্ত টয়লেট ব্যবহার করে ১০ লাখ ৩১ হাজার মানুষ। রংপুর বিভাগের প্রায় ১ কোটি ৭৪ লাখ ৬৮ হাজার মানুষ ফ্লাশ করে, পানি ঢেলে নিরাপদ নিষ্কাশন সম্বলিত টয়লেট সুবিধা ব্যবহার করে। আর কাঁচা, খোলা ও ঝুলন্ত টয়লেট ব্যবহার করে ১৪ লাখ ৭৫ হাজার মানুষ। এবং সিলেট বিভাগের প্রায় ৫ লাখ ১২ হাজার মানুষ ফ্লাশ করে, পানি ঢেলে নিরাপদ নিষ্কাশন সম্বলিত টয়লেট সুবিধা ব্যবহার করে। আর কাঁচা, খোলা ও ঝুলন্ত টয়লেট ব্যবহার করে ১০ লাখ ৬৬ হাজার মানুষ।

অন্যদিকে, রাজধানীর উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে প্রায় ১ কোটি ৭৮ লাখ মানুষের জন্য পাবলিক টয়লেট আছে ১০০ টির বেশি। মোট ১২৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত ২ সিটি করপোরেশনে নতুন ৩৬টি ওয়ার্ডে কোনো পাবলিক টয়লেট নেই। প্রয়োজনের তুলনায় কম টয়লেটের কারণে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে মানুষের।

ওয়াটার এইড বাংলাদেশ কান্ট্রি ডিরেক্টর হাসিন জাহান দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, 'খোলা জায়গায় মলত্যাগ গত ৫ বছরে বাংলাদেশ অনেক কমিয়ে আনতে পেরেছে। বন্যা পরিস্থিতিসহ বিভিন্ন কারণে খোলা জায়গায় মলত্যাগ একেবারে শূন্যে আনা যায় না।'

'নিরাপদ স্যানিটেশন পরিচালনা সূচকে বাংলাদেশ পিছিয়ে আছে, যা বাংলাদেশের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাধা', বলেন তিনি।

Comments

The Daily Star  | English

‘Will implement Teesta project with help from India’

Prime Minister Sheikh Hasina has said her government will implement the Teesta project with assistance from India and it has got assurances from the neighbouring country in this regard.

5h ago