বাংলাদেশ

সোমবার সন্ধ্যার আগে ফাঁকা হবে ইজতেমা মাঠ, দ্বিতীয় পর্ব শুরু শুক্রবার

টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে লাখো ধর্মপ্রাণ মুসলমানের কণ্ঠে ‘আমিন আল্লাহুমা আমিন’ ধ্বনিতে মুখরিত আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো এবারের বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। মোনাজাতে আল্লার কাছে মুসলিম উম্মাহর ঐক্য, শান্তি, সমৃদ্ধি, ইহলৌকিক ও পারলৌকিক মুক্তি এবং দ্বীনের দাওয়াত পৌঁছে দেওয়ার তৌফিক কামনা করা হয়।
ইজতেমার আরেখি মোনাজাত। ছবি: প্রবীর দাশ

টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে লাখো ধর্মপ্রাণ মুসলমানের কণ্ঠে 'আমিন আল্লাহুমা আমিন' ধ্বনিতে মুখরিত আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো এবারের বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। মোনাজাতে আল্লার কাছে মুসলিম উম্মাহর ঐক্য, শান্তি, সমৃদ্ধি, ইহলৌকিক ও পারলৌকিক মুক্তি এবং দ্বীনের দাওয়াত পৌঁছে দেওয়ার তৌফিক কামনা করা হয়।

ক্ষমা লাভের আশায় একসঙ্গে হাত তুলতে দূরদূরান্ত থেকে লাখো মানুষ আখেরি মোনাজাতে এসেছিলেন। ইহলোকে মঙ্গল, পরলোকে ক্ষমা, দেশের কল্যাণ, মুসলিম উম্মাহর ঐক্য ও বিশ্বশান্তি কামনা করা হয় তাবলিগ জামাতের ৫৬তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাতে। আখেরি মোনাজাতে ২০ লাখের বেশি মানুষ অংশ নিয়েছেন বলে সংশ্লিষ্টরা ধারণা করছেন।

কওমীপন্থী মাওলানা জোবায়ের অনুসারীদের প্রথম পর্বের পর দ্বিতীয় পর্বে মাওলানা সা'দ কান্ধলভী অনুসারী ওয়াসেকুল ইসলামের তাবলিগ অনুসারীদের ইজতেমা হবে আগামী ২০ জানুয়ারি থেকে ২২ জানুয়ারি পর্যন্ত।

সোমবার মাগরিবের আগেই জোবায়ের অনুসারীরা টঙ্গীতে ইজতেমা ময়দান ত্যাগ করে গাজীপুর জেলা প্রশাসনের কাছে ময়দানের দায়িত্ব হস্তান্তর করবেন। এরপর মাওলানা সা'দের অনুসারীরা ময়দানে প্রবেশ করবেন এবং দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমার জন্য প্রস্তুতি নেবেন।

তাবলিগ জামাতের শীর্ষ মুরব্বি বাংলাদেশের তাবলিগ মারকাজের কাকরাইল মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মোহাম্মদ জোবায়ের আহমদ আরবী, উর্দু ও বাংলা ভাষায় ২৩ মিনিট ধরে আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন। সকাল ৯টা ৫৭ মিনিট থেকে মোনাজাত শুরু হয়ে চলে ১০টা ২০ মিনিট পর্যন্ত।

এদিকে, আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে রোববার ভোর থেকেই টঙ্গীর ইজতেমা অভিমুখে লাখো মানুষের ঢল নামে। শনিবার মধ্যরাত থেকেই ইজতেমা ময়দানগামী ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। মোনাজাতে অংশ নিতে লাখ লাখ মানুষ পায়ে হেঁটেই ইজতেমাস্থলে পৌঁছান। মোনাজাতের আগেই ইজতেমা মাঠ কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যাওয়া বহু মানুষ মাঠের আশপাশের রাস্তায় অবস্থান নেন। যারা ইজতেমা মাঠে পৌঁছাতে পারেননি তারা কামারপাড়া সড়ক ও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে খবরের কাগজ, পাটি, বস্তা ও পলিথিন বিছিয়ে বসে পড়েন। অনেকে আশপাশের বাসা-বাড়ি-কারখানা-অফিস-দোকান ও যানবাহনের ছাদে থেকে আখেরি মোনাজাতে অংশ নেন। আখেরি মোনাজাতের জন্য রোববার এই এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কলকারখানাসহ বিভিন্ন অফিস ও প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল।

শেষ দিনে বয়ানকারী তাবলিগ জামাতের সুরা সদস্য মাওলানা ফপারুক হোসেন জানান, রোববার বিশ্ব তাবলিগ জামাতের প্রথম পর্বের শেষদিন সকাল হতে আখেরি মোনাজাত শুরু পর্যন্ত হেদায়াতি বয়ান করেন ভারতের মাওলানা আবদুর রহমান। তিনি তাবলিগের গুরুত্ব তুলে ধরে হেদায়তি বয়ান করেন। তার বয়ান বাংলায় অনুবাদ করেন বাংলাদেশের মাওলানা আব্দুল মতিন।

Comments