আগামী বছরের শুরুতে নিত্যপণ্যের বাজার স্বাভাবিক হবে: বাণিজ্যমন্ত্রী

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, রবি মৌসুমের ফসল ঘরে না আসা পর্যন্ত নিত্যপণ্যের দাম আপাতত কমার কোনো সুযোগ নেই। আগামী বছরের শুরুতেই সংকট কাটিয়ে নিত্যপণ্যের বাজার স্বাভাবিক হবে।
বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি আজ তার রংপুরের বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। ছবি: সংগৃহীত

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, রবি মৌসুমের ফসল ঘরে না আসা পর্যন্ত নিত্যপণ্যের দাম আপাতত কমার কোনো সুযোগ নেই। আগামী বছরের শুরুতেই সংকট কাটিয়ে নিত্যপণ্যের বাজার স্বাভাবিক হবে।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে রংপুর নগরীর লেকভিউ পার্কের বাসভবনে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা জানান তিনি।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, রবি মৌসুমের ফসল ঘরে না আসা পর্যন্ত খাদ্যপণ্যের দাম আপাতত কমার কোনো সুযোগ নেই।

সরকার নির্ধারিত তিন পণ্যের দাম বিষয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আলু, পেঁয়াজ ও ডিমের দাম নির্ধারণ করলেও তা ধরে রাখা সম্ভব হয়নি। পেঁয়াজ আমদানিতে ভারত ৪০ শতাংশ ট্যাক্স বৃদ্ধি করায় ঢাকার বাজারে তা আসার পর ৬০ টাকা থেকে ৬৫ টাকা হয়। এ কারণে গোটা দেশে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। মাঝখানে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ ছিল। ফলে দেশীয় পেঁয়াজ বিক্রি হয়ে যায়। এতে পেঁয়াজের সংকট তৈরি হয়। তবে আগামী এক থেকে দেড় মাসের মধ্যে পেঁয়াজের দাম কমে আসবে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আলুর দাম নিয়ন্ত্রণে সরকার চেষ্টা করছে। সারা দেশের হিমাগারগুলোতে কত আলু আছে পর্যালোচনা করে বাজার নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চলছে। তবে আগাম আলু আসলেই দাম কমে আসবে। তাছাড়া আমদানি কমে যাওয়ায় কিছু খাদ্যপণ্যের দাম ঊর্ধ্বমুখী হয়েছে। বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারের পরিকল্পনা রয়েছে, মন্ত্রণালয়ের চেষ্টাও আছে।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও রোজায় খাদ্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি কোনো প্রভাব ফেলবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিশ্বমন্দা অর্থনীতিতে কম-বেশি সব দেশেই প্রভাব ফেলেছে। সেদিক থেকে বাংলাদেশ অনেক ভালো আছে।

এসময় জেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য তুহিন চৌধুরী, ওয়াসিমুল বারী শিমু, জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রনিসহ অন্য আওয়ামী লীগ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

Comments