বাংলাদেশ

এনআইডি নিবন্ধন ইসি থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে নিতে সংসদে বিল

বর্তমানে এনআইডির দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের (ইসি)। নতুন আইনটি কার্যকর হলে ইসি সে ক্ষমতা হারাবে। 
সংসদ
জাতীয় সংসদ ভবন। স্টার ফাইল ফটো

জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) নিবন্ধন নির্বাচন কমিশনের হাত থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে নিতে একটি বিল সংসদে তোলা হয়েছে। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান আজ সোমবার জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন বিলটি সংসদে উত্থাপন করেন। 

২০১০ সালের জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন আইন রহিত করে নতুন এই আইন করা হচ্ছে।

বর্তমানে এনআইডির দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের (ইসি)। নতুন আইনটি কার্যকর হলে ইসি সে ক্ষমতা হারাবে। 

বিলে বলা হয়েছে, বিদ্যমান আইনটি রহিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের কাছে রক্ষিত এবং নির্বাচন কমিশনের সংগৃহীত জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত সব তথ্য–উপাত্ত নিবন্ধকের কাছে হস্তান্তরিত হবে।

বিলে আরও বলা হয়, জাতীয় পরিচয়পত্র দেওয়ার জন্য একজন নিবন্ধক থাকবেন। তিনি সরকার কর্তৃক নিযুক্ত হবেন। জাতীয় পরিচয়পত্র পেতে প্রত্যেক নাগরিককে পরিচয় নিবন্ধন করতে হবে। এ জন্য নির্ধারিত পদ্ধতিতে নিবন্ধকের কাছে আবেদন করতে হবে। নাগরিককে নিবন্ধক একটি নম্বর দেবেন। সেটা একক পরিচিতি নম্বর (ইউনিক আইডেনটিফিকেশন নম্বর) হিসেবে সব জায়গায় ব্যবহৃত হবে।

এতে বলা হয়, নির্বাচন কমিশনের চাহিদা অনুযায়ী নিবন্ধক প্রয়োজনীয় তথ্য-উপাত্ত দেবেন। এজন্য নিবন্ধকের কার্যালয়ের অধীনে একটি সেল থাকবে। এই সেলে নির্বাচন কমিশনের এক বা একাধিক কর্মচারী দায়িত্ব পালন করবে।

নিবন্ধন কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা, সমন্বয় ও পরিবীক্ষণের জন্য একটি সমন্বয় কমিটি থাকবে। এই কমিটির সভাপতি হবেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব। নিবন্ধক হবেন এই কমিটির সদস্যসচিব। সদস্য থাকবেন নির্বাচন কমিশন ও সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের প্রতিনিধিরা।

বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ সংবলিত বিবৃতিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, 'জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন কার্যক্রম নির্বাহী বিভাগের দায়িত্বের অন্তর্ভুক্ত হওয়ার বিভিন্ন দেশের উদাহরণের আলোকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীন সুরক্ষা সেবা বিভাগ উক্ত দায়িত্ব পালনে উপযুক্ত কর্তৃপক্ষ বিবেচিত বলে সুরক্ষা সেবা বিভাগের মাধ্যমে এই সেবাটি জনগণের কাছে পৌঁছে দিতে বর্তমান আইনটি সংশোধন করা প্রয়োজন। সব বয়সের নাগরিকের জন্য জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদানে জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন আইন ২০১০ প্রযোজ্য ক্ষেত্রে সংশোধন ও পরিমার্জনক্রমে হালনাগাদ করে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন আইন, ২০২৩ প্রণয়নের উদ্যোগ সময়োপযোগী। ইহা সব নাগরিককে নির্ধারিত শর্তসাপেক্ষে নিবন্ধিত হওয়ার এবং এর ভিত্তিতে জাতীয় পরিচয়পত্র পাওয়ার ক্ষেত্রে কার্যকর ভূমিকা পালন করবে।'

 

Comments

The Daily Star  | English

Response to Iran’s attack: Israel war cabinet weighing options

Israel yesterday faced pressure from allies to show restraint and avoid an escalation of conflict in the Middle East as it considered how to respond to Iran’s weekend missile and drone attack.

5h ago