‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সম্পূর্ণ বাতিল করে দেওয়া যুক্তিসঙ্গত হবে না’

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে আবার বসা হবে, সেখানে যে কেউ মতামত দিতে পারবেন। কেন এই আইন করতে আমরা বাধ্য হয়েছি তার প্রেক্ষাপট সবাই জানেন। এটা ব্যাখ্যা করে বলার দরকার নেই। অনেকেই বলেছেন এই আইন করে কোনো উপকার হয়নি। আমার মনে হয় কিছু কিছু উপকার হয়েছে।’
আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ছবি: সংগৃহীত

আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, যুক্তিসঙ্গত সব সাজেশন সরকার শুনতে চায়। সুশীল সমাজের বক্তব্য বন্ধ করার উদ্দেশ্য সরকারের নেই। সুশীল সমাজের সুপারিশগুলো সরকার গুরুত্বের সঙ্গে নেবে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে সরকারের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবার আলোচনার দ্বার উন্মুক্ত।

আজ সোমবার রাজধানীর প্যানপ্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে ইউএসএইডের প্রামোটিং অ্যাডভোকেসি অ্যান্ড রাইটস্ প্রকল্পের আওতায় কাউন্টারপার্ট ইন্টারন্যাশনাল এবং ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর নট ফর প্রফিট ল (আইসিএনএল) আয়োজিত 'শেপিং অব থার্ড সেক্টরলস অ্যান্ড পলিসিস' বিষয়ক অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইনমন্ত্রী বলেন, 'ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে আবার বসা হবে, সেখানে যে কেউ মতামত দিতে পারবেন। কেন এই আইন করতে আমরা বাধ্য হয়েছি তার প্রেক্ষাপট সবাই জানেন। এটা ব্যাখ্যা করে বলার দরকার নেই। অনেকেই বলেছেন এই আইন করে কোনো উপকার হয়নি। আমার মনে হয় কিছু কিছু উপকার হয়েছে।'

তিনি আরও বলেন, 'আমি এমন কথা বলব না যে আইনটির কোনো ত্রুটি-বিচ্যুতি নেই। সব আইনেরই কিছুকিছু পদ্ধতিগত সমস্যা থাকে। আবার কিছু কিছু বাস্তবায়নের সমস্যা থাকে। যখন বাস্তবায়নে সমস্যা হয় তখন আলোচনার মাধ্যমে তার সমাধান করা হয়। ঠিক সেকারণেই বলছি, এই আইন নিয়ে আমরা আবারও বসব। যদি বিধি পরিবর্তন করে সমস্যার সমাধান করতে পারি, তাহলে অবশ্যই আমরা সেদিকে যাব।'

'যদি তারপরও আমরা দেখি যে আইনটির সংশোধন করা প্রয়োজন আছে, সেটা করতেও আমরা পিছপা হব না। কিন্তু সম্পূর্ণ আইনটিকে বাতিল করে দেওয়া যুক্তিসঙ্গত হবে না। সেজন্য আসুন আমরা আইনটি নিয়ে আবার বসি এবং সেখানে আইনটির সমস্যা চিহ্নিত করে সমাধানের ব্যবস্থা করি। এই বৈঠক রমজানের আগেই হতে পারে', যোগ করেন তিনি।

নাগরিক সমাজের প্রতি ইঙ্গিত করে আনিসুল হক বলেন, 'আপনাদের যেমন সংবিধানের প্রতি আনুগত্য আছে, তেমনি আমাদেরও আনুগত্য আছে। আমরাও চাই না সংবিধান বিরোধী কোনো আইন হোক।'

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিষয়ে তিনি বলেন, 'কারো বাক-স্বাধীনতা বা সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতাহরণ করার জন্য এটা তৈরি করা হয়নি। পেনাল কোডে ফিজিক্যালি চুরি করলে কী শাস্তি হয়, সেটা আছে। প্রযুক্তির বিস্তারের ফলে চুরি আর শুধু ফিজিক্যালি হয় না, ডিজিটাল মাধ্যমেও হয়। ডিজিটাল মাধ্যমে যে অপরাধগুলো হচ্ছিল তা প্রতিরোধের জন্য একটি আইনের প্রয়োজন ছিল। বিশ্বের যেখানেই এই আইনের বিষয়ে কথা হয়েছে সেখানে কেউ বলেনি, এ আইনের প্রয়োজনীয়তা নেই।'

তিনি আরও বলেন, 'আইনটি ভেটিংয়ের জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে এলে অংশীজনদের সঙ্গে একটি বৈঠক করা হয়েছিল। এরপর সংসদে স্থায়ী কমিটির সভায় এটকো ও সম্পাদক পরিষদসহ বিভিন্ন অংশীজনের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করা হয়েছিল। সেখানে অংশীজনদের কিছু কিছু সাজেশন বা পরামর্শ গ্রহণ করা হয়েছিল। দুঃখের হলেও সত্য এই আইন করার পর আমরা অনেক মিসইউজ ও অ্যাবিউজ দেখেছি। যখন এই আইনের অপব্যবহার হওয়ার প্রবণতা দেখা দিয়েছিল, তখন তাৎক্ষণিকভাবে আমি নীতিনির্ধারকদের সঙ্গে বসেছিলাম এবং জেনেভায় জাতিসংঘ মানবাধিকার বিষয়ক অফিসের সঙ্গে যোগাযোগ করে ভার্চুয়ালি বৈঠকে বসেছিলাম।'

 'এই বৈঠকে আমরা প্রথমে যে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম, সেটা হচ্ছে আইনটি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হোক। এরপর আমি জেনেভায় গিয়ে জাতিসংঘ মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার সঙ্গে বৈঠক করেছিলাম। সেখানে সিদ্ধান্ত হয় যে, পৃথিবীতে এরকম কোনো আইন আছে কি না, যদি থেকে থাকে তাহলে তার বেস্ট প্র্যাকটিসগুলো কী কী— সেটা জানা এবং সেটাকে এই আইনে যুক্ত করে দুর্বলতাগুলো দূর করার চেষ্টা করা হবে', যোগ করেন তিনি।

আনিসুল হক বলেন, 'ওই বৈঠকে আরও সিদ্ধান্ত হয় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি নিয়ে আলাপ-আলোচনার জন্য একটি কমিটি গঠন করা হবে। তার পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকাস্থ জাতিসংঘ মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার অফিস, আইন, পররাষ্ট্র ও ¯রাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং আইসিটি ডিভিশনের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়। বর্তমানে জাতিসংঘ মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনারের অফিস থেকে এ বিষয়ে একটি সাজেশন পাওয়া গেছে এবং সেটা সরকার দেখছে। পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া আছে এখন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করলেই কাউকে গ্রেপ্তার করা যাবে না।'

তিনি আরও বলেন, বেসরকারি সংস্থাগুলোর কার্যক্রম যাতে সঠিক ও সাবলীলভাবে চলতে পারে, সেজন্য বৈদেশিক অনুদান (স্বেচ্ছাসেবামূলক কার্যক্রম) রেগুলেশন আইন, ২০১৬ এর বিধিমালা দ্রুত প্রণয়নের বিষয়ে তিনি এনজিও বিষয়ক ব্যুরোর সঙ্গে কথা বলবেন।

সম্মানিত অতিথির বক্তব্যে ইউএসএইড-এর মেধাবি গিরি,অ্যাক্টিং অফিস ডিরেক্টর বলেন, 'আজকের এই আয়োজনের প্যানেলিস্টরা যে প্রস্তাবনাগুলো উপস্থাপন করেছেন ইউএসএইড তার প্রতি সমর্থন জানায়। আশা করি প্রস্তাবনাগুলো গৃহীত হলে তা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও বৈদেশিক অনুদান (স্বেচ্ছা সেবামূলক কার্যক্রম) রেগুলেশন আইন, ২০১৬ এর প্রয়োগকে আরও কার্যকরী ও জনহিতকর করে তুলবে।'

অনুষ্ঠানে প্যানেল আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম, অধ্যাপক সি আর আবরার ও ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই শেপিং অব থার্ড সেক্টরস লস এন্ড পলিসিস অনুষ্ঠানের ধারণাপত্র পাঠ করেন আইসিএনএল-এর কনসাটেন্ট শারমিন খান। এরপর প্যানেল আলোচকরা নাগরিক সমাজের উপর বৈদেশিক অনুদান (স্বেচ্ছাসেবামূলক কার্যক্রম) রেগুলেশন আইন, ২০১৬ ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, ২০১৮ এর প্রভাব নিয়ে আলোকপাত করেন।

অনুষ্ঠানে নাগরিক সমাজের পক্ষে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী, বিশিষ্ট সমাজকর্মী খুশী কবিরসহ দেশের শিক্ষাবিদ, বুদ্ধিজীবী, উন্নয়নকর্মী, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন স্তরের প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।

Comments

The Daily Star  | English

Old, unfit vehicles running amok

The bus involved in yesterday’s accident that left 14 dead in Faridpur would not have been on the road had the government not caved in to transport associations’ demand for allowing over 20 years old buses on roads.

5h ago