হিজাব না পরায় ৯ শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেওয়ার অভিযোগে শিক্ষক বরখাস্ত

‘আমি শুনেছি, হিজাব না পরায় তিনি কাঁচি দিয়ে শিক্ষার্থীদের ভয় দেখানোর চেষ্টা করেছেন। হয়তো তিনি শিক্ষার্থীদের সামান্য চুলও কেটেছেন।’
পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষ,
স্টার অনলাইন গ্রাফিক্স

হিজাব না পরায় মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার সৈয়দপুর আব্দুর রহমান স্কুল অ্যান্ড কলেজের নিম্ন মাধ্যমিক শ্রেণির নয়জন শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে জীববিজ্ঞান বিষয়ের শিক্ষক রুনিয়া সরকারকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

সিরাজদিখান উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সাব্বির আহমেদ দ্য ডেইলি স্টারকে তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ মো. ফরিদ আহমেদ বলেন, 'আমি শুনেছি, হিজাব না পরায় তিনি কাঁচি দিয়ে শিক্ষার্থীদের ভয় দেখানোর চেষ্টা করেছেন। হয়তো তিনি শিক্ষার্থীদের সামান্য চুলও কেটেছেন।'

তিনি বলেন, 'ঘটনাটি গতকাল বিকেলে ঘটেছিল। স্কুল ছুটি হয়ে যাওয়ায় আমি সময় মতো ঘটনাটি জানতে পারিনি।'

সাব্বির আহমেদ বলেন, 'গত রাত ৯টার দিকে আমরা এ ব্যাপারে জানতে পারি। তখন শুনেছিলাম, ছয় শিক্ষার্থী চুল কেটে দেওয়া হয়েছে। আজ সকালে আমি বিদ্যালয় পরিদর্শন করে জেনেছি, নয় শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

'এই ঘটনা তদন্তে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে প্রধান করে একটি কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়েছে। কমিটি আগামী তিন কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেবে। তারপর প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে,' বলেন সাব্বির।

তিনি আরও বলেন, 'যেহেতু ওই শিক্ষক বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) মাধ্যমে নিয়োগপ্রাপ্ত, আমরা তাদেরকে রিপোর্ট করব। শিক্ষার্থীরা যাতে সুষ্ঠুভাবে পড়াশোনা চালিয়ে যেতে পারে সে ব্যাপারে ইতিবাচক পদক্ষেপ নিতে অধ্যক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।'

Comments