বাংলাদেশ

শুঁটকি খাতের ৫৬ শতাংশ নারী শ্রমিক চর্মরোগে আক্রান্ত: সমীক্ষা

শুঁটকি তৈরির কাজে নিয়োজিত ৭৮ শতাংশ নারী শ্রমিক ফেসমাস্ক, হ্যান্ড গ্লাভস ও সানগ্লাসসহ ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম ব্যবহার করেন না।
কর্ণফুলী নদীর দক্ষিণ পাড়ে ডায়মন্ড ঘাট এলাকায় শুঁটকি প্রক্রিয়াকরণ করছেন নারী শ্রমিকরা। ছবি: রাজিব রায়হান/স্টার

শুঁটকি খাতে কর্মরত ৫৬ শতাংশ নারী বিভিন্ন ধরণের চর্মরোগে আক্রান্ত হন বলে উঠে এসেছে সাম্প্রতিক এক সমীক্ষায়।

চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের ২০৭ জন নারী শ্রমিকের ওপর ২০২৩ সালের জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তিন মাস ধরে এই সমীক্ষা পরিচালিত হয়।

অক্সফাম এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের আর্থিক সহায়তায় বাস্তবায়িত এই সমীক্ষা প্রতিবেদন আজ রোববার বন্দর নগরীতে ব্রাইট বাংলাদেশ ফোরামের (বিবিএফ) কার্যালয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে উপস্থাপনা করা হয়।

সমীক্ষায় দেখা গেছে, এই অঞ্চলের নারীরা মাছ নিয়ে প্রধানত তিন ধরণের কাজ করেন। সেগুলো হলো—শুঁটকি প্রক্রিয়াকরণ, কাঁচা মাছ প্রক্রিয়াকরণ এবং শুঁটকির পেস্ট প্রক্রিয়াকরণ।

সমীক্ষায় উঠে এসেছে, শুঁটকি প্রক্রিয়াজাতকরণের কাজে তীব্র দুর্গন্ধের কারণে ৫৫ শতাংশ নারী শ্রমিকের মাথা ঘোরায়।

এ ছাড়া, ২৪ শতাংশ নারী শ্রমিক শ্বাসকষ্টে ভোগেন এবং ৮৫ শতাংশ সূর্যের প্রচণ্ড তাপে মাথাব্যথায় ভোগেন।

স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি এবং ইউনিভার্সিটি অব প্যারিস সাইটের গবেষকরাও এই সমীক্ষায় অংশ নেন।

শুঁটকি তৈরির কাজে নিয়োজিত ৭৮ শতাংশ নারী শ্রমিক ফেসমাস্ক, হ্যান্ড গ্লাভস ও সানগ্লাসসহ ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম ব্যবহার করেন না।

সমীক্ষা প্রতিবেদনে শুঁটকি মাছ প্রক্রিয়াকরণের সময় রাসায়নিক ব্যবহার এবং এই খাতের অন্যান্য সমস্যাগুলো কমানোর জন্য সুরক্ষা সরঞ্জাম ব্যবহারসহ ১০টি সুপারিশ করা হয়েছে।

Comments